শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রিমালের কেন্দ্র পায়রা থেকে ১৮০ কিলোমিটার দূরে

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমালের কেন্দ্রভাগ বিকেল তিনটায় পায়রা বন্দর থেকে ১৮০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল। সন্ধ্যা ৬ থেকে পরবর্তী ৩ থেকে ৪ ঘণ্টার মধ্যে কেন্দ্র উপকূলে উঠে আসবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এটির অগ্রভাগ ইতিমধ্যে উপকূলে আঘাত হেনেছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের ১৩ নম্বর বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমাল উত্তর দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আজ ৩টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৩২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৩১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের অগ্রভাগের প্রভাবে বৃষ্টিসহ দমকা বা ঝোড়ো হাওয়া অব্যাহত রয়েছে। এটি আরও উত্তর দিকে অগ্রসর হয়ে আজ ৬টা থেকে পরবর্তী ৩ থেকে ৪ ঘণ্টার মধ্যে মোংলার নিকট দিয়ে সাগর আইল্যান্ড (পশ্চিমবঙ্গ)-খেপুপাড়া উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

এ দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ নাথ বলেন, ‘বিকেল ৫টায় রিমালের ওপরের অংশ স্থলে আঘাত হানবে। পুরো রাত এটি পশ্চিম বাংলার কলকাতা হয়ে অগ্রসর হবে। এরপর কুষ্টিয়া, মেহেরপুর বাংলাদেশে ঢুকতে পারে আগামীকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে। এ সময় এর গতিবেগ থাকতে পারে ১০০ থেকে ১১০ কিলোমিটারের মধ্যে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফরিদপুর, পাবনা ও রাজশাহী অঞ্চল রিমালের তাণ্ডব মোকাবিলা করবে। ২৮ তারিখ পুরোটা সময় অবস্থান করে এটি মিলিয়ে যাবে।’

বিশ্বজিৎ নাথ বলেন, ‘রিমালের কারণে ১০ থেকে ১২ ফুট জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। এটি বাংলাদেশে আঘাত করার সময় এর সর্বোচ্চ গতিবেগ ১২০ থেকে ১২৫ কিলোমিটার থাকতে পারে। কিছু সময়ের জন্য ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। সাতক্ষীরা ও শ্যামনগর রিমালের কারণে ভালোভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

এ দিকে আবহাওয়ার বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে—প্রবল ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্র অতিক্রমের পর এর নিম্নভাগ অতিক্রম অব্যাহত থাকবে। প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৯০ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়ার আকারে ১২০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আর প্রবল ঘূর্ণিঝড়টির অগ্রবর্তী অংশ ও বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্যের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বরগুনা, বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, ফেনী, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৮ থেকে ১২ ফুট অধিক উচ্চতার বায়ুতাড়িত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে।