শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মুক্তিপণের জন্যে কিডনি কেটে নেওয়ার হুমকি দেয় প্রতারকরা!

CIDব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগরের শফিকুল ইসলাম। প্রায় ৬ লাখ টাকা খরচ করে ২০১১ সালে কাজ করতে যান দুবাইয়ে। সেখানে ভালোই চলছিল তার। ২০১৩ সালের শেষের দিকে সেখানে কর্মরত আরেক বাংলাদেশি মনিরের সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে। এক পর্যায়ে মনির জানান, দুবাইয়ের চেয়ে ইরানে পারিশ্রমিক আরো বেশি। মাসে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা পাওয়া যাবে। 



মনিরের কথায় মন গলে যায় শফিকুলের। শফিকুলসহ বাংলাদেশ থেকে যাওয়া আরো প্রায় ৩০ জন ইরানে যাওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নেন। তারা মনিরের কথায় ইরানে যাওয়ার পর কাজের বদলে তাদের ভাগ্যে জোটে নির্যাতন। 



দালাল ও প্রতারকদের একটি সংঘবদ্ধ চক্র ইরানের জঙ্গলের মধ্যে এক জায়গায় নিয়ে ওই প্রবাসী শ্রমিকদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতন বন্ধে শফিকুলের কাছে দাবি করা হয় ৮ লাখ টাকা। অন্য শ্রমিকদের কাছেও দাবি করা হয় বিপুল অংকের অর্থ। বাড়ি থেকে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে কিডনি কেটে নিতে চায় প্রতারকরা।  এ ভয়ে ২ লাখ টাকার মতো পাঠায় শফিকুলের পরিবার। 



এভাবে প্রায় মাসখানেক নির্যাতন করার পর প্রতারকরা ওই শ্রমিকদের কাজে লাগায় কোনো বেতন ছাড়াই। পরে কৌশলে ইরানে বাংলাদেশের দূতাবাসের সঙ্গে যোগাযোগ করেন শফিকুল। পরে দূতাবাস বাংলাদেশে যোগাযোগ করে। অবশেষে দেশের সিআইডি পুলিশের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার শফিকুল দেশে ফেরে। 

 

শুধু শফিকুলকেই নয়, ভালো চাকরির কথা বলে ইরানে নিয়ে গিয়ে ব্যাপক নির্যাতন চালানো হয়েছে, এমন ১২ জনকে দেশে ফিরিয়ে এনেছে সিআইডি। ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন আরো অর্ধশতাধিক প্রবাসী শ্রমিক। 

 

বৃহস্পতিবার বিকেলে সিআইডি’র কনফারেন্স রুমে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে গণমাধ্যমকে বিষয়টি জানায় সিআইডি। 

 

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিআইডি’র ডিআইজি সাইফুল ইসলাম, অতিরিক্ত ডিআইজি শাহ আলম, বিশেষ পুলিশ সুপার আশরাফুল ইসলাম, মতিউর রহমান প্রমুখ। 

 

নির্যাতনের বর্ণনা দিয়ে শফিকুল জানান, ইরানে নিয়ে গিয়ে তারা জঙ্গলের মধ্যে  আটকে রাখে। তাদের দাবি অনুযায়ী মুক্তিপণের টাকা না দিলে বা দিতে অস্বীকার করলে চরম নির্যাতন চালানো হয়। মাথা নিচে করে ওপরে দিয়ে লাঠি দিয়ে একাধারে পেটানো হয়। নির্যাতনের চিৎকার শোনানো হয় দেশে গ্রামের বাড়ির আত্মীয়-স্বজনদের। 

 

শফিকুলের মতোই নির্যাতনের বর্ননা দেন খুলনার শফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমার পা এখনও ব্যথা করে। তারা যেভাবে আমার ওপর নির্যাতন চালিয়েছে, আমি কোনোদিন ভুলতে পারবো না। বাড়তি টাকার আশায় আমরা ইরান যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। কিন্তু সেখানে পা বাড়ানো যে আমাদের ভুল ছিল সেটি আমরা পরে বুঝেছি। 

 

তাদের মতোই নির্যাতনের শিকার আরো যে ১০ জন দেশে ফিরে এসেছেন, তারা হলেন- ঢাকার নবাবগঞ্জের ফরহাদ হোসেন, ঢাকার দোহারের মেহেদি হাসান, নোয়াখালীর মন্তাজ মিয়া, ঢাকার কেরাণীগঞ্জের মাহফুজুর রহমান, ফেনীর সজিব চন্দ্র নাথ, হবিগঞ্জের ফিরোজ মিয়া, নীলফামারীর আমিনুল হক, ফরিদপুরের জুয়েল মিয়া, কুমিল্লার মহসিন মিয়া এবং কুমিল্লার লাকসামের জাকির হোসেন। 

 

তারা সবাই অধিক লাভের আশায় দুবাই ও ওমান থেকে ইরানে গিয়েছিলেন। কিন্তু এক শ্রেণীর দালাল ও প্রতারকদের খপ্পরে পড়ে তারা সর্বশান্ত হয়েছেন, পাশাপাশি সইতে হয়েছে চরম নির্যাতন। 

