বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের নৌকা ডুবিতে নিহত ২৪, তদন্তে কমিটি : খোলা হয়েছে তথ্যকেন্দ্র

news-image

হারুন উর রশিদ সোহেল,রংপুর : পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার করতোয়া নদীতে তীর্থযাত্রীদের নৌকা ডুবির ঘটনার উদ্বার হওয়া নিহত পঁচিশ জনের মধ্যে পরিচয় মিলেছে ২৪ জনের। এর মধ্যে ৮শিশু, ১২ নারী ও ৪জন পুরুষ রয়েছে। নিহত ২৪ জনের মধ্যে ২৩ জন সনাতন ধর্মালম্বী ও একজন মুসলিম ধর্মালম্বী রয়েছে। বাকি একজনের পরিচয় এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এছাড়াও আরোও অর্ধশতাধিত নিখোঁজ রয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ফায়ার সার্ভিসের রংপুর বিভাগীয় ডুবুরী দল উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে।

নিহতদের মধ্যে ১৬ জনের লাশ নদীর পাড়ে এবং বাকি আটজনের লাশ বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছে।রোববার দুপুরে বোদা উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়নের আউলিয়ার ঘাট এলাকায় নৌকা ডুবির ঘটনা ঘটেছে।নিহতরা হলেন, পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার মাড়েয়া ফুটকিবাড়ি গ্রামের হেমন্ত কুমারের মেয়ে শ্যামলী রানী কলি (১৪), মাড়েয়া বামনপাড়ার নির্মল চন্দ্রের স্ত্রী শোভা রানী (২৭), সনজীব রায়ের আড়াই বছরের ছেলে প্রীয়ন্ত রায়, বামনহাট গ্রামের রমেশ চন্দ্র রায়ের স্ত্রী শিমলী রানী (৩৫), শিকারপুর ফুটকি বাড়ির বাসু দেবের স্ত্রী রুপালী রাণী (৩৫), তেলীপাড়া শালডাঙ্গার কালি চন্দ্র নাথ বর্মনের স্ত্রী ধন বালা (৬০), বংশীধর পুজারী গ্রামের রমেশ চন্দ্রের স্ত্রী সুনিতা রানী (৬০), একই গ্রামের চুড়া মোহনের স্ত্রী সনেকা রানী (৬০), ময়দান দিঘি চকপাড়া গ্রামের বিলাশ চন্দ্রের স্ত্রী সফলতা রানী (৪০), সাকোয়া শকিরপুর প্রধানপাড়া গ্রামের মধু চন্দ্র বর্মনের স্ত্রী ফালগুনী বর্মন (৪৫), জয় নন্দা বারুয়াপাড়া গ্রামের মহোনী মোহন রায়ের স্ত্রী প্রমিলা দেবী (৭০), চন্দনবাড়ি হিন্দু প্রধানপাড়া গ্রামের সতেন্দ্র নাথের ছেলে যতিশ চন্দ্র (৫৫),বড়শশি কুমারপাড়া গ্রামের আহমদ আলীর ছেলে হাসেম আলী (৭০), কমলা পুকুরী মাড়েয়া গ্রামের অবিরাম চন্দ্রের ছেলে বিলাশ চন্দ্র (৪৫), বোদা আলোকপাড়া গ্রামের রমেশ চন্দ্রের মেয়ে উর্বশী (৮), মদনহার গ্রামের শ্রী রতন চন্দ্রের মেয়ে শ্রেয়শ্রী (৩),দেবীগঞ্জ উপজেলার শালডাঙ্গা হাতিডোবা শ্রী কার্তিকের মেয়ে লক্ষী রানী (২৫), একই গ্রামের বাবুল চন্দ্র রায়ের ছেলে দিপংকর রায় (৩), লক্ষীরপুর ডাঙ্গাপাড়ার চন্ডি প্রসাদের স্ত্রী প্রমিলা রাণী (৫৫), একই উপজেলার মধ্য শিকারপুর গ্রামের বানী কান্ত রায়ের ছেলে অমল চন্দ্র (৩৫), ছত্র শিকারপুর হাতিডোবা গ্রামের শ্রী রবিন চন্দ্রের স্ত্রী তারা রানী (২৪), একই গ্রামের নারায়ন চন্দ্রের মেয়ে প্রীয়ন্ত্রী (৮) হাতিডোবা গ্রামের নারায়ণ চন্দ্রের মেয়ে তনশ্রী (৫), হাতিডোবা গ্রামের রবিন চন্দ্রের সাড়ে তিন বছরের ছেলে বিষ্ণু।

এদিকে নৌকা ডুবির ঘটনায় পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি তথ্য কেন্দ্রও খোলা হয়।ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসক মো. জহুরুল ইসলাম। তিনি সাংবাদিকদের জানান, নৌকার ডুবির ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রতিটি পরিবারকে লাশ সৎকারের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা প্রদান করা হচ্ছে।

বোদা উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট ইউনিয়ন পরিষদে জরুরি তথ্যকেন্দ্র খোলা হয়েছে। যে কোনো প্রয়োজনে ০১৭০৮-৩৯৭৭১৮ ও ০১৭১৯-৩৪৭১৭৩ এই নম্বরে যোগাযোগ করতে বলেছে জেলা প্রশাসন।পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুভ মহালয়া উপলক্ষে নৌকায় করে সবাই বোদা উপজেলার বড়শশি এলাকার বদেশ্বরী মন্দিরে যাচ্ছিলেন। মন্দিরে মহালয়া উপলক্ষে প্রতিবছরই অনেক বড় অনুষ্ঠান হয়। আশপাশের প্রায় সব জেলা থেকে প্রচুর পূর্ণার্থীরা আসেন।
গত দুদিন প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে। ফলে উজানের ঢলে নদীর পানি বেড়ে গেছে। নৌকা ধারণ ক্ষমতার বেশি যাত্রী ছিল। মাঝ নদীতে নৌকাটি ডুবে যায়। আর এতেই প্রাণহানীর সংখ্যা বেড়েছে। নৌকা ডুবির পর পুরুষরা অনেকেই সাঁতরে পাড়ে উঠতে সক্ষম হন। কিন্তু নারী ও শিশুরা ডুবে যায়। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।