শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিম মজুতের খবর পাওয়া যাচ্ছে, তদারকি করা হবে: কৃষিমন্ত্রী

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাজারে দাম বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে হিমাগারে ডিম সংরক্ষণের খবর পাওয়া যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুস শহীদ। বিষয়টি তদারকি করা হবে বলেও জানান তিনি।

সোমবার (২৭ মে) সচিবালয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি রোধ ও মজুত কার্যক্রম তদারকিবিষয়ক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে মন্ত্রী একথা বলেন। কৃষিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সভায় খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটুও উপস্থিত ছিলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, বোরো উৎপাদন ভালো হয়েছে। চালের কোনো ঘাটতি নেই, দাম স্থিতিশীল আছে। আলুর উৎপাদন কিছুটা কম হয়েছে, আমদানি উন্মুক্ত আছে।পেঁয়াজ আমদানি উন্মুক্ত আছে, কোনো সমস্যা হবে না। ডিমের দাম কিছুটা বেশি, হিমাগারে ডিম মজুতের খবর পাওয়া যাচ্ছে। বিষয়টি তদারকি করা হবে, সংশ্লিষ্ট বিভাগ এ বিষয়ে দায়িত্ব নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন।

মন্ত্রী বলেন, মনিটরিং চলছে। আমরা কিন্তু বসে নেই, জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে আমাদের সচিবদের যোগাযোগ হচ্ছে। আমাদের সচিবরা প্রতিদিনই কোনো না কোনো জেলার ডিসিকে ফোন করে।

আব্দুস শহীদ বলেন, আমরা এই তিন মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে বসেছিলাম আমাদের দেশের সার্বিক বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করার জন্য। যেটুকু ফলাফল পাওয়ার প্রত্যাশা করেছিলাম সেটুকু ফলাফল আমরা অনেকাংশে পেয়েছি। আজকেও আমরা একমত হয়েছি, বর্তমান অবস্থা কি এবং আমরা ভবিষ্যতে কি কি ব্যবস্থা নিতে পারি। সামনে আমাদের বাজেট আসছে। বাজেট আসার পর একটা ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া থাকতে পারে।

আগামী দিনগুলোতে সব পর্যায়ের বাজার ব্যবস্থা যাতে আরও সুন্দরভাবে নিশ্চিত হয়, সে জন্য সবাই কাজ করার জন্য একমত হয়েছেন বলেও জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, অতীতেও একমত ছিলাম। এটাতে আরও নতুন নতুন কোনো বিষয় যোগ হয়েছে কি না সেটা আমরা আলোচনা করেছি।

দেশে মূল্য পরিস্থিতি সহনীয় আছে জানিয়ে আব্দুস শহীদ বলেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই, না হলে কিন্তু আপনারা দেখতেন দু’দিন পরপর মিছিল মিটিং এগুলো হতো। আমরা তো মিছিল করে করেই এত বড় হয়েছি। এগুলো নিয়ে তো আমাদের অভিজ্ঞতার অভাব নেই।

মন্ত্রী বলেন, চাল, চিনি, আদা, রসুন সব কিছুরই তুলনামূলক চিত্র আমরা দেখেছি, আমাদের প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে কেমন। সব জায়গায় আমরা একটা প্রিমিয়াম পজিশনে আছি। তাই আমি বলবো আমাদের দেশের নাগরিকদের অসন্তুষ্ট হওয়ার কোনো কারণ নেই। জনগণকে আমরা সন্তুষ্ট রাখার জন্য সব কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। ইনশাল্লাহ আগামীতে চালিয়ে যাবো।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সজাগ আছেন। তিনি বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। কালকে হয়তো উনার (প্রধানমন্ত্রী) সঙ্গে আমাদের কথা হবে, আমরা যে আজকে সভা করেছি সেটি তাকে অবহিত করবো।

এছাড়া সভায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব ওয়াহিদা আক্তার, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. ইসমাইল হোসেন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান, খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. শাখাওয়াত হোসেনসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।