বুধবার, ১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিততে হবে ডেনমার্ককে

news-image

স্পোর্টস ডেস্ক : আল জানুব স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় গ্রপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া ও ডেনমার্ক। এ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে ইতোমধ্যে দুই ম্যাচে জয়ী হয়ে ফ্রান্স পরের রাউন্ড নিশ্চিত করেছে। সে কারণে বুধবার দ্বিতীয় দল হিসেবে কে যাবে তা নির্ধারিত হবে এ দুই দলের ম্যাচের ফলের ওপর।

ইতোমধ্যে দুই ম্যাচে এক জয়সহ ৩ পয়েন্ট নিয়ে কিছুটা হলেও ড্যানিশদের চেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন সকারুজরা। দুই ম্যাচে ১ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ডেনমার্ক। শনিবার তিউনিশিয়ার বিপক্ষে ১-০ গোলে জয়ী হয়ে অস্ট্রেলিয়া পূর্ণ ৩ পয়েন্ট অর্জন করে। এটি ছিল অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বকাপ আসরে তৃতীয় জয়। ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে সার্বিয়াকে হারানোর পর প্রথম জয়। ১২ বছর আগের ওই জয় সত্বেও ৪ পয়েন্ট নিয়েও পরের রাউন্ডে যেতে পারেননি সকারুজরা। এবারও ঠিক একই অবস্থানে দাঁড়িয়ে অস্ট্রেলিয়া। ডেনমার্কের সঙ্গে পরাজিত হলে বিদায় নেওয়ার শঙ্কাও রয়েছে তাদের সামনে।

ইউরোপিয়ান দলের বিপক্ষে তাদের বিশ্বকাপ রেকর্ড এখানে দুশ্চিন্তার বিষয়। ইউরোপের দলগুলোর সঙ্গে আগের ১১ ম্যাচের আটটিতেই পরাজিত হয়েছেন সকারুজরা। কিন্তু চার বছর আগে ডেনমার্কের সঙ্গে তারা ১-১ গোলে ড্র করেছিল। এ নিয়ে পাঁচ বিশ্বকাপে মাত্র একবার ২০০৬ আসরে অস্ট্রেলিয়া নকআউট পর্বে খেলেছিল। এবারের আসরে অস্ট্রেলিয়ার শুরুটা ভালো না হলেও তিউনিশিয়াকে দ্বিতীয় ম্যাচে হারিয়ে তারা লড়াইয়ে ফিরে এসেছে। প্রথম ম্যাচে ফ্রান্স ও পরে তিউনিশিয়ার বিপক্ষে দুটি ম্যাচেই আগে গোল করে লিড নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এই প্রথমবারের মতো তারা বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচে প্রথমার্ধেই এগিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছে।

১৯৭৪ সালের পর প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচে তারা কোনো গোল হজম করেনি। তিউনিশিয়ার সঙ্গে ১-০ গোলে জয়ী হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। আর তারই ধারাবাহিকতায় ডেনমার্কের বিপক্ষেও এগিয়ে যেতে চায়।

এদিকে ইউরোপিয়ান বাছাই পর্বে কোনো দলই কোচ কাসপার হুলমান্ডের ডেনমার্কের মতো এত পয়েন্ট অর্জন করেনি। কিন্তু সকারুজদের বিপক্ষে ২০১৮ সালের ফলের পুনরাবৃত্তি তাদের বাড়ি ফেরত পাঠিয়ে দিতে পারে। ইউরো ২০২০-এ প্রথম দুই ম্যাচে পরাজয় সত্তে¡ও সেমিফাইনাল পর্যন্ত খেলেছিল ডেনমার্ক। সেই রেকর্ড থেকে আত্মবিশ্বাস পেতেই পারেন ড্যানিশরা। বিশ্বকাপে তাদের অতীত ইতিহাসও অস্ট্রেলিয়া থেকে সমৃদ্ধ। এ পর্যন্ত পাঁচ আসরের চারবারই ডেনমার্ক নকআউট পর্বে খেলেছে। ফ্রান্সের কাছে আগের ম্যাচে পরাজয় ছিল পাঁচ ম্যাচ পর বিশ্বকাপে তাদের প্রথম হার। এর আগে টানা চারটি ম্যাচে ড্র করেছিল ডেনমার্ক। লা ব্লুজদের বিপক্ষে বিশ্বকাপের মতো বড় আসরে খেলার আবহটা বুঝতে পারেননি ড্যানিশরা। অথচ এ বছরই উয়েফা নেশন্স লিগে দিদিয়ের দেশমের দলকে দুবার হারিয়েছিল।

তিউনিশিয়ার বিপক্ষে জয়ে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে গোঁড়ালির ইনজুরির কারণে খেলতে পারেননি ডিফেন্ডার ন্যাথানিয়ল অ্যাটকিনসন। রাইটব্যাক হিসেবে তার স্থানে খেলেছিলেন ফ্র্যান কারাসিচ। এই একটি মাত্র পরিবর্তন নিয়ে অসিরা মাঠে নেমেছিলেন। কালকের ম্যাচে জয়ী দলটির ওপরই ভরসা রাখতে চাইছেন কোচ গ্র্যাহাম আর্নল্ড।

এদিকে হাঁটুর ইনজুরির কারণে বিশ্বকাপে ড্যানিশ দল থেকে ছিটকে গেছেন থমাস ডিলানি। এ কারণে তার স্থানে মূল একাদশে ফিরেছেন মিকেল ডামসগার্ড।

 

এ জাতীয় আরও খবর

মাতৃভাষার মাস শুরু আজ

২১০ রান টপকে অবিশ্বাস্য এক জয় কুমিল্লার

বগুড়ায় উপ-নির্বাচন : নেতাকর্মীরা ভোটকেন্দ্রে গেলেই ব্যবস্থা নেবে বিএনপি

আগুন নিয়ন্ত্রণে মোংলা ইপিজেডের

নিজেদের ইচ্ছামতো বিশ্ববিদ্যালয় চালানো যাবে না : রাষ্ট্রপতি

বিএনপির ছেড়ে দেওয়া ৬ আসনে ভোটগ্রহণ আজ

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকুলের অফিস থেকে ঘরে ফেরা হলো না

আমি আহলে হাদিসের অনুসারী, পকেটে দুই কোটি ভোট : রহমতুল্লাহ

স্বাস্থ্যের ৪ পরিচালককে বদলি, নিপসমে সেব্রিনা ফ্লোরা

ভুল তথ্যে র‌্যাবের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল আমেরিকা : সংসদে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকা থেকে ছিটকে গেলেন আদানি

বাণিজ্য মেলায় ১০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি