মঙ্গলবার, ১৫ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ডেঙ্গু ঠেকানোর নতুন কৌশল

news-image

নিউজ ডেস্ক : মশা নিয়ে পরীক্ষামূলক নতুন এক পদ্ধতিতে ডেঙ্গু জ্বরের প্রকোপ ৭৭ শতাংশ কমিয়ে আনা সম্ভব বলে দেখা গেছে। বিজ্ঞানীরা এক বিশেষ ধরনের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা নিয়ে গবেষণা করেছেন। দেখা গেছে, এ ধরনের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা থেকে ডেঙ্গু সংক্রমণ কমে যায়।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, আপাতত ছোট পরিসরে করা এ গবেষণায় দারুণ সুফল পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। আরও বড় পরিসরে গবেষণার পর এটি ডেঙ্গু প্রতিরোধে কার্যকর ফলাফল আনবে বলে আশা করছেন তাঁরা।

ইন্দোনেশিয়ার ইয়োগিয়াকার্তা শহরে এ গবেষণা চালানো হয়েছে। নতুন এ পদ্ধতিতে ডেঙ্গু ভাইরাসের সংক্রমণ নির্মূল করা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। দ্য ওয়ার্ল্ড মস্কিটো প্রোগ্রাম বলছে, বিশ্বব্যাপী ডেঙ্গু সংক্রমণ রোধে কার্যকর সমাধান হতে পারে এটি।

৫০ বছর আগে খুব অল্পসংখ্যক মানুষ ডেঙ্গু রোগের কথা শুনেছিল। তবে এখন ডেঙ্গু ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে। এডিস ইজিপ্টি নামের মশা এ রোগ ছড়ানোর জন্য দায়ী। দেশে দেশে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। ১৯৭০ সালে কেবল নয়টি দেশে ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। আর এখন বছরে ৪০ কোটি মানুষ ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়।

শত্রুর শত্রু যখন বন্ধু
পরীক্ষামূলক গবেষণায় ‘ওলবাকিয়া’ নামের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা ব্যবহার করা হয়েছে। কেটি আন্দ্রেজ নামের এক গবেষক এই ব্যাকটেরিয়াকে ‘অলৌকিক’ ব্যাকটেরিয়া হিসেবে অভিহিত করেছেন। ওলবাকিয়া নামের এই ব্যাকটেরিয়া মশাদের কোনো ক্ষতি করে না। তবে এই ব্যাকটেরিয়া মশার শরীরের যে অংশ দিয়ে ডেঙ্গু ভাইরাস প্রবেশ করে, সেটি নিষ্ক্রিয় করে দেয়।

এই ব্যাকটেরিয়া ডেঙ্গু ভাইরাসের পুনরুৎপাদন প্রক্রিয়া কঠিন করে তুলতে পারে। এ কারণে কামড়ানোর পর মশা থেকে সংক্রমণের মাত্রা কমে যায়।

গবেষণার কৌশল
পরীক্ষামূলক ওই গবেষণায় মশার ৫০ লাখ ডিম ওলবাকিয়া ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত করা হয়। বালতিভর্তি পানিতে মশার ডিমগুলো রাখা হয়। প্রতি দুই সপ্তাহে একবার মশার ডিমগুলো রাখা হয়। সেগুলো ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত হতে ৯ মাস সময় লাগে। এরপর ইয়োগিয়াকার্তা শহরের ২৪টি এলাকায় অর্ধেক মশা ছেড়ে দেওয়া হয়।

পরীক্ষামূলক গবেষণার ফলাফল নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অব মেডিসিনে প্রকাশিত হয়েছে। ফলাফলও আশাব্যঞ্জক। দেখা গেছে, এতে ডেঙ্গু সংক্রমণের হার ৭৭ শতাংশ কমেছে। আর ৮৬ শতাংশ রোগীর হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন হয়নি।কেটি আন্দ্রেজ বিবিসিকে বলেছেন, ‘এটি খুব চমকপ্রদ। আমরা যা আশা করেছিলাম, ফলাফল তার চেয়েও ভালো।’

এই কৌশল এতটাই সফল হয়েছে যে পুরো শহরে মশাগুলো ছেড়ে দেওয়া হয়। শুধু ইয়োগিয়াকার্তাই নয়, এর আশপাশের এলাকাগুলোতেও এ ধরনের ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত মশা ছেড়ে দেওয়া হয়। ওই অঞ্চল থেকে ডেঙ্গুর সংক্রমণ নির্মূল করতেই এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

বড় পরিসরে ভাবনা
ওয়ার্ল্ড মস্কিটো প্রোগ্রামের কার্যকারিতা যাচাই বিষয়ক পরিচালক কেটি আন্দ্রেজ বলেন, ‘বড় বড় শহরগুলোতে বড় পরিসরে এ ধরনের প্রকল্প নেওয়া হলে কার্যকর ফলাফল পাওয়া যাবে বলে আমরা মনে করি। বিশেষ করে যেসব শহরে ডেঙ্গু বড় ধরনের স্বাস্থ্যসংকট তৈরি করতে পারে, সেসব শহরে এ প্রকল্প কার্যকর হতে পারে।’

গবেষণায় দেখা গেছে, ওলবাকিয়া নামের এই ব্যাকটেরিয়া এক মশার ডিম থেকে জন্ম নেওয়া অন্য মশাতেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। মশা নিয়ন্ত্রণের অন্যান্য পদ্ধতি যেমন কীটনাশক বা পুরুষ মশার বন্ধ্যকরনের চেয়ে এ কৌশল অনেক সহজ ও কার্যকর।

ইয়োগাকার্তা শহরে রোগ প্রতিরোধবিষয়ক প্রধান ইউদিরিয়া আমেলিয়া বলেন, ‘পরীক্ষামূলক গবেষণার ফলাফলে আমরা আনন্দিত। আমরা আশা করছি, এই পদ্ধতি ইয়োগাকার্তার সব এলাকায় বাস্তবায়ন করা হবে। এরপর দেশটির অন্যান্য শহরে এই পদ্ধতি ছড়িয়ে দেওয়া হবে।’

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, ডেঙ্গুবাহী মশা নিয়ে বছরের পর বছর ধরে চলা গবেষণার ক্ষেত্রে এটি একটি মাইলফলক। ডিজিজ মডেলিং স্টাডিজেও দেখা গেছে, ওলবাকিয়া ব্যাকটেরিয়া ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধ করতে পারে।

বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ডেভিড হামার বলেছেন, জিকা, ইয়েলো ফিভার ও চিকুনগুনিয়ার মতো রোগের ক্ষেত্রে এ গবেষণাপদ্ধতি কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ডেঙ্গুর মতো এই রোগগুলোও মশার কামড় থেকে ছড়ায়।