শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্পন্দনের প্রথম অ্যালবাম

news-image

বিনোদন ডেস্ক : শিরোনাম ঠিকই পড়েছেন। প্রতিষ্ঠার ৪৬ বছর পর প্রথমবার গানের অ্যালবাম করছে দেশে ব্যান্ডসংগীতের ইতিহাসের শুরুর দিকের ব্যান্ড স্পন্দন। গান করে সত্তর ও আশির দশকের তরুণ প্রজন্মকে মাতালেও অ্যালবাম করা হয়নি তাদের। এলপি রেকর্ডে কিছু গান প্রকাশ পেয়েছে। এবারই অ্যালবাম করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ‘ইস্কুল খুইলাছে’ ও ‘মন তুই চিনলি না রে’-এর মতো সত্তরের দশকের জনপ্রিয় সব গান নতুন করে সাজিয়ে নিজেদের প্রথম অ্যালবামে নিয়ে আসছে কিংবদন্তি ব্যান্ডদল স্পন্দন। তারা নিজেদের প্রথম অ্যালবাম স্পন্দন-এর কাজ শেষ করেছে।

প্রতিষ্ঠার ৪৪ বছর পর ২০১৬ সালে নতুনভাবে স্পন্দন ব্যান্ডটি তাদের যাত্রা শুরু করে। ফিরোজ সাঁই ও কাজী হাবলুর ছেলেরা বাংলাদেশের কিংবদন্তি এ রক ব্যান্ডকে নতুন রূপে নিয়ে এসেছেন। ব্যান্ডের ঐতিহ্যকে আরও সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে আবার ব্যান্ডটিকে সক্রিয় করে তোলেন নিয়াজ, নাজিম, নাঈম ও আনান। অর্থাৎ স্পন্দন ব্যান্ডের বর্তমান সদস্য হচ্ছেন রেজওয়ান ফিরোজ নিয়াজ, রায়হান ফিরোজ নাজিম, কাজী আনাম রেদওয়ান, ফিরোজ নাইম ও কাজী শিশির। এ অ্যালবামের কয়েকটি গানে প্রথম সময়ের স্পন্দন ব্যান্ডের সদস্য কিংবদন্তি কাজী হাবলু পারকাশন বাজিয়েছেন।

বাংলা মিউজিক ও ফোক ঘরানাকে আরও সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে ১৯৭২ সালের ১৭ জুন স্পন্দন ব্যান্ডটির জন্ম। পথচলার খুব কম সময়ের মধ্যেই অসাধারণ সব গান দিয়ে সবার মন জয় করে নেয় ব্যান্ডটি। স্বাধীনতার পর ব্যান্ড মিউজিকে নাসির আহমেদ অপু, ফেরদৌস জুনিয়র, আফতাব কামাল, ল্যারি, মুসা, কামাল, হ্যাপি আখ্ন্দ, কাজী হাবলু, শাহেদুল হুদা, ফেরদৌস ওয়াহিদ, প্রয়াত ফিরোজ সাঁই ও শেখ কামালদের অনবদ্য অবদান স্পন্দন ব্যান্ডটিকে সর্বসাধারণের কাছে করে তোলে আরও জনপ্রিয়। এসব প্রতিভাবানের যৌথ প্রয়াসে স্পন্দন বাংলাদেশের পপ মিউজিকের সর্বোচ্চ স্থান দখল করে নেয়। ওই সময়ে ব্যান্ডের সম্মিলিত কোনো অ্যালবাম প্রকাশ করা হয়নি বলে প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন ফেরদৌস ওয়াহিদ। তিনিসহ ব্যান্ডের অন্য সদস্যরা নিজের নামে একক অ্যালবাম প্রকাশ করেছিলেন।

প্রথাগত সংগীতচর্চা থেকে বেরিয়ে এসে পপ, রক ও ফোক ঘরানার গানগুলোর সঙ্গে পশ্চিমের মিউজিকের মেলবন্ধন করে একধরনের ফিউশনের সৃষ্টি করে স্পন্দন ব্যান্ডটি, যা সে সময় বাংলাদেশের মানুষের জন্য ছিল একদম নতুন। তাই বাংলাদেশের রক মিউজিকের সঙ্গে পশ্চিমের সংগীতধারার মিশ্রণ ঘটিয়ে তৈরি হওয়া ‘বাংলা পপ মিউজিক’ ধারার পথিকৃৎ বলা হয় স্পন্দন ব্যান্ডকে।

স্পন্দনের নতুন অ্যালবামটির এক্সক্লুসিভ ডিজিটাল প্রমোশন পার্টনার হিসেবে রয়েছে জিপি মিউজিক। জিপি মিউজিকে পুরো অ্যালবামটি মুক্তি দেওয়া হয়। শ্রোতারা জিপি মিউজিকের অ্যাপ অথবা ওয়েব প্ল্যাটফর্ম থেকে অ্যালবামটি শুনতে পারবেন। এ ছাড়া অ্যালবামটির দুটি গানের ভিডিও ‘ইস্কুল খুইলাছে’ ও ‘শুনইয়া নাই’ জিপি মিউজিকের ফেসবুক পেজে প্রকাশ করা হবে।

অ্যালবামটির মিক্সড-মাস্টারিংয়ের কাজ করেছেন ওয়েস্টসাইড মাস্টারিং স্টুডিওর চিফ মাস্টারিং ইঞ্জিনিয়ার উডি পর্নপাইটাকসাক, যিনি ‘লুইস আর্মস্ট্রং-দ্য কমপ্লিট হট ফাইভ অ্যান্ড হট’ কাজের জন্য ৪৩ তম গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডসের আসরে সমাদৃত হয়েছিলেন।

এ জাতীয় আরও খবর