শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাঁচ হাজার গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে অফিসে তালা!

 
নিজস্ব প্রতিবেদক : দ্বিগুণ মুনাফা ও জমি দেওয়ার নাম করে গ্রাহকের কাছ থেকে প্রায় কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে একটি সমবায় প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে।সিরাজগঞ্জের কাজীপুরের নাটুয়ারপাড়ায় গড়ে ওঠা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানটির নাম একতা কর্মসংস্থান মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানের দুই কর্ণধার আবুল কালাম আজাদ ও রবিউল আলম কার্যালয় বন্ধ করে পালিয়ে গেছেন। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দুজনের প্রতারণার ফাঁদে পা দিয়ে অসহায়-বিধবা ও নিরীহ প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন।

182031Shirajgonj-map

 

প্রতারণার বিষয়ে মামলা করলে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলে গ্রাহকরা অভিযোগ করেছেন। এলাকায় মানববন্ধনসহ নানা কর্মসূচিও পালন করা হয়েছে। এ অবস্থায় প্রতারক চক্রের কাছ থেকে টাকা উদ্ধার ও তাদের শাস্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তাঁরা।

 

জানা যায়, ২০১১ সালে সমবায় প্রতিষ্ঠানটির জন্য নিবন্ধন নেন আবুল কালাম আজাদ ও রবিউল। পরে একতা কর্মসংস্থান মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড নাম ব্যবহার করে শুরু করেন তাঁদের কার্যক্রম। আকর্ষণীয় বেতন ও কমিশনের প্রলোভন দেখিয়ে প্রথমে এলাকার ৮০ জনকে এজেন্ট নিয়োগ করেন। এজেন্টরা কৌশলে এলাকার বিধবা, অসহায়, দরিদ্রদের দ্বিগুণ লাভের কথা বলে তাঁরা টাকা জমা করতে উদ্বুদ্ধ করেন। মানুষ ২০ হাজার থেকে আট লাখ টাকা পর্যন্ত জমা করতে থাকে। এর পর ২০১৩ সালে নর্থ বেঙ্গল ইউনাইটেড এগ্রো অ্যান্ড ডেইরি লিমিটেড, নর্থ বেঙ্গল ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, নর্থ বেঙ্গল পার্সেল নামে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠে। এসব প্রতিষ্ঠানের শেয়ার বিক্রির নামে মানুষের কাছ থেকে আরো টাকা হাতিয়ে নেয়। এরই একপর্যায়ে নদী ভাঙনকবলিত মানুষের আশ্রয়স্থল গড়ে দেওয়ার জন্য পল্লবী হাউজিং নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়। এক লাখ ২০ হাজার টাকা দিলে বগুড়ার শেরপুরে ২ শতাংশ জমি দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেওয়া হয়। মানুষ জমিজমা, গবাদিপশু, ধান-পাটসহ জিনিসপত্র বিক্রি করে নগদ অর্থ দেয় পল্লবী হাউজিংকে। পরে স্থানীয় লোকজন বগুড়ার শেরপুরে গিয়ে জানতে পারেন, জমিজমার সবকিছুই ভুয়া। এ ছাড়া একই জমি একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছে। একপর্যায়ে গ্রাহকরা টাকার ফেরতের জন্য চাপ দিলে প্রতিষ্ঠানের কার্যালয় বন্ধ করে দেওয়া হয়। উল্টো প্রতিষ্ঠানে লুটপাট করা হয়েছে মর্মে মিথ্যা মামলা করা হয়।

এ ব্যাপারে নাটুয়ারপাড়া গ্রামের বৃদ্ধ জামাত আলী বলেন, ‘আমি ছয় লাখ টাকা একতা কোম্পানি জমা দিয়েছিলাম। ৯ এপ্রিল টাকা ফেরত দেওয়ার কথা ছিল। এর আগে ৬ তারিখে সবাই পালিয়েছে।’

আরেক গ্রাহক আবুল কালাম বলেন, ‘আমি টাকা রাখতে অস্বীকার করেছিলাম। বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে আমার কাছ থেকে এক লাখ আট হাজার টাকা জমা নেওয়া হয়। কিন্তু কিছুদিন পর যখন তাদের প্রতারণা বুঝতে পারি, তখন টাকা ফেরত আনতে গেলে দিব-দিচ্ছি বলে সবকিছু তালা দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে আমি আদালতে মামলা দায়ের করি। মামলার পর থেকে আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে।’

