রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশের ৪৩ শতাংশ মানুষ তামাক ব্যবহার করে

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে চার কোটি ১৩ লাখ মানুষ তামাক ব্যবহার করে। তামাক ব্যবহারকারীর সংখ্যা মোট জনসংখ্যার শতকরা ৪৩ ভাগ। এ তথ্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের।

photo-1464530983

আগামী ৩১ মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস। এ দিবস উপলক্ষে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রণালয়ের সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম ওই তথ্য পেশ করেন। তিনি বলেন, সারা বিশ্বের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে প্রতিবারের মতো এবারও বাংলাদেশ দিবসটি উদযাপন করছে। বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস উদযাপন একটি মহান উদ্যোগ যার লক্ষ্য হলো তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের ফলে সৃষ্ট রোগসমূহ, আর্থিক ও সামাজিক ক্ষতি সম্পর্কে জনসচেনতার মাধ্যমে বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে রক্ষা করা।

 

সচিব বলেন, গ্লোবাল এডাল্ট ট্যোবাকো সার্ভে ২০০৯ অনুসারে, বাংলাদেশে ৪৩ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ তামাক সেবন করেন। এ হিসেবে তামাক ব্যবহারকারীর সংখ্যা চার কোটি ১৩ লাখ, যার মধ্যে ২৩ শতাংশ (দুই কোটি ১৯ লাখ) ধূমপানের মাধ্যমে তামাক ব্যবহার করেন এবং ২৭ দশমিক ২ শতাংশ (দুই কোটি ৫৯ লাখ) ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহার করেন। ধোঁয়াবিহীন তামাক ব্যবহারের প্রবণতা নারীদের মধ্যে বেশি পরিলক্ষিত হয়। বাংলাদেশের প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠীর ৬৩ শতাশ লোক অর্থাৎ এক কোটি ১৫ লাখ কর্মক্ষেত্রে পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হচ্ছে। ৪৫ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় চার কোটি ৩০ লাখ মানুষ পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হয়।

স্বাস্থ্য সচিব বলেন, দি টোব্যাকো এটলাস অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতিবছর ১৪ দশমিক ৬ শতাংশ পুরুষ ও ৫ দশমিক ৭ শতাংশ মহিলা তামাক ব্যবহারের কারণে মারা যায়। যা অন্যান্য নিম্ন আয়ের দেশের গড় থেকে বেশি। ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্যের ব্যবহার একদিকে যেমন জীবনের জন্য হুমকি স্বরূপ, অপরদিকে জাতীয় অর্থনীতি তথা সমৃদ্ধির প্রধান অন্তরায়।

বিশ্বের অন্য ৭৭টি দেশের মতো বাংলাদেশেও তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন ও বিধি অনুসারে ১৯ মার্চ ২০১৬ তারিখ থেকে সব তামাকজাত দ্রব্যের প্যাকেট ও কৌটার উভয়পাশের ৫০ ভাগ জুড়ে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী মুদ্রণ কার্যকর হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্যসচিব।