সোমবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

জাপায় দুই কূল হারিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচনের প্রস্তুতি রাঙার

news-image

নিউজ ডেস্ক : জাতীয় পার্টিতে রওশন-কাদের দ্বন্দ্বে দলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও সংসদের বিরোধী নেতা রওশন এরশাদের পক্ষে অবস্থান নেন প্রেসিডিয়াম সদস্য মসিউর রহমান রাঙা। গত বছরের ১৪ সেপ্টেম্বর এ কারণে মসিউরকে দলের সব পদ থেকে অব্যাহতি দেন চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের।

এরপর থেকে রওশন এরশাদ বলয়ের নেতা হিসেবে পরিচিতি পান রাঙা। একাধিক অনুষ্ঠানে রওশন এরশাদের সঙ্গে দেখা যায় তাকে। সেই রওশন এরশাদ আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছেন ৩ জনের জন্য। যেখানে রাঙার নাম নেই।

জাপায় দুই কূল (জিএম কাদের ও রওশন এরশাদ) হারিয়ে এখন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন রাঙা। রংপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য তিনি।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) রওশন এরশাদের চাওয়া মনোনয়ন ফরমের তালিকায় তিনজনের মধ্যে নিজের নাম না দেখে হতাশ হন মসিউর রহমান রাঙা।

জানা গেছে, রওশন এরশাদপন্থী আরও কয়েকজন নেতার সঙ্গে বৈঠক করেও এ নিয়ে কাঙ্ক্ষিত কোনো ফলাফল পাননি তিনি। যে কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ঢাকা পোস্টকে রাঙা বলেন, আমি তিনবারের সংসদ সদস্য ছিলাম, এবারও নির্বাচন করব। আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করব।

রওশনপন্থী নেতারা তো আজ বৈঠক করলেন, সেখানে কী হলো? জানতে চাইলে সংসদের বিরোধী দলীয় এ হুইপ বলেন, যাদের ক্ষমতা আছে তারা নির্বাচন করবে আরকি।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩১ আগস্ট জিএম কাদেরকে বাদ দিয়ে জাতীয় পার্টির সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করেন রওশন এরশাদ। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সংসদের বিরোধী দলীয় নেতার পদ থেকে রওশন এরশাদকে সরিয়ে নিজেকে বিরোধী দলীয় নেতা করতে স্পিকারকে চিঠি দেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

সেই চিঠিতে নিজের স্বাক্ষর প্রসঙ্গে রাঙা বলেছিলেন- তিনি কোনো চিঠিতে স্বাক্ষর করেননি। তার কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। সেটা পরে রওশন এরশাদকে সংসদের বিরোধী নেতা থেকে সরিয়ে দেওয়ার চিঠিতে ব্যবহার করা হয়েছে। এরপর রাঙাকেও বহিষ্কার করা হয়। পরে রাঙা রওশন এরশাদের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটিতে যোগ দেন।