একই গ্রামের শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘ছেলের লেখাপড়া খরচের রাখা ৭৫ হাজার টাকা এবং ছোট ভাইয়ের এক লাখ ২৫ হাজার টাকা রেখেছিলাম। সব টাকা নিয়ে কোম্পানি পালিয়ে গেছে। নানা চিন্তায় আমার মা মারা গেছে।’

কোহিনূর বেগম বলেন, ‘বহু কষ্টে জোগাড় করা এক লাখ ২৫ হাজার টাকা রেখেছিলাম। সময় শেষে টাকার জন্য পা পর্যন্ত ধরেছি। কিন্তু দেয়নি। পরে পালিয়ে গেছে।’ সানোয়ারা খাতুন জানান, তাঁর দুই লাখ ৭০ হাজার নিয়ে প্রতারকরা পালিয়ে গেছে।

প্রতারণার শিকার আবদুল মজিদ বলেন, ‘আমি আট লাখ টাকা জমা দিয়েছি। এখন সবাই পালিয়ে গেছে।’ তাঁর মতো একই গ্রামের বকুল তিন লাখ টাকা, আসাদুল এক লাখ ৬৯ হাজার টাকা, বদিউজ্জামান এক লাখ ২০ হাজার টাকা, হেলাল ৬০ হাজার, কমেলা দেড় লাখ টাকা, জহুরুল ২১ হাজার টাকা রেখেছিলেন।

নাটুয়ার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক ইউপি সদস্য মো. নুরুল ইসলাম বলেন, ‘আমার ভাই ছয় লাখ টাকা ও বোন আনজিলা খাতুন দুই লাখ জমা রেখেছিল। এখন কোম্পানি কোনো হদিস নেই।’ তিনি বলেন, কয়েকটি ইউনিয়নের প্রায় পাঁচ হাজার মানুষের কাছে অর্ধশত কোটি টাকা নিয়ে কোম্পানিটি উধাও হয়েছে। জনগণের টাকা দিয়ে তারা বাড়ি-গাড়ি কিনেছে। কোম্পানির কর্মচারীদের খড়ের ঘর ছিল। এখন প্রায় সবাই পাকা বাড়ি করেছে। শাহজাহান নামের এক কর্মী এ টাকা দিয়ে হজ করেছে। প্রতারক সেলিম গ্রাহকের দিয়ে শ্বশুরবাড়ি পাকা করে দিয়েছে। তিনি বলেন, নিজেদের প্রতিষ্ঠান নিজেরা তালা দিয়ে অসহায় গরিবদের নামে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে।

ইউপি সদস্য সহিদ উদ্দিন জানান, রবিউল ও আবুল কালাম আজাদ দুজন ভদ্রবেশী প্রতারক। প্রথমে ৭০ জন কর্মী নিয়োগ করে। বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে টাকা জমা নেয়। একপর্যায়ে সবাই পালিয়ে যায়। টাকা উদ্ধারে সরকারের সহযোগিতা কামনা করে তিনি বলেন, দরিদ্র এসব মানুষ এখন পথের ফকির হয়ে গেছে। শুধু নাটুয়াপাড়া থেকেই ২০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

স্থানীয় যুবকদের বিরুদ্ধে দায়ের মামলার প্রধান সাক্ষী বাজার কমিটির সেক্রেটারি কোব্বদ মণ্ডল ও তাঁর ভাই ইউপি সদস্য নবিস জানান, কোম্পানির লোকজন টাকা নিয়ে পালিয়ে গেছে। তাই স্থানীয়রা প্রতিষ্ঠানগুলোতে এসে টাকার চাপ দিলে এগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কোনো লুটপাট করা হয়নি।

কাজীপুর উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা শাহীনুজ্জামান বলেন, সমবায় নিবন্ধন নিয়ে একতা মাল্টিপারপাস কোনো টাকা আত্মসাৎ করেনি। যা কিছু করেছে পল্লবী হাউজিং নামে করেছে।

কাজীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সমীর কুমার কুণ্ড জানান, দুই পক্ষের দুটি মামলারই তদন্ত চলছে। কাজীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইফুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি আমার অবগত নেই।’

এ বিষয়ে প্রতিষ্ঠান দুই কর্ণধার রবিউল ইসলাম সেলিম ও আবুল কালামের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাঁদের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।