শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যে ৩টি বিষয় ফাইনালে ভারতকে ভোগাতে পারে

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : টানা দশটি ম্যাচ জিতে এবারের বিশ্বকাপের ফাইনালে পৌঁছে গেছে স্বাগতিক ভারত। তৃতীয় শিরোপার লক্ষ্যে আগামীকাল রবিবার আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে লড়বে তারা। আহমেদাবাদের ১ লক্ষ ৩২ হাজার দর্শকের বেশিরভাগ গলা ফাটাবে ভারতের পক্ষেই। তবুও ৩টি দুর্বলতা নিয়ে শিরোপার লড়াইয়ে মাঠে নামবে ভারত।

অধারাবাহিক সিরাজ

দুর্দান্ত কিছু স্পেল উপহার দিলেও এবারের বিশ্বকাপে ধারাবাহিক পারফরম্যান্স দেখাতে পারছেন না পেসার মোহাম্মদ সিরাজ। শ্রীলংকার বিপক্ষে ৭ ওভারে মাত্র ১৬ রান দিয়ে ৩ উইকেট যেমন তুলে নিয়েছেন, আবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ ওভারে দিয়ে বসেন ৭৮ রান। ভারতীয় বোলারদের মধ্যে ১৫ বা তার বেশি ওভার বোলিং করা বোলারদের মধ্যে সিরাজের গড়ই সবার ওপরে (৩২.৬১)। অর্থাৎ, ফাইনালে সিরাজের বোলিংয়ে ভারসাম্য দরকার ভারতের।

কঠিন পরিস্থিতিতে অপরীক্ষিত লোয়ার অর্ডার

এবারের বিশ্বকাপে ভারতের টপ অর্ডার এতই ভালো করেছে যে, লোয়ার অর্ডারকে ব্যাটিংয়ে নামতেই হয়নি তেমন। তবে বিশ্বকাপ ফাইনালের মতো কঠিন ম্যাচে ঘটতে পারে যেকোনো কিছু। ভারতের শেষ ম্যাচগুলোতে ছয়ে নেমেছেন সূর্যকুমার যাদব। ৬ ম্যাচে মাত্র ৭৭টি বল মোকাবেলা করেছেন তিনি। আর সাতে নামা রবীন্দ্র জাদেজা ১০ ম্যাচে মোকাবেলা করেছেন ৯৬টি বল। ফাইনালের কঠিন পরিস্থিতি তারা সামাল দিতে পারবেন কি না সেটি নিয়েই এখন দেখা দিয়েছে উদ্বেগ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেমিফাইনালে ভারতের শেষ ম্যাচেও শেষ ওভারে ব্যাট করতে এসেছিলেন সূর্যকুমার। অন্যদিকে, ব্যাটে নামারই সুযোগ পাননি জাদেজা।

ব্যাটিং গভীরতার অভাব

এটি মানতেই হবে, ইনজুরিতে হার্দিক পান্ডিয়ার ছিটকে যাওয়া কমিয়ে দিয়েছে ভারতের ব্যাটিং গভীরতা। গত ছয় ম্যাচে ৬ ব্যাটার নিয়ে খেলেছে ভারত। জাসপ্রিত বুমরাহ ও মোহাম্মদ শামির মতো পেসাররা ব্যাটিংটা কিছু পারলেও ভরসা করা যায় না। অন্যদিকে, লোয়ার অর্ডারে অস্ট্রেলিয়ার বোলিং অলরাউন্ডাররা বেশ শক্তিশালী। প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্করা শেষদিকে কঠিন পরিস্থিতিতে পড়ে ম্যাচ জিতিয়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দলটির সেমিফাইনাল খেলায়ও দেখা গেছে সেটি। ২২ রানের জুটি গড়ে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন এই দুজন। আফগানিস্তানের বিপক্ষে কামিন্সের সেই ৬৮ বলের কথা কে ভুলতে পারবে? ২৯২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৯১ রানেই ৭ উইকেট হারিয়ে বসেছিল অস্ট্রেলিয়া, সেদিন একপাশে ম্যাক্সওয়েল দানবীয় খেলা উপহার দিতে পেরেছেন অধিনায়ক কামিন্সের মাটি কামড়ে পড়ে থাকার কারণেই।