মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবীনগরে ‘চিরকুট’ চাঁদাবাজি চাঁদা না পেয়ে অগ্নিসংযোগ পুলিশের ভূমিকায় ক্ষোভ

Crime-150x150ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় ‘চিরকুট’ পাঠিয়ে চাঁদা দাবি এবং টাকা না পেলে বাড়িতে আগুন দেওয়া চলছেই। সর্বশেষ ‘চিরকুট’ পাঠানোর পর টাকা না পেয়ে গত মঙ্গলবার গভীর রাতে পশ্চিমপাড়ার ব্যবসায়ী আবু তাহেরের বাড়িতে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। দুই মাস ধরে চলা এ অপতৎপরতা বন্ধে পুলিশের দৃশ্যমান সাফল্য না থাকায় স্থানীয় জনমনে অসন্তোষ বিরাজ করছে।

মঙ্গলবারই রাত তিনটার দিকে সদরের আদালত সড়কে উপজেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সুজিত দেব এবং উপজেলা গণগ্রন্থাগারের গ্রন্থাগারিক ও নাট্যাভিনেতা সুভাষ দত্তের বাড়ির দুটি ঘর রহস্যজনকভাবে আগুন লেগে সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। শত শত মানুষ প্রায় দুই ঘণ্টা প্রাণান্ত চেষ্টা চালিয়ে ভোররাতে আগুন নেভান।

নবীনগর বড় বাজারের হার্ডওয়্যার ব্যবসায়ী আবু তাহের অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রায় দুই মাস আগে আমার বাসায় চিরকুট পাঠিয়ে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। কিন্তু টাকা দিইনি বলে বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হবে বলে মোবাইল ফোনে একাধিকবার আমাকে হুমকি দেওয়া হয়। দুর্বৃত্তরা আগুন দেওয়ার কথা স্বীকার করে বুধবার ভোরেও ফোন করে বাড়িতে আবারও আগুন দেওয়া হবে বলে হুমকি দেয়।’

আবু তাহের জানান, দুর্বৃত্তরা ফোনে তাঁকে বলেছে, সে রাতে আইনজীবী সুজিত দেবের বাড়িতেও তারাই আগুন দিয়েছে।

সুজিত দেব বলেন, ‘আমার সঙ্গে কারও শত্রুতা নেই। তাহলে আমার এমন সর্বনাশ কারা করবে, বুঝতে পারছি না।’

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি অফিসপাড়ার বাসিন্দা যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বিপ্লব দের নামে চিরকুট পাঠিয়ে চাঁদা না পেয়ে তাঁর বাড়িতে আগুন দেয় দুর্বৃত্তরা। ওই বাড়ির গৃহবধূ পপি রানী দেব বলেন, ‘চিরকুট পাঠানোর খবর পেয়ে বাড়িতে এসে ওসি সাহেব দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। তিনি কথা না রাখলেও দুর্বৃত্তরা ঠিকই তাদের কথা অনুযায়ী বাড়িতে আগুন দিয়েছে।’

একই রাতে আগুন দেওয়া হয় শহরের বণিকপাড়ার বাসিন্দা প্রদীপ সেনগুপ্তর বাড়িতে। তিনি বলেন, ‘চিরকুট পাঠিয়ে টাকা না পেয়ে আমার বাড়িতে দুর্বৃত্তরা এক মাসের ব্যবধানে দুবার আগুন দিয়েছে। দুর্বৃত্তদের ফোন নম্বর বারবার পুলিশকে দিয়েছি।’

শহরের বাসিন্দা উদীচীর সাবেক সভাপতি চিকিৎসক আহমেদ হোসেন বলেন, ‘শহরের মানুষের মাঝে এখন আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। প্রশাসনের কাছে সবিনয়ে দ্রুত এর প্রতিকার চাই।’

সহকারী পুলিশ সুপার (নবীনগর সার্কেল) সফিউর রহমান বলেন, ‘এসব ঘটনা প্রতিরোধে পুলিশ ইতিমধ্যে বিভিন্ন ব্যবস্থা নিয়েছে। কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। চক্রটিকে মোটামুটি শনাক্তও করা গেছে। আশা করছি, শিগগিরই চক্রটির প্রধান ধরা পড়বে।’

জেলা প্রশাসক মোশারফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, নবীনগরের ইউএনও ও ওসিকে এ বিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।