সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিধি লঙ্ঘনে মন্ত্রী-এমপিসহ ২০ জন, ইসির শোকজ

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনী তপশিল অনুযায়ী বৃহস্পতিবার ছিল মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমার শেষ দিন। ১৮ ডিসেম্বর প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে। ওইদিন থেকে ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারবেন তারা। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সম্ভাব্য প্রার্থীরা তা মানছেন না। প্রতীক বরাদ্দের আগেই শুরু করেছেন প্রচার-প্রচারণা। মনোনয়নপত্র জমা দিতে গিয়েই করছেন শোডাউন ও সমাবেশ। অনেকেই রীতিমতো পোস্টার-বিলবোর্ড লাগিয়ে প্রতীকের পক্ষে ভোট চাচ্ছেন। এলাকায় এলাকায় চলছে জনসংযোগ। পথসভায় মাইক লাগিয়ে ভোট চাচ্ছেন। গতকাল

এমন পরিস্থিতিতে আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ২০জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তাদের মধ্য মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী আছেন চারজন। এমনকি খোদ আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের বিরুদ্ধেও একাধিকবার আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। তবে তাঁকে শোকজ করা হয়নি। অন্যদের অধিকাংশই সরকারি দলের বর্তমান সংসদ সদস্য।

এতজনকে শোকজের পরও নির্বাচনী আচরণবিধির তোয়াক্কা করছেন না প্রার্থীরা। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন আচরণবিধি লঙ্ঘনের হিড়িক পড়ে যায়। কোনো কোনো এলাকায় এই শোভাযাত্রার কারণে সড়কে তৈরি হয় যানজট। নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের বিষয়ে প্রশ্ন করায় বর্তমান এক সংসদ সদস্যের অনুসারীরা সাংবাদিকদের ওপর হামলাও করেছে।

নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তপশিলের পর থেকে রাজনৈতিক দল ও সম্ভাব্য প্রার্থীরা আচরণবিধির আওতায়। আগের দুই নির্বাচনের মতোই এবার সবকিছু ইসির নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে– এমন আশঙ্কা ব্যক্ত করে তারা বলছেন, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ইসির পক্ষে নিয়ন্ত্রণে রাখা অত্যন্ত কঠিন হয়ে পড়বে।

আচরণবিধি লঙ্ঘনের দায়ে আওয়ামী লীগের বর্তমান মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ প্রায় ১৯ প্রার্থীকে শোকজ করেছে ইসির নির্বাচন অনুসন্ধানী কমিটি।এই তালিকায় আছেননারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী গাজীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল, ঢাকা-১৯ আসনের ত্রাণ ও দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, নাটোর-৩ আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী (আইসিটি) জুনাইদ আহমেদ পলক, মাগুরা-১ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ঢাকা-৬ আসনের এমপি কাজী ফিরোজ রশীদ, সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও নরসিংদী-৫ (রায়পুরা) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু, সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী ওরফে নিক্সন, চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনের উপনির্বাচনে নৌকার প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর-সদর আংশিক) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন, সুনামগঞ্জ-৪ আসনে জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, ময়মনসিংহ-১১ আসনে আওয়ামী লীগের বর্তমান সংসদ সদস্য কাজিম উদ্দিন আহম্মেদ ধনু, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, মুন্সীগঞ্জ-৩ (সদর-গজারিয়া) আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী মৃণাল কান্তি দাস, লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনে ডা. আনোয়ার হোসেন খান, নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল, রংপুর-৩ আসনে তুষার কান্তি মণ্ডলসহ ১৮ জনকে শোকজ করেছে ইসি। তাদের সবাইকে নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকার নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির কাছে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এরমধ্যে আচরণবিধি ভেঙে অস্ত্রধারীসহ শোডাউন দিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

গত বুধবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময় বহু কর্মী-সমর্থক সঙ্গে নিয়ে গেছেন ডা. এনামুর রহমান। ভিডিওতে দেখা গেছে, এনামুর রহমান হাজার খানেক কর্মী-সমর্থক সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন এবং ভোটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত দিনের তিন সপ্তাহ সময়ের আগে নির্বাচনী প্রচার করেছেন, যা নির্বাচনী আচরণবিধির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

