শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সারাবিশ্বে ভোটারদের ভোটের প্রতি আগ্রহ কমছে: ইসি আলমগীর

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামীকাল মঙ্গলবার অনুষ্ঠেয় দ্বিতীয় ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় সেজন্য ব্যাপক সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। প্রথম ধাপের নির্বাচনেও তা করা হয়েছে জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেছেন, সারাবিশ্বে ভোটারদের ভোটের প্রতি আগ্রহ কমছে। বিভিন্ন কারণে ভোটাররা অংশ নিতে চান না। ভালো প্রার্থীরা নির্বাচনে অংশ না নিলেও অনেক সময় ভোটাররা ভোট দিতে যান না। কমিশনের প্রতি আস্থা নাই এটা ঠিক নয়, কমিশন সবসময় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষভাবে কাজ করে। সোমবার নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনের ওপর আস্থা-অনাস্থার বিষয় নয়, পছন্দের প্রার্থী না পাওয়ায় এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ভোটার উপস্থিতি কম। তবে কত শতাংশ ভোটার উপস্থিত হলে সন্তোষজনক হবে এ বিষয়ে দায়বদ্ধতা নেই। ভোটাররা ভোট দিতে ইচ্ছুক। ধান কাটার মৌসুম, বৈরী আবহাওয়া ও বড় রাজনৈতিক দল নির্বাচনে আসছে না, এসব কারণে উপজেলা নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কম।

মো. আলমগীর বলেন, কত শতাংশ ভোট পড়লে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হবে, তা নিয়ে জাতীয় কিংবা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে কোনো বিধিনিষেধ নেই। যেকোনো শতাংশ ভোট পড়লেই খুশি। ভোটার উপস্থিতি নিয়ে ইসি উদ্বিগ্ন নয়।

উপজেলা ভোটের দ্বিতীয় ধাপেও সহিংসতার আশঙ্কা করা হচ্ছে। নির্বাচনী প্রচারে হামলা-ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ, প্রতিপক্ষকে হুমকি এবং প্রভাব বিস্তারের ঘটনায় জোরালো হয়েছে কেন্দ্রে ভোটার খরার শঙ্কাও। এমন পরিস্থিতিতে রোববার মধ্যরাতে শেষ হয়েছে আনুষ্ঠানিক প্রচার। মঙ্গলবার ১৫৬ উপজেলায় নেওয়া হবে ভোট।

ইসি সচিবালয় জানায়, এ ধাপে সারাদেশে ৪৫৭ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। ২৩ মে পর্যন্ত তারা মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে কাজ করবে। নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি নিয়ে শুরুতে নানা কৌশলের কথা বলা হলেও প্রথম ধাপের পরে হাল ছেড়ে দিয়েছে ইসি। প্রথম ধাপে উপজেলা ভোটের সর্বনিম্ন রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। ৮ মে ১৩৯ উপজলায় ভোট পড়ে মাত্র ৩৬ দশমিক ১ শতাংশ।

এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেছেন, এর একটি বড় কারণ বিএনপি। ভোট বর্জন করায় তাদের কর্মী-সমর্থক কেন্দ্রে আসছেন না। আরেকটি বড় কারণ স্থানীয় নির্বাচনে ভোটাররা চাকরিস্থল থেকে ভোট দিতে আসতে চান না।

১৩ হাজার ১৬ কেন্দ্রের ৯১ হাজার ৫৮৯ ভোট কক্ষে ৩ কোটি ৫২ লাখ ৪ হাজার ৭৪৮ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ১ কোটি ৭৯ লাখ ৫ হাজার ৪৬৪, নারী ১ কোটি ৭২ লাখ ৯৯ হাজার ৪৭ ও ২৩৭ জন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার। নির্বাচনে ৮৯ হাজার ৮৬৩ পুলিশ ও ১ লাখ ৯৩ হাজার ২৮৭ আনসার সদস্য দায়িত্বে থাকবেন। নির্বাচন ঘিরে সহিংসতা বিষয়ে ইসি আলমগীর বলেন, দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হবে বলে আশা করছে ইসি। ছোটখাটো সমস্যা যাতে না হয়, সে জন্য পুলিশ প্রশাসন সতর্ক।