শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হিলারির পাশে থাকার অঙ্গীকার স্যান্ডার্সের, তারপরও কাটছে না ধোঁয়াশা

news-image

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের পক্ষে কাজ করার অঙ্গীকার করেছেন তার সঙ্গে শেষ পর্যন্ত প্রার্থিতার লড়াইয়ে থাকা ডেমোক্র্যাট সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স। ট্রাম্পকে রুখে দেওয়ার প্রত্যয় থেকেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। এক লাইভ স্ট্রিম ভিডিওতে সমর্থকদের উদ্দেশে নিজের এই অবস্থান জানান স্যান্ডার্স। হিলারি-শিবির থেকেও স্যান্ডার্সের এই সিদ্ধান্তের ব্যাপারটি নিশ্চিত করা হয়েছে।

 

 

তবে ঠিক কবে থেকে হিলারির পক্ষে প্রচারণায় নামবেন, তা নির্দিষ্ট করে জানাননি স্যান্ডার্স। প্রভাবশালী ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের খবরে তার অবস্থানকে ধোঁয়াশাপূর্ণ বলা হয়েছে।

 

স্যান্ডার্স বলেন, ‘আগামী তিন মাসের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক কাজ হচ্ছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরাজয় নিশ্চিত করা। শিগগিরই এই প্রক্রিয়ায় নিজের ভূমিকা নিয়ে নিতে চাই আমি।’ এ সময় সমর্থক ও স্বেচ্ছাসেবকদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন স্যান্ডার্স। তিনি বলেন, ‘আমেরিকাকে বদলে দেওয়ার দীর্ঘ প্রক্রিয়ায় নেমেছেন তিনি। এই লড়াই চলতেই থাকবে।’

 

 

একদিকে হিলারির পক্ষে প্রচারণা, অন্যদিকে রাজনৈতিক বিপ্লব চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিলেও হিলারির পক্ষে কাজের দিনক্ষণ নিয়ে কিছু বলেননি তিনি। এ নিয়ে তার সমর্থকদের মধ্যে ধোঁয়াশা তৈরী হয়েছে। স্যান্ডার্স সমর্থকদের কেউ কেউ মনে করছেন, স্যান্ডার্সের সুনির্দিষ্ট ঘোষণা পেলে তারা ন্যাশনাল কনভেনশনের সময় থেকেই হিলারির পক্ষে কাজ করতে পারতেন।

 

 

এদিকে, হিলারি ক্লিনটনের প্রচারণা শিবির থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতেও স্যান্ডার্সের সমর্থনের কথা জানানো হয়েছে। বিবৃতিতে হিলারির পক্ষ থেকে স্যান্ডার্সকে তার প্রচারণার জন্য অভিনন্দন জানানো হয়েছে। এ ছাড়াও ট্রাম্পকে পরাজিত করার দৃঢ় অঙ্গীকারকেও সাধুবাদ জানিয়েছেন ক্লিনটন।উল্লেখ্য, স্যান্ডার্স গত এপ্রিলে প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচনের প্রার্থিতার জন্য প্রচারণা শুরু করেন। শুরুতে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনকে হারিয়ে তার মনোনয়ন নিশ্চিতের প্রত্যাশা না থাকলেও তার প্রচারণার ধরন ছিল স্বতন্ত্র।

 

স্যান্ডার্সের প্রতি মানুষের সমর্থন ছিল আশাতীত। ফলে স্যান্ডার্স যখন নিজের সমর্থকদের হিলারির প্রতি সমর্থন রাখার আহ্বান জানাচ্ছেন, তা ট্রাম্পের জন্য বেশ বড় ভয়ের কারণ হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।