শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ১৯ টি ইউনিয়নে ব্যাপক অনিয়মের মধ্য দিয়ে ভোটগ্রহন শেষ

up le -2016নিজস্ব প্রতিবেদকনির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের কর্মকর্তার ব্যালটে সিল, কেন্দ্র দখল, ব্যালট পেপার ছিনতাই, প্রকাশ্যে ভোট প্রদান, কেন্দ্রে কেন্দ্রে ককটেল হামলা, সংঘর্ষ, অগ্নিসংযোগ, বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট সহ ব্যাপক অনিয়মের মধ্য দিয়ে ভোটগ্রহন শেষ হয়েছে।

৫ম ধাপের ভোটগহনের সময় শনিবার সকাল ৮টা থেকে জেলার কসবা ও সদর উপজেলার ১৯টি ইউনিয়ন পরিষদে এই ঘটনাগুলি ঘটে। এদিকে জেলা সদর উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের বিভিন্ন কেন্দ্রে সংঘর্ষে কমপক্ষে অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে বিএনপির সাত প্রার্থী ও আ’লীগের একজন বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছেন।
সকালে সরেজমিনে জেলার বিভিন্ন নির্বাচনী কেন্দ্রগুলো ঘুরে দেখা যায়, সদর উপজেলার সুহিলপুর ইউনিয়নের সীতানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আ’লীগ প্রার্থী সমর্থকরা প্রকাশ্যে সিল মারার চেষ্টা করলে স্বতন্ত্রপ্রার্থীর লোকজন বাধাঁ দেয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষের সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়। ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে নারী-পুরুষসহ অন্তত ২৫ জন আহত হয়। এসময় পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে। ওই ইউনিয়নের আড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জেলা যুবলীগের নেতা ভিপি এনামের নেতৃত্বে ২০ থেকে ২৫জন যুবলীগ নেতা কেন্দ্রটি দখলে নিয়ে সিল মারা শুরু করেন। কিছুক্ষণ পর প্রতিপক্ষের লোকজন বাধা দিলে ওই কেন্দ্রে এক ঘন্টা ভোট গ্রহন বন্ধ থাকে।
সুহিলপুরের জিল্লুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আ.লীগ সমর্থিত মেম্বার প্রার্থী বাবুল মিয়ার চাচাতো ভাই শামিম মিয়ার নেতৃত্বে কয়েকজন যুবক কেন্দ্রের তিন নম্বর বুথ দখল করে সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকে সেলিম মিয়াকে মারধর করে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়ে প্রকাশ্যে সিল মারা শুরু করে। অপর ইউপি সদস্য প্রার্থী ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি ইউছুফ মিয়ার লোকজন বাধা দিলে সংঘর্ষ বাঁধে। এসময় ওই কেন্দ্রে অন্তত ২৫টি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এক ঘন্টা পর আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অর্ধশতাধিক রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এসময় ওই কেন্দ্রে দুই ঘন্টা ভোটগ্রহন বন্ধ থাকে। মজলিশপুর ইউনিয়নের মজলিশপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ডিবি পুলিশের এক কর্মকর্তা প্রকাশ্যে সিল মারে। নাটাই উত্তর ইউনিয়নের বিলকেন্দুয়াই গ্রামে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। এছাড়া সদর উপজেলার রামরাইল ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামে, সাদেকপুর ইউনিয়নের বিরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে, তালশহর (পূর্ব) ইউনিয়নের অষ্টগ্রামে হামলা ও ককটেল বিষ্ফোরনের ঘটনা ঘটে।
এদিকে দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার নাটাই দক্ষিন ইউনিয়নের বিল কেন্দুয়াই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও সিন্দুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ’মি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাইনুদ্দিন এর নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ নেতা ভিপি হাসান ও সদর মডেল থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক(এএসআই) মেহেদী হাসান প্রিজাইডিং অফিসারের কক্ষে প্রবেশ করে ব্যালটে সিল মারেন স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুল হাসান এর পক্ষে। পরে