বৃহস্পতিবার, ২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আয় বাড়ে পেট ভরে না

news-image

অনলাইন ডেস্ক : বছর বছর মাথাপিছু আয় বাড়ছে। বাহাবা জুটছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে। সরকারের স্মিত হাসি চওড়া হচ্ছে। এত ভালোর মধ্যেও নির্ধারিত আয়ের মানুষের পাতের খাবারের তালিকা সংকুচিত হচ্ছে। কেউ কম খাচ্ছেন, কেউবা খাবারের মান কমিয়েছেন। সংসারের অন্য সব খরচেও টান পড়েছে। শখের জিনিসের পেছনে খরচ বন্ধ হয়েছে অনেক আগেই। সবকিছু মিলে কষ্টে দিন পার করছেন সাধারণ মানুষ। মাথাপিছু আয় বাড়লেও এতে সাধারণ বা খেটে খাওয়া মানুষের পেট ভরছে না।

গত ১৪ নভেম্বর বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের বার্ষিক প্রতিবেদন অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। বৈঠকে গত অর্থবছরের (২০২১-২২) মাথাপিছুু আয় ২ হাজার ৮২৪ ডলারে উন্নীত হওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। যা আগের অর্থবছরের তুলনায় ২৩৩ ডলার বেশি। মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির হার প্রতি বছরই বাড়ছে।

নির্দিষ্ট আয়ের মানুষের জীবনে মাথাপিছু আয় বাড়ার যে কোনো প্রভাব নেই, তা বোঝা যায় বিক্রয়কর্মী বকুলের জবানিতে। ঢাকা নিউমার্কেটের একটি শাড়ির দোকানের এ বিক্রয়কর্মী জানান, তিনি মাসে বেতন ও কমিশন মিলে ২০ হাজার টাকা পান। তার দুই ছেলে গবর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাই স্কুলে পড়ে। বড় ছেলে ফিজিকস ও কেমিস্ট্রির জন্য কোচিং করত। কুলিয়ে উঠতে না পারায় গত মার্চ থেকে কোচিং বন্ধ করে দিয়েছেন। বাবার অসহায়ত্ব টের পেয়ে ছেলে একটি অনলাইনভিত্তিক খাবার বিক্রি প্রতিষ্ঠানে সরবরাহকারীর চাকরি নিয়েছে। পাশাপাশি লেখাপড়াও চালাচ্ছে।

ঘটনাটি জানিয়ে বকুল দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘সারা দিন সাইকেলে করে ছেলে এখানে-ওখানে খাবার পৌঁছে দেয়। রাতে ডিউটি শেষে ছেলে যখন বাসায় ফিরে ক্লান্ত শরীরে বই নিয়ে বসে, তখন আর সইতে পারি না। চোখের পাতা ভিজে উঠে। স্ত্রী টের পায়, কষ্টে সেও পাশে এসে দাঁড়াতে চায়। তখন বাবা হিসেবে নিজেকে অক্ষম মনে হয়। কিন্তু আমার যে আর করার কিছু নেই। একটাই পারি, পরিবারের সদস্যদের গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দিতে। কিন্তু ছেলেকে একটা ভালো স্কুলে ভর্তি করেছি। তাও পারতাম না, লটারি পদ্ধতির কারণে আমার ছেলে স্কুলটিতে ভর্তি হতে পেরেছে। এ জন্য কষ্ট করে হলেও তাদের ঢাকায় রেখেছি।’

কিন্তু এভাবে আর চলতে পারছেন না জানিয়ে বকুল বলেন, ‘প্রতিদিনই কোনো না কোনো জিনিসের দাম বাড়ছে। ছেলের কোচিং না হয় বন্ধ করলাম। কাগজ, কলম, পেনসিল, গ্রাফপেপার, বই দাম বাড়ার তালিকা থেকে কোনো কিছুই বাদ যাচ্ছে না। আটা-ময়দা, চাল-চিনি, তেল-সাবান, তরিতরকারি যেটুকু কিনি তার সবটাই বাড়তি দামে।’

গত তিন বছরে নিউমার্কেটের বিক্রয়কর্মীদের কোনো বেতন বাড়েনি। প্রথম দুই বছর করোনা মহামারীর জন্য নিয়মিত বেতন হয়নি। তবে মহামারী নিয়ন্ত্রণে আসার পর থেকে নিয়মিত বেতন হচ্ছে। সরকারের মাথাপিছু আয়ের যে ফর্মুলা তাতে প্রতি বছরই বেতন বৃদ্ধির কথা বলা হয়ে থাকে। ফর্মুলা অনুযায়ী জিনিসপত্রের যেমন দাম বাড়ে, তেমনি শ্রমের মজুরিও বাড়ে বছর বছর।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগের (সিপিডি) মতে, গত মাসে চারজনের একটি পরিবারের খরচ ছিল ২২ হাজার ৪২১ টাকা। এ হিসাব খাবার তালিকায় মাছ-মাংস ধরে। মাছ-মাংস বা আমিষের জোগান বাদ দিয়ে খরচ দাঁড়ায় ৯ হাজার ৫৯ টাকা। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে খরচ ছিল মাছ-মাংসসহ ১৭ হাজার ৫৩০ টাকা আর বাদ দিয়ে ৬ হাজার ৫৪১ টাকা।

