মঙ্গলবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বার্সার বড় জয়, আবারও ইনজুরিতে মেসি

Messiজিতেই চলেছে বার্সেলোনা। লা লিগায় গত রাতে রিয়াল বেটিসকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়নরা। বড় জয়েও অবশ্য স্বস্তিতে থাকার উপায় নেই বার্সার। কারণ, আবারও হ্যামস্ট্রিং ইনজুরিতে পড়েছেন দলের প্রাণভোমরা লিওনেল মেসি। চোট পেয়েছেন বার্সার বড় জয়ের নায়ক সেস ফ্যাব্রিগাসও।
বার্সার শেষ দুটি গোলই করেন ফ্যাব্রিগাস (৬৩ ও ৭৯ মিনিট)। তবে হাঁটুতে চোট পেয়ে ম্যাচের ৮০ মিনিটে মাঠের বাইরে যান তিনি। গোলের সূচনাটা নেইমারকে দিয়ে, ম্যাচের ৩৬ মিনিটে। ব্রাজিলীয় ফরোয়ার্ডের গোলেও অবদান ছিল ফ্যাব্রিগাসের। এর এক মিনিট পরই স্কোরলাইন ২-০ করে ফেলেন পেদ্রো। ম্যাচের যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে পেনাল্টি থেকে একটি গোল শোধ করেন বেটিস ফরোয়ার্ড জর্জ মলিনা। তবে বার্সার বড় জয়ের পরও যেন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে মেসির চোট। এ মৌসুমে যে তৃতীয়বারের মতো ইনজুরিতে পড়লেন বার্সা মহাতারকা!
দুই দফা চোট কাটিয়ে সম্প্রতি মাঠে ফেরেন মেসি। কিন্তু তাঁকে যেন খুঁজেই পাওয়া যাচ্ছিল না। তাঁর গোলখরা নিয়ে শুরু হয় গুঞ্জন। আর্জেন্টাইন মহাতারকা সেই গুঞ্জন থামান গত সপ্তাহে, চ্যাম্পিয়নস লিগে এসি মিলানের বিপক্ষে জোড়া গোল করে। নিজেকে আরও মেলে ধরার আশার কথা ভক্তদের শুনিয়েছিলেন মেসি। সেটা আর হলো না। আবারও তাঁর সামনে বাধা হয়ে দাঁড়াল চোট। গত রাতে ম্যাচের ২১ মিনিটে মাঠের বাইরে যান তিনি। এবার কত দিন মাঠের বাইরে কাটাতে হবে, অনিশ্চিত। আজ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা হবে। এর পরই জানা যাবে চোটের আসল চিত্র।
আশার কথা, এর আগে ডান পায়ের হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছিলেন, এবার মেসির আঘাতটা বাঁ পায়ে। ম্যাচশেষে এক সংবাদ সম্মেলনে সেটাই বড় করে দেখলেন বার্সার কোচ জেরার্ডো মার্টিনো। তিনি বলেন, ‘মেসি আগে যে পায়ে চোট পেয়েছিল, এবারের চোটটা অন্য পায়ে। পর্যাপ্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ওর অবস্থা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারব আমরা।’

ফ্যাব্রিগাসের চোট যে গুরুতর কিছু নয়, সেটা জানিয়েছেন তিনি নিজেই। ম্যাচশেষে স্প্যানিশ একটি টেলিভিশনকে বার্সা মিডফিল্ডার বলেন, ‘কয়েক দিন ধরেই হাঁটুতে সমস্যা বোধ করছিলাম। খেলার সময় একটু একটু ব্যথা লাগছিল। সতর্কতা হিসেবেই মাঠ ছাড়ি। কারণ কয়েক বছর আগে হাঁটুতে বড় ধরনের চোট পেয়েছিলাম আমি।’ সূত্র: রয়টার্স।