ভোটগ্রহন শেষ হলে ফলাফলের আগে পুনরায় বিলকেন্দুয়াই কেন্দ্রে বিজিবি ও র‌্যাব নিয়ে এসে ফলাফলে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুল হাসান পরাজিত হওয়ায় ম্যাজিস্ট্রেট ২ শতাধীক ব্যালট পরিবর্তন করে ফেলেবলে অভিযোগ করেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাহ আলম। পুনরায় সিন্দুরা সরকারী প্রার্থমিক বিদ্যালয় ও বিলকেন্দুয়াই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট গননা করা হলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর কারচুপি ধরা পড়বে বলেও তিনি দাবি জানান। এছাড়াও তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুল হাসান এর নিকট আত্বিয় বলেও জানান স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহ আলম।
এব্যাপারে সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ’মি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাইনুদ্দিন এর ব্যবহৃত মোবাইল(০১৯২৫৭৭৯৮৭৮) নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।
এদিকে কসবা উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নের চন্ডিদ্বার উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ককটেল বিষ্ফারণ ঘটিয়ে মেম্বার সমর্থিত লোকজন ব্যালট বাক্স লুট করার চেস্টা চালালে পুলিশ গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন। এসময় পরে ১১টা থেকে ১ ঘন্টা ভোট গ্রহণ বন্ধ করে দেয় প্রিজাইডিং কর্মকর্তা তারেক আহাম্মদ। বাদৈর ইউনিয়নের শিকারপুর, বাদৈর ও বিনাউটি ইউনিয়নের ধামসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মেম্বর প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে ব্রাহ্মণবড়িয়া সদর হাসপাতালে ৬২জন ও কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ২৫জন এবং অন্যদের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়।
সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের কেন্দ্র দখল, এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া, ব্যাপক অনিয়ম, পুলিশ ও প্রিজাইডিং কর্মকর্তাদের অসযোগীতার অভিযোগ এনে বিএনপির সাত প্রার্থী ও আ’লীগের একজন বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছেন। এরা হলেন বিএনপির নাটাই উত্তর ইউপির আবুল কাশেম, তালশহর পূর্ব ইউপির নজরুল ইসলাম, সাদেকপুরে মোঃ লিটন, রামরাইলে সাজেদুর রহমান, সুহিলপুরে মোবারক মুন্সী ও রামরাইলে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মশিউর রহমান সেলিম। কসবা উপজেলার বিনাউটি ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী একেএম ফরহাদ, বায়েক ইউনিয়নের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নাজমুল হাসান নির্বাচন বর্জন করেন।
এব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নির্বাচন কর্মকর্তা আলাউদ্দিন আল মামুন জানান, দুজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর নির্বাচন বর্জনের লিখিত অভিযোগ আমি পেয়েছি। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর বিষয়ে এখনো কেউ কোন অভিযোগ করেন নি। এছাড়া কয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর

আজ পবিত্র হজ, আরাফাতের ময়দানে হাজির হচ্ছেন ২০ লাখ হাজি

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে নেপালকে ১ রানে হারালো দক্ষিণ আফ্রিকা

দক্ষিণ গাজায় আটকা পড়েছেন ১০ লাখের বেশি বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়‌কে ১৩ কি‌লো‌মিটার অংশে যানজট-ধীরগ‌তি‌

কামার পল্লীতে ঠনা ঠন শব্দে ব্যস্ত সময় পার করেছেন কারিগররা

বিএনপির টপ টু বটম সবাই দুর্নীতিবাজ, তারেক এর বরপুত্র : কাদের

আবারও খোলামেলা শাড়িতে রুনা খান

সুনেত্রা চাপা অভিমান নিয়ে চলে গেছেন : অঞ্জনা

কোরবানির ঝাঁজ আদা, রসুন ও পেঁয়াজে

বেড়েছে টুপি বিক্রি, তবে ভয়ে আছেন ফুটপাতের দোকানিরা

জমে উঠেছে পশুর হাট, গাবতলীতে নজর কাড়ছে বড় গরু

শিমুল-তানভীর-শিলাস্তির পর বাবুর দায় স্বীকার