বাজার দর কতটা বাড়ল তা নিয়ে সরকারি ও বেসরকারি তথ্যে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে। গত ৫ আগস্ট জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে ওই মাসের মূল্যস্ফীতি ছিল ৯ দশমিক ৫২ শতাংশ, যা গত ১২ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। ওই সময় খাদ্য মূল্যস্ফীতি ছিল ৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ। কিন্তু সিপিডি বলছে, ওই সময় খাদ্যপণ্যের প্রকৃত মূল্যস্ফীতি ২০ থেকে ৫০ শতাংশ।

খাদ্যের পেছনে মানুষকে এখন তার আয়ের বেশিরভাগ অংশ ব্যয় করতে হচ্ছে। এক বছরের ব্যবধানে জরুরি খাদ্যপণ্যের দাম ৩৬ থেকে ১০০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে গেছে। পর্যালোচনায় দেখা গেছে, এক বছর আগে বাজারে মোটা চালের দাম ছিল প্রতি কেজি ৪৪ থেকে ৪৮, যা এখন ৬০ থেকে ৬৫ টাকায় উন্নীত হয়েছে। এ সময়ে নাজিরশাইল চাল ৬০ থেকে ৮০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। ৩৪ টাকার খোলা আটা এখন ৬৫ থেকে ৬৮ টাকা। গত এক বছরে খোলা সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে অন্তত ২৫ শতাংশ। এ সময়ে বিভিন্ন ধরনের মসুর ডাল ২০ থেকে ৪৭ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। আর চিনির দাম ৭৫ থেকে ১১০ টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৮২৪ ডলারে উঠলেও বাস্তবে দেশের প্রতিটি মানুষের আয় তা নয়। কারণ, মাথাপিছু আয় কোনো ব্যক্তির একক আয় নয়। দেশের অভ্যন্তরের পাশাপাশি রেমিট্যান্সসহ যত আয় হয়, তা দেশের মোট জাতীয় আয়। সেই জাতীয় আয়কে দেশের মোট জনসংখ্যা দিয়ে ভাগ করলে মাথাপিছু আয় বের হয়। ফলে দেশে মাথাপিছু আয় বাড়লেও, তাতে ব্যক্তির আয়ে কোনো তারতম্য হয় না।

মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) হিসাব করার জন্য সম্প্রতি নতুন ভিত্তিবছর চূড়ান্ত করেছে সরকার। ২০১৫-১৬ ভিত্তিবছর ধরে জিডিপি, প্রবৃদ্ধি, বিনিয়োগ বা মাথাপিছু আয় গণনা করা হয়। এতদিন ২০০৫-০৬ ভিত্তিবছর ধরে এসব গণনা করা হতো।

মাথাপিছু আয়ের যে হিসাব দেওয়া হচ্ছে তা সঠিকভাবে করা হচ্ছে কি না, সেটি নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘আমাদের একজনের আয় আসলেই ২ হাজার ৮২৪ ডলার হচ্ছে কি না, তা খতিয়ে দেখা দরকার। সেটা যদি হয়েও থাকে, তাহলে আয়টা কার কাছে যাচ্ছে সেটাও দেখা দরকার। কারণ এত আয়ের পরও সাধারণ মানুষ সংসার চালাতে পারছে না। বাস্তবতা হচ্ছে, কতিপয় মানুষের কাছে সম্পদ কুক্ষিগত হচ্ছে, যারা হাজার হাজার কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ফলে সমাজে বৈষম্য প্রকট আকার ধারণ করছে।’

