শনিবার, ১৫ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সহিংসতায় নিহতের সংখ্যা বেড়েছে

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে সিল মারা কমলেও সহিংসতায় নিহতের সংখ্যা বেড়েছে। আজ সন্ধ্যায় ভোটগ্রহণ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পঞ্চম ধাপে ৭১৭টি ইউনিয়ন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ পর্যায়েও নির্বাচনে কিছু জায়গায় অনিয়মের ঘটনা ঘটেছে। যেখানেই অনিয়ম হয়েছে, সেখানে ভোট ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। নির্বাচনে কিছু জায়গায় সংঘর্ষ ও হতাহতের খবর পাওয়া গেছে। এতে কয়েকজনের প্রাণহানি হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও আজ ঠাকুরগাওয়ের সদর উপজেলার বালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দায়িত্বপালনের জন্য মোটর সাইকেলযোগে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন পোলিং অফিসারের মৃত্যু হয়েছে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচন কমিশন সার্বক্ষনিক মনিটরিং করেছে এ নির্বাচন। বিভিন্ন মাধ্যম হতে প্রাপ্ত রিপোর্টের ভিত্তিতে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

1427894390

 

নির্বাচন কমিশনের তাৎক্ষনিক নির্দেশনা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সক্রিয় অবস্থানের কারণে একটিমাত্র ভোটকেন্দ্র ছাড়া কোথাও ভোটগ্রহণের আগের রাতে কেন্দ্রে সীলমারার ঘটনা ঘটেনি। ওই কেন্দ্রের দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সিইসি দাবি করেন, ভোটের দিন ভোটকেন্দ্র দখল বা জোর করে সীল মারার ঘটনাও অনেক কম হয়েছে। তবে ভোটকেন্দ্র বা এর আশেপাশে প্রতিদ্ধন্ধী প্রার্থীদের মাঝে গোলযোগের ঘটনা ঘটেছে। এতে কোথাও কোথাও ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জানমালের নিরাপত্তা রক্ষায় ও আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে গুলি বর্ষণ করতে হয়েছে।

 

 
সিইসিকে পদত্যাগে বিএনপির আহ্ববানের বিষয়ে তিনি বলেন, উনারা রাজনৈতিক দল। উনাদের বক্তব্যের ভিত্তিতে আমার কিছু বলার নেই। তবে সিল মারার ব্যাপারে উন্নতি হয়েছে, আহত-নিহতের সংখ্যা বোধহয় বেড়েছে। সিইসি বলেন, মারা গেছেন যারা তাদের হিসাব আপনারা (সাংবাদিকরা) রাখছেন। আমাদের কাছেও হিসাব আছে। সারাদেশে সহিংসতার আবহ বিদ্যমান। জমিজমা নিয়েও সহিংসতা করছে মানুষ। নির্বাচন নিয়েও হচ্ছে। আমি আশ্চর্য হচ্ছি- কেন এমন করেন। প্রত্যেক পর্যায়ে কোনো অভিযোগ থাকলে ট্রাইব্যুনালে যেতে পারেন। হাইকোর্টে যেতে পারেন। কোনো জায়গায় কারো মাথায় লাঠি মারার কোনো দরকার নেই।

 
পঞ্চম ধাপে নির্বাচন আরো ভালো হবে বলেছিলেন। কিন্তু ভালো হলো না কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ বলেন, আগে বলেছিলাম- এটা আমাদের আশা। পুলিশ থেকে শুরু করে র‌্যাব, আনসার, একটা কেন্দ্রে আটটা করে অস্ত্র। ২২ জনের মতো ফোর্স। এতো ঘন পরিবেশে সবকিছু আমরা করেছি। সব সময় টেলিফোন করছি। সেন্ট্রাল থেকে সেল করা হয়েছে। মুহুর্তে মুহুর্তে সংবাদ নেয়া হচ্ছে। এখন সহিংসতা যদি ঘটে, মানুষ যদি মনে করেন অন্যের মাথায় বাড়ি মেরে জয়ী হবেন, এই মানসিকতা কন্ট্রোল করা দুরূহ। তিনি বলেন, আমরা কঠোর থেকে কঠোর ব্যবস্থা নিচ্ছি। মনমানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে। আজকাল জানের কোনো দাম নেই। এসব ক্ষেত্রে সন্ত্রাসীদের ধরা ও অস্ত্র উদ্ধার করার কথা বারবার বলি। এ দুটি ভালো করতে পারলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসবে। তবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কিন্তু অনেক অস্ত্র উদ্ধার করছে। ওটা নরমাল নিউজ। ওটা ওভাবে আসে না। তারা নিজের জানের তোয়াক্কা না করে দায়িত্ব পালন করছে।

 

 
তিনি বলেন, প্রত্যেক ধাপের নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে আসছে। ভোটারগন যাতে নির্ভয়ে ভোট প্রদান করতে পারেন, সেজন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, নির্বাচন কমিশন ভোটকেন্দ্রসহ নির্বাচন প্রক্রিয়ার কোথাও কোন অনিয়ম সহ্য করবে না। আপনাদের মাধ্যমে জানিয়ে রাখছি ভোট কেন্দ্রে অনিয়ম বা জোর করে ভোট দেয়ার চেষ্টা করে কোন লাভ হবে না। যে কোন ভোটসেন্টার বিষয়ে অনিয়মের রিপোর্ট পেলে সাথে সাথে সে সেন্টারের ভোট গ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হবে। একই সাথে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। সিইসি জানান, পঞ্চম ধাপের নির্বাচনে ৬৪৮৪ টি ভোট সেন্টারের মধ্যে পরিস্থিতি প্রিজাইডিং অফিসারের নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত হওয়ার কারণে ৫৩টি ভোট কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ বন্ধ করা হয়েছে। রিপোর্ট পেলে আরো ভোট সেন্টার বন্ধ করে দেয়া হবে। এছাড়া ভোট গ্রহণ চলাকালে নির্বাচনে অনিয়ম করার কারণে একজন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারকে আটক করা হয়েছে। সারাদেশে নির্বাচনপুর্ব অনিয়ম ও আচরণবিধি ভঙ্গের অপরাধে ১৪০ জনকে ২,৬১,২০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলেও জানান সিইসি।