 

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডি’র ডিআইজি সাইফুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, মধ্যপ্রাচ্যের সৌদি আরব, দুবাই ও ওমানে কয়েকটি বাংলাদেশি প্রতারক গ্রুপ রয়েছে। এরা সেখানে বসবাসরত এক শ্রেণীর বাংলাদেশি শ্রমিকদের টার্গেট করে ইরান, গ্রিস এবং তুরস্ক নিয়ে যাওয়ার লোভ দেখায়। তারা বলেন, সেখানে মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় হবে। থাকা, খাওয়া কোম্পানির। এমন লোভনীয় কথায়  শ্রমিকরা বিশ্বাস করে সেখানে যান। কিন্তু যাওয়ার পথে আরব সাগরের মধ্যে তাদের জাহাজ থেকে নামিয়ে স্পিডবোডে উঠানো হয়। 



এরপর ইরানে বন্দর আব্বাস পার হয়ে নিয়ে যাওয়া হয় জঙ্গলের মধ্যে। এরপর সেখানে তাদেরকে আটকে রেখে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত মুক্তিপণ দাবি করা হয়। যারা মুক্তিপণের টাকা দিতে পারেন তারা টাকা দিয়ে দেশে ফিরে আসেন। আর যারা টাকা দিতে পারেন না তাদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালায় প্রতারকরা। এমনকি শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ কেটে নেওয়ার ভয় দেখানোও হয়। 



এমনও ঘটনা ঘটেছে যে, প্রতারিত ২৪ জন শ্রমিককে ৪১ দিন শুধুমাত্র একটি করে রুটি খাইয়ে রাখা হয়েছে। 

 

ডিআইজি সাইফুল আলম বলেন, ইরানে বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে বাংলাদেশে এ বিষয়ে খবর দেওয়ার পর সিআইডি বিষয়টি অনুসন্ধান শুরু করে। এক পর্যায়ে আমরা বিষয়টি নিয়ে ইরানি দূতাবাসে কথা বলি। পরে ইরানি পুলিশের সহায়তায় আমরা কিছু শ্রমিককে উদ্ধার করে নিয়ে এসেছি। আরো কিছু প্রতারিত শ্রমিক দেশে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন। 

 

তিনি বলেন, এ চক্রটি মুক্তিপণের টাকা সাধারণত বাংলাদেশে থাকা দালাল অথবা বিকাশ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সে দেশে পাঠাতে বলে।  

 তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা গভীরভাবে তদন্ত শুরু করেছি। সিআইডি’র একটি টিম ইতোমধ্যে দুবাইয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। এছাড়াও পর্যায়ক্রমে তুরস্ক, গ্রিস এবং ইরানেও যাবেন তদন্ত কর্মকর্তারা। তারা সেখানে গিয়ে বাংলাদেশি শ্রমিকদের এ ধরনের প্রতারনামূলক কথায় রাজি না হওয়ার জন্য বলবেন। পাশাপাশি যারা এ ধরনের প্রতারনার সঙ্গে জড়িত তাদেরকে আটক করতেও সে দেশের পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান চালানো হবে। 

 

সাইফুল আলম জানান, ইতোমধ্যে ইরানে এ ধরনের প্রতারকদের মূল হোতা নান্নু ও তাহাজ উদ্দিনকে ইরানি পুলিশ আটক করেছে। এছাড়া কুমিল্লা থেকে ৩ জন বিকাশ এজেন্টকে আটক করেছে সিআইডি পুলিশ। 

 

সিআইডি জানায়, ইরানে এ ধরনের প্রতারণার শিকার অর্ধশতাধিক বাংলাদেশি শ্রমিক ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন। এ ধরনের ঘটনায় এ পর্যন্ত ১২টি মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবারের ফেরত আসা ১২ জনও মামলা দায়ের করবেন। 

 

banglanews24.com

এ জাতীয় আরও খবর

ডাচদের ‘প্রতিশোধের’ হুমকি, আর্জেন্টিনার ভাবনায় ইনজুরি

ক্রোয়েশিয়া বাধা টপকে সেমিতে যেতে পারবে ব্রাজিল?

হাজারীবাগে দুই শিশুসন্তানকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবিতে আনা হয়েছে ফখরুল-আব্বাসকে : হারুন

৫ নারীর হাতে বেগম রোকেয়া পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

সবজির দাম কমেছে, এখনো অস্বস্তি চাল-চিনি-তেলে

সতর্ক অবস্থানে পুলিশ : নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ে তালা, যান চলাচল বন্ধ

বিএনপিকে মোকাবিলা করবে ১৪ দল: আমু

এপিডিইউর ভাইস চেয়ারম্যান হলেন মির্জা ফখরুল

সাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’

শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকারের নিশ্চয়তা চায় জাতিসংঘ

বিএনপির গণসমাবেশ: বাঙলা কলেজ মাঠ পরিদর্শনে ডিএমপি