দেশে বর্তমানে দারিদ্র্যের হার কত, সরকারিভাবে তা প্রকাশ করা হয়নি। চলতি অর্থবছরের (২০২২-২৩) বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী দেশে দারিদ্র্যের যে হার উল্লেখ করেছেন তা পুরনো, অর্থাৎ ২০২০ ও ’২১ সালের করোনাভাইরাসের প্রকোপকালের আগের। গত জুনে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ আইপিসি ক্রনিক ফুড ইনসিকিউরিটি রিপোর্ট’টি ২০০৯-১৯ সময়কালের তথ্যের ওপর ভিত্তি করে প্রণীত। এতে করোনা মহামারী-পরবর্তী সময়ের অর্থাৎ ২০২০ ও ’২১ সাল শেষে দেশে দারিদ্র্যের হার সম্পর্কে কোনো তথ্য নেই। দারিদ্র্যের হার নির্ধারণে কাজ করা সরকারি সংস্থা বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) ২০১৬ সালের পর এ সম্পর্কিত কোনো প্রতিবেদন প্রকাশ করেনি। সংস্থাটির সর্বশেষ ‘হাউজহোল্ড ইনকাম অ্যান্ড এক্সপেন্ডিচার সার্ভে (হায়েস) ২০১৬’-এ জাতীয় পর্যায়ে দারিদ্র্যের হার দেখানো হয়েছে ২৪ দশমিক ৩ শতাংশ। দেশের কয়েকটি বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের গবেষণা প্রতিবেদনে দারিদ্র্যের হারে যে ঊর্ধ্বগতি উঠে এসেছে তা গ্রহণে সরকার অনীহা প্রকাশ করেছে। তাই দেশে দারিদ্র্যের বর্তমান হার নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে।

অর্থমন্ত্রীর ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় আওয়ামী লীগের একটানা এক যুগের শাসনামলের অর্জন নিয়ে একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘দারিদ্র্যের হার ৪১ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমে ২০ দশমিক ৫ শতাংশে এবং অতিদারিদ্র্যের হার ১০ দশমিক ৫ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।’

গত দুই বছরে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দেশের অর্থনীতি ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কর্মসংস্থানে মূল ভূমিকা পালনকারী বেসরকারি খাতে চাকরিচ্যুতি, বেতন বা মজুরি কর্তনে মানুষের আয় কমেছে। ওয়াশিংটনভিত্তিক জনমত জরিপ প্রতিষ্ঠান গ্যালাপ পরিচালিত ‘স্টেট অব দ্য গ্লোবাল ওয়ার্কপ্লেস ২০২১’ অনুযায়ী, করোনার সময় বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার ৫৫ শতাংশ মানুষের আয় কমেছে। আর চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে শুরু হওয়া রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে সৃষ্ট উচ্চ মূল্যস্ফীতি আয় কমে যাওয়া মানুষের দুর্গতি বাড়িয়েছে বহুগুণ।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ। একই বছর শ্রম মজুরি বৃদ্ধির হার ছিল ৬ দশমিক ৭৯ শতাংশ। অর্থাৎ শ্রম মজুরি বৃদ্ধির হার মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হারের চেয়ে বেশি ছিল। ২০২০ সালে মহামারী দেখা দেওয়ার আগপর্যন্ত মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হারের চেয়ে শ্রম মজুরি বৃদ্ধির হার বেশি ছিল। কিন্তু মহামারী শুরুর পর শ্রম মজুরির চেয়ে মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির হার বেশি, যা এখনো বহাল রয়েছে।

উচ্চ মূল্যস্ফীতির এ সময়ে দেশের স্বল্প ও নিম্ন আয়ের মানুষ যখন দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে হিমশিম খাচ্ছে, তখন দেশে কোটিপতির সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, গত ১৩ বছরে দেশের ব্যাংকগুলোতে এক কোটি বা তার চেয়ে বেশি পরিমাণের আমানত রয়েছে এমন ব্যক্তির সংখ্যা চার গুণেরও বেশি বেড়েছে। এ সময়ে কোটিপতি আমানতকারীদের টাকার পরিমাণ বেড়েছে সাত গুণেরও বেশি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ২০০৯ সালের মার্চে দেশে কোটিপতি ব্যাংক হিসাবধারীর সংখ্যা ছিল ১৯ হাজার ৬৩৬ জন, যা চলতি বছরের জুন শেষে ১ লাখ ৮ হাজার ৪৫৭তে উন্নীত হয়েছে। ১৩ বছরে কোটিপতি আমানতকারী বেড়েছে ৮৮ হাজার ৮২১ জন বা ৪৫২ শতাংশ।

২০০৯ সালে ব্যাংকে রাখা কোটিপতি আমানতকারীদের টাকার পরিমাণ ছিল ৭৯ হাজার ৮৬৬ কোটি টাকা, যা চলতি বছরের জুন শেষে ৬ লাখ ৮০ হাজার ৩৬২ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। এ হিসাবে ১৩ বছরে কোটিপতি আমানতকারীদের ব্যাংকে গচ্ছিত সম্পদ বেড়েছে ৬ লাখ ৪৯৬ কোটি টাকা। এ সময়ে কোটিপতি আমানতকারী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যাংকে রাখা তাদের সম্পদ বেড়েছে ৭৫১ শতাংশ।