শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘আজ আমার সবচেয়ে আনন্দের দিন’

news-image

ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি : সাফ শিরোপাজয়ী নারী ফুটবলার নিলুফা ইয়াসমিন নিলা এখন নিজ জেলা কুষ্টিয়াতে। নিলা বাড়ি ফিরতেই পেলেন ফুলেল ভালোবাসায় জাঁকজমক সংবর্ধনা।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর সোমবার নেপালের কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ের পর এই প্রথম কুষ্টিয়ায় আসেন নিলা। তাই নানা আয়োজনে কুষ্টিয়ায় দেশের এই কৃতি ফুটবলারকে বরণ করে সর্বস্তরের মানুষ।

আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে কুমারখালী উপজেলার মীর মোশাররফ সেতু থেকে জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে ফুলেল সংবর্ধনা দিয়ে বরণ করা হয় তাকে। এরপর জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে জেলা প্রশাসন ও ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে সংবর্ধনা দেওয়া হয় এই কৃতী ফুটবলারকে।

সংর্বধনা শেষে জেলা প্রশাসনের গাড়িতে কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে তার নিজ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হয় সাফ শিরোপা জয়ী নারী এই ফুটবলারকে।

নিলুফা ইয়াসমিন নিলা বলেন, ‘আমি এই কুষ্টিয়ার মেয়ে। আমার আজকে সবচেয়ে আনন্দের দিন। আমার জন্য এত মানুষ অপেক্ষা করছে। আমি গর্বিত। দেশের সবাই আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে। আরও ভালো কিছু করতে সবার সাপোর্ট চাই। আমি সামনে আরও এগিয়ে যেতে চাই। বিশ্বকাপ আমরা জয় করতে চাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘যখন আমি প্রথম ফুটবল খেলা শুরু করেছিলাম তখন এলাকার অনেকে বাধা দিয়েছিল। আমাদের সমাজের পুরুষের চেয়ে মেয়েরা একটু পিছিয়ে থাকে। পরিবর্তন শুরু হয়েছে। সামনে আমাদের আরও ভালো করতে হবে। হাফ-প্যান্ট পরে মেয়েরা ফুটবল খেলছে বলে গ্রামের মানুষেরা কটূক্তি করেছে। এতেও আমরা থেমে থাকিনি। স্কুল পর্যায়ে খেলার সময় স্যারেরা অনেক সাপোর্ট করেছেন। এখন সবাই উৎসাহ দিচ্ছে। আমরা চাই গ্রামের নারী ফুটবলাররা যেন গ্রামে খেলার সুযোগ পায়।’

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সাইদুল ইসলাম, জেলা পুলিশ সুপার খাইরুল আলম, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অনুপ কুমার নন্দী, অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মোসাদ্দেক আলী মনি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদাত উল আনাম পলাশ, নির্বাহী সদস্য এসএম কাদেরী সবু, মিঠু, আফরোজা আক্তার ডিউসহ কুষ্টিয়ার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

প্রসঙ্গত, কুষ্টিয়াবাসীর মুখ উজ্জল করেছেন ক্রীড়াঙ্গনে সাফল্য দেখানো নারী খেলোয়াড় নিলা। দরিদ্র পরিবারে বেড়ে ওঠা এবং সামাজিক কুসংস্কার-প্রতিবন্ধকতা পেছনে ফেলে লেখাপড়ার পাশাপাশি সফল নারী খেলোয়াড় হিসেবে তিনি এখন দেশব্যাপী পরিচিতি। উদ্যমী ও সাহসী এই নারী ফুটবলারের সাফল্যে আনন্দে ভাসছে তার পরিবার ও এলাকাবাসী।