রবিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘ফিনল্যান্ডের বাজারে বাংলাদেশের পোশাকের প্রচুর চাহিদা’

news-image

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বাংলাদেশ ও ফিল্যান্ডের মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির সুযোগ রয়েছে। ফিনল্যান্ড বাংলাদেশের বন্ধু রাষ্ট্র। ফিনল্যান্ডের বাজারে বাংলাদেশের তৈরী পোশাক, সিরামিক, চামড়াজাত পণ্যের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। তবে এ মুহুর্তে দু’দেশের বাণিজ্য খুব বেশি নয়।

মন্ত্রী আজ বাংলাদেশ সচিবালয়ে তাঁর কার্যালয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত ফিনল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নিনা ভাসকুনলাথি এর সাথে মতবিনিময়ের সময় এ সব কথা বলেন।

তিনি বলেন, গত অর্থ বছরে বাংলাদেশ ফিল্যান্ডে রপ্তানি করেছে ৩২.৭৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য, একই সময়ে আমদানি করা হয়েছে ৮৪.৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য। ফিনল্যান্ড সরকার সহযোগিতা করলে বাংলাদেশের পণ্য রপ্তানি বৃদ্ধি করা সম্ভব।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশে এখন বিনিয়োগের চমৎকার পরিবেশ বিরাজ করছে। বিদেশী বিনিয়োগের জন্য সরকার বিশেষ সুবিধা প্রদান করছে। এখানে শতভাগ বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে, প্রয়োজনে যে কোন সময় বিনিয়োগকারী শতভাগ বিনিয়োগের অর্থ এবং মুনাফা ফিরিয়ে নিতে পারবেন। উৎপাদিত পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে একবার শুল্ক প্রদানের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশে তুলনামূলক কম মূল্যে প্রচুর দক্ষ শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে। বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ আইন দ্বারা সংরক্ষণ করা হয়েছে। এ সুযোগ গ্রহণ করে ফিনল্যান্ডের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আগামী ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল মধ্য আয়ের দেশে হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে। বাংলাদেশ গতবছর ৩৪.২৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি করছে, এ বছর রপ্তানি হবে ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালে এ রপ্তানির পরিমান দাঁড়াবে ৬০ বিলিয়য়ন মার্কিন ডলার।

তিনি আরও বলেন, রপ্তানি পণ্য সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য সরকার তৈরী পোশাকের পাশাপাশি আইটি, ঔষধ, চামড়াজাত পণ্য, জাহাজ তৈরী, পাটপণ্য ও কৃষি পণ্য রপ্তানির উপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। উন্নত বিশ্ব এখন বাংলাদেশের তৈরী ঔষধ ব্যবহার করছে। ঔষধ শিল্পে বাংলাদেশের সামনে এখন বিপুল সম্ভাবনা।

রাষ্ট্রদূত নিনা ভাসকুনলাথি বলেন, ফিনল্যান্ড বাংলাদেশের পাওয়ার জেনারেশন ও আইসিটি খাতে যন্ত্রপাতি সরবরাহ করছে। এ জন্য প্রায় ১৬টি কোম্পানি এখন কাজ করছে বাংলাদেশে। ফিনল্যান্ড বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। বিনিয়োগের বিষয়টিও গুরুত্বে সাথে বিবেচনা করবে ফিনল্যান্ড।

এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি-২) তপন কান্তি ঘোষ এসময় উপস্থিত ছিলেন।