গাজীপুর-২ আসনে যুবও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল বিশাল শোডাউন নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। মাগুরা-১ আসনের সাকিব আল হাসান গত বুধবার ঢাকা থেকে মাগুরায় যাওয়ার সময় কামারখালী এলাকা থেকে গাড়িবহর নিয়ে মাগুরা শহরে যান। নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও যোগ দেনতিনি। এতে সাধারণ মানুষের চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়।

ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সনের বিরুদ্ধে অভিযোগ, বুধবার জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে ফরিদপুর-৪ আসনের প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করার সময় আড়াই শতাধিক মাইক্রোবাস ও দুই শতাধিক মোটরসাইকেলের বহর নিয়ে ফরিদপুর শহরের উদ্দেশে যাত্রা করেন। একটি ছাদখোলা গাড়িতে দাঁড়িয়ে শুভেচ্ছা জানান।

আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে প্রশ্ন করায় সাংবাদিকের ওপর চড়াও হওয়ার অভিযোগ এসেছে চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে। এ সময় উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে মোস্তাফিজ সমর্থকদের কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।

তবুও আচরণবিধির তোয়াক্কা করছেন না কেউ

মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিনে বৃহস্পতিবারও প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীসহ অন্যান্য কয়েকটি দলের প্রার্থীরাও শোভাযাত্রাসহ মনোনয়নপত্র জমা দেন। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের তেমন কোনো শোভাযাত্রা দেখা যায়নি। এক্ষেত্রে এগিয়ে ছিলেন বর্তমান সংসদ সদস্যরা। তাদের অধিকাংশই আচরণবিধির তোয়াক্কা করেননি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা ও আখাউড়া) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হওয়ার পর গত বুধবার নিজ নির্বাচনী এলাকায় আসেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এলাকায় পৌঁছানোর পর থেকে বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া পর্যন্ত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আচরণবিধি একাধিকবার লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে। দুপুরে আইনমন্ত্রী নিজ উপজেলা কসবায় মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার আগে আচরণবিধি ভেঙে হাজারো মানুষ সমাগম করে স্থানীয় পৌর মুক্তমঞ্চে জনসমাবেশ করেন। ওই জনসমাবেশকে কেন্দ্র করে কসবা উপজেলা সদরের প্রধান সড়কের একাংশ বন্ধ করে প্যান্ডেল নির্মাণ করা হয়। এ সময় দুই লেনের সড়কটির একদিকে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এদিকে, আখাউড়ায় আইনমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আখাউড়া উপজেলা সদরের স্কুল-কলেজের ৪৫০ শিক্ষার্থীকে হলুদ শাড়ি পরিয়ে সড়ক বাজার এলাকায় দাঁড় করিয়ে রাখা হয়।

এদিকে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হকের সফরসূচিতে উল্লেখ রয়েছে, নির্বাচনী তপশিল ঘোষণা হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকায় অবস্থানকালীন সরকারি কোনো সুবিধা গ্রহণ করবেন না। কিন্তু দু’দিন নির্বাচনী এলাকায় অবস্থানকালে তাঁর সঙ্গে আগের মতোই পুলিশ প্রটোকল ছিল।

গাজীপুর-১ আসনে প্রার্থী মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক এমপি মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পতাকাবাহী গাড়িতে চেপে কালিয়াকৈর উপজেলা চত্বরে দুপুর ১২টার দিকে এসে নামেন। তখন শত শত দলীয় নেতাকর্মী মন্ত্রীকে ঘিরে স্লোগান দেন।

নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে গাড়িবহরে মহড়া দিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তম কুমার দাশের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মাদারীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ। এ সময় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কক্ষে তাঁর সমর্থকদের উপচে পড়া ভিড় হলে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। তাঁর নির্বাচনী এলাকা ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের মস্তফাপুর আসার পর তাঁর সঙ্গে দুই শতাধিক মোটরসাইকেল, অন্তত ৯০টি ছোট গাড়ি (মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার), ৭ থেকে ৮টি পিকআপ ভ্যান বহরে যোগ হয়। এরপর বিশাল এক বহর নিয়ে এগিয়ে যান কালকিনি পৌরসভা চত্বরে। এ সময় ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের ভুরঘাটা ও কালকিনি উপজেলার প্রধান সড়কে প্রায় সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ১ ঘণ্টার বেশি সময় দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ মানুষ।

