রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চিত্রজগতে এখন নিন্দা-ঝড়ের নাম মাহি

20878-boroবিনোদন প্রতিবেদক : মাহিয়া মাহির গোপন বিয়ের খবর ফাঁসে এখন বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে চলচ্চিত্রজগৎ। মাহিকে ঘিরে চলচ্চিত্রপাড়ায় বইছে নিন্দার ঝড়। চলচ্চিত্রের লোকজন বলছেন, নব্বই দশকের শেষ ভাগে চলচ্চিত্রে অশ্লীলতা আসায় এ জগিটকে অনেকেই ভালো চোখে দেখছেন না। এর প্রমাণ সিংহভাগ দর্শক এখন সিনেমাহলবিমুখ।

এ অবস্থায় চিত্রনায়িকাদের মধ্যে অনেকে বিভিন্ন সময় নানা বিতর্কের জন্ম দিয়ে জগিট সম্পর্কে মানুষের মনে নেতিবাচক ধারণা বাড়িয়ে তুলছেন। সম্প্রতি মাহির গোপন বিয়ের কথা ও ছবি ফাঁস হওয়ায় চিত্রজগতে এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কজন সিনিয়র নির্মাতা বলেন, বিয়ে করা অপরাধ নয়, নানা কারণে গোপনেও বিয়ে হতে পারে। একে মন্দও বলা যায় না। কিন্তু বিয়ের কথা গোপন করে আরেকটি বিয়ে করা, অস্বীকার করে মিথ্যা মামলা দায়ের করা— এ বিষয়গুলো চুরি করে বড় গলায় কথা বলার মতো ধৃষ্টতা; যা মাহি করে ফেলেছেন।

বিষয়টি যদিও এই নায়িকার একান্তই ব্যক্তিগত ব্যাপার, তার পরও তিনি যেহেতু চলচ্চিত্র নায়িকা তাই এই জগতের ভাবমূর্তির কথা তার ভাবা উচিত ছিল। মাহির অস্বীকার করা গোপন বিয়ের কাবিন ইতিমধ্যে তার প্রথম স্বামী শাওন আদালতে জমা দিয়েছেন। শাওনের আত্মীয়স্বজন এবং পাড়া-প্রতিবেশী বিয়ের বিষয়ে বিস্তারিত বিবরণ দিচ্ছেন। শাওনের সঙ্গে বিয়ের খবর অস্বীকার করে মামলা করলেও আদালতে বিয়ের কাবিন উপস্থাপনের পর মাহি এখন মুখে কুলুপ এঁটেছেন। শাওনের স্বজনরা বলছেন, পুলিশ দিয়ে মাহি এখন তাদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন।

শাওনের আইনজীবী বেলাল হোসেন জানান, প্রথম বিয়ের খবর গোপন এবং স্বামীকে তালাক না দিয়ে আবার বিয়ে করায় মাহি দণ্ডযোগ্য অপরাধ করেছেন। তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪৯৪ ধারা অনুযায়ী মামলা করা হবে। চলচ্চিত্রকাররা বিষয়টিকে মাহির জন্য অমার্জনীয় অপরাধ হিসেবেই দেখছেন। তারা বলছেন, মাহি সামাজিক অবক্ষয় ঘটানোর মতো কাজ করেছেন। প্রথমে গোপনে বিয়ে, পরে সেই বিয়ের খবর গোপন রেখে আরেকটি বিয়ে করা; প্রথম বিয়ের খবর ফাঁস হলে তা অস্বীকার করে প্রথম স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের; পরে আদালতে বিয়ের কাবিন উপস্থাপনসহ একাধারে মাহির এসব ঘটনায় সাধারণ মানুষ এখন ছি ছি করে বলছে, ‘নায়িকাদের চরিত্র বলে কিছু নেই। তাদের পক্ষে যে কোনো বাজে কাজ করা সম্ভব।’ এ কারণে মাহির দ্বিতীয় স্বামী অপু ও তার পরিবার এখন বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন।

চলচ্চিত্রকাররা বলছেন, মাহি আসলে চলচ্চিত্রকে ভালোবেসে এ জগতে আসেননি। বিষয়টি তার কর্মকাণ্ডের মাধ্যমেই প্রমাণ হচ্ছে। চলচ্চিত্রকে ব্যবহার করে আর্থিকভাবে লাভবান এবং নানা অপকর্ম করাই ছিল তার লক্ষ্য।