পতাকাবাহী গাড়িতে চড়ে ও পুলিশ প্রহরায় এসে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী। বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনের এ সংসদ সদস্য। এবার তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাননি; স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

আচরণবিধি লঙ্ঘন করে মিছিল নিয়ে বৃহস্পতিবার পটুয়াখালী-১ (সদর, মির্জাগঞ্জ ও দুমকী) আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার। পটুয়াখালী শহরের চৌরাস্তা থেকে পটুয়াখালী জেলা জাতীয় পার্টির উদ্যোগে একটি মিছিল বের হয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের দিকে আসতে থাকে আর ওই মিছিলের ভেতরেই এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার ছিলেন এবং শহরের মানুষকে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা ‘লাঙ্গল, রুহুল আমিন’ বলে স্লোগান দিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রবেশ করেন।

আচরণবিধি ভেঙে হাজারো নেতাকর্মী নিয়ে শোডাউন দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও কলাপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মাহবুবুর রহমান। মিছিলসহকারে ঢাকঢোল পিটিয়ে তিনি সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। শহরের গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়কে প্যান্ডেল করে দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় শহরের বিভিন্ন সড়কে যানজট তৈরি হয়। এতে ভোগান্তিতে পড়েন সাধারণ মানুষ।

প্রতীক বরাদ্দের আগেই বিলবোর্ডে নিজের ছবি ও প্রতীক দিয়ে নির্বাচনী প্রচার শুরু করেছেন রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের নৌকার প্রার্থী। আসনটিতে নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ।

সিলেট-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন। সিলেট-৫ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাসুক উদ্দিন আহমদের সঙ্গে অনন্ত ২০ নেতা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে ঢুকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। সিলেট-৩ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও বর্তমান এমপি হাবিবুর রহমান হাবিব শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে রিটার্নি কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে শোডাউন দেন। শোডাউন করে মনোনয়নপত্র জমা দেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদও। তিনি সিলেট-৪ আসন থেকে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও সিলেট-৬ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। সিলেট-২ আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী দলটির ভাইস চেয়ারম্যান ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া মনোনয়পত্র জমা দেন দুপুরে। তিনিও শতাধিক নেতাকর্মীসহ মিছিল নিয়ে এসে মনোনয়নপত্র জমা দেন। তবে সিলেট-৬ আসনে তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী ও দলটির চেয়ারপারসন শমসের মবিন চৌধুরী আচরণবিধি ভঙ্গ করেননি। তিনি চার থেকে পাঁচজন নেতাকর্মী নিয়েই মনোনয়নপত্র জমা দেন।

সাভারে স্লোগান ও শোডাউন করে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে উঠেছে জাতীয় পার্টির প্রার্থী বাহাদুর ইমতিয়াজের বিরুদ্ধে। মানিকগঞ্জ-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম মনোনয়নপত্র দাখিলের আগে বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর কর্মী-সমর্থকরা একাধিক মিছিল করেন এবং মোটরসাইকেল নিয়ে শোডাউন দেন। চট্টগ্রাম-১১ আসনের সাংসদ এমএ লতিফ কয়েকশ নেতাকর্মী নিয়ে বিশাল শোডাউন করেছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার কক্ষের সামনেও নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে ‘নৌকা মার্কায় ভোট দিন, লতিফ ভাইয়ের সালাম নিন’– এমন নানা স্লোগান দিতে থাকেন।

খুলনা-৫ আসনে নৌকার প্রার্থী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ ৩ শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে মিছিল সহকারে সহকারীরিটার্নিং কর্মকর্তা ও ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন।

গাজীপুরের প্রয়াত সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. রহমত আলীর মেয়ে নৌকার প্রার্থী অধ্যাপিকা রুমানা আলী টুসী গাজীপুর-৩ আসন থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বৃহস্পতিবার। এ সময় নৌকার স্লোগানে প্রকম্পিত হয়ে উঠে পুরো এলাকা।