মঙ্গলবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাচায় মাচায় প্রক্রিয়াকরণ হচ্ছে শুঁটকি, লাভের আশায় ব্যবসায়ীরা

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সদর, নাসিরনগর ও আশুগঞ্জ উপজেলার লালপুরে এলাকায় ছোট-বড় মিলিয়ে রয়েছে প্রায় শতাধিক উপরে মাচা। দেশের অন্যান্য স্হানের তুলনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উৎপাদিত শুঁটকি স্বাদে-গুণে অনন্য ও নিরাপদ হওয়ায় এর কদর রয়েছে সব জায়গায়। প্রতিবছর এ মৌসুমেই জেলায় শত কোটি টাকার শুঁটকি উৎপাদন হয়ে থাকে। নদীবেষ্টিত জেলা হওয়ায় তিতাস, মেঘনা নদীসহ বিস্তীর্ণ হাওরাঞ্চল থেকে বিভিন্ন জাতের মাছ সংগ্রহ করে উৎপাদন করা হয় হরেক রকমের শুঁটকি।
চলতি মৌসুমেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শতাধিক মাচায় শুরু হয়েছে শুঁটকি উৎপাদনের কাজ। প্রতিবছরের মতো এবারও জেলায় অন্তত একশত কোটি টাকার উপরে শুঁটকি উৎপাদন হবে বলে আশাবাদী মৎস্য কর্মকর্তারা।
সরেজমিনে ঘুরে খোঁজ জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, নাসিরনগর ও আশুগঞ্জ উপজেলার লালপুরে ছোট-বড় মিলিয়ে রয়েছে প্রায় ১০০ মাচা। এসব মাচায় এখন চলছে শুঁটকি উৎপাদনের কাজ। শুঁটকি উৎপাদন প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত সহস্রাধিক মানুষ। এর মধ্যে আশুগঞ্জে মেঘনা নদীর পূর্ব পাড়ে শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণকে ঘিরে লালপুরে গড়ে উঠেছে বিশাল শুঁটকিপল্লী। শুধু সেখানেই রয়েছে ৬০টি মাঁচা। প্রতিদিন উৎপাদন করা হচ্ছে প্রায় প্রায় ৫ টন শুঁটকি। ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছাড়াও সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জসহ হাওর অঞ্চলের মাছ কিনে এসব মাচায় তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন জাতের মাছের শুঁটকি। আশ্বিন থেকে শুরু করে ফাল্গুন পর্যন্ত প্রায় ছয় মাস চলে শুঁটকি তৈরির কাজ। রয়েছে পুঁটি, শোল, গজার, বাইম, বজুরি, টেংরা, বোয়ালসহ বিভিন্ন জাতের শুঁটকি। সেখানে প্রকারভেদে ১২ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা মণ দরে বিক্রি হয় পুঁটি শুঁটকি। এ ছাড়া গইন্যা শুঁটকি মণপ্রতি ৪০ হাজার টাকা ও পাঁচমিশালী শুঁটকি বিক্রি হয় ২৪ হাজার টাকায়।
শুঁটকি প্রক্রিয়াজাতকরণের সঙ্গে জড়িতরা জানালেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ায় বেশি দামে মাছ কিনতে হচ্ছে। এ ছাড়া শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণের অন্যতম উপাদান লবণসহ অন্যান্য উপকরণের দামও বেড়ে গেছে। উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ায় যে দরে শুঁটকি বিক্রি করা হচ্ছে, তাতে তাদের কাঙ্ক্ষিত মুনাফা হচ্ছে না। বর্তমানে এ পেশায় টিকে থাকতে তাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।
ব্যবসায়ী সুজিত চন্দ্র দাস বলেন, ‘লাভ কিংবা লোকসান যাই হোক না কেন, লাখ টাকা খরচ করে ডাঙ্গি (মাচা) যখন বেঁধেছি, ব্যবসা চালিয়ে যেতে হবে। দাম বেশি হওয়ায় এখনো অনেকেই মাছ কেনেননি।
ব্যবসায়ী সুমন দাস বলেন, ‘লালপুরের শুঁটকিপল্লি ঐতিহ্যবাহী। বাপদাদার আমল থেকে ব্যবসা চলছে। মৌসুমের শুরুতে যেসব মাছ পেয়েছি, তা দিয়ে শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণের কাজ চলছে। সামনে ভাটার সময় রয়ে গেছে। আমরা আশা করছি, আরও বেশি মাছ সংগ্রহ করতে পারব। বেচাকেনাও বাড়বে।
জেলা মৎস্য কর্মকর্তা তাজ মহল বেগম শুঁটকি ব্যবসায়ীদের লাভবান করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানিয়ে বলেন, ‘নিরাপদ শুঁটকি তৈরির পাশাপাশি শীত মৌসুমেও যাতে তাপমাত্রা বজায় রেখে শুঁটকি উৎপাদন করা যায়, সে জন্য ব্যবসায়ীদের উন্নতমানের ড্রায়ার দেওয়া হবে। শিগগিরই এ কাজ বাস্তবায়ন করা হবে। এ ছাড়া তাদের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর

মুজিব কোট গায়ে দিলে শেখ মুজিব হওয়া যায় না: ওবায়দুল কাদের

বিএনপি নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে চাইলে ব্যবস্থা নেবে সরকার: তথ্যমন্ত্রী

চলতি বছর ডেঙ্গুতে ২৫০ জনের মৃত্যু

মেসির হাতে বাংলাদেশের পতাকা

পর্তুগালে বৈজ্ঞানিক সম্মাননা পেলেন বাংলদেশি সোহেল মুর্শেদ

রাশিয়ার সঙ্গে আরও ঘনিষ্ঠ হচ্ছে চীন

চিনি-চুন-ফিটকিরি দিয়ে তৈরি হচ্ছে খেজুর গুড়!

পরীক্ষার হলে ঢুকে ছাত্রীকে নিয়ে উধাও ছাত্রলীগ নেতা

১২ শর্তে বিএনপিকে রাজশাহীতে গণমাবেশের অনুমতি দেবে পুলিশ

সবার থেকে যেখানে সেরা ব্রাজিল

গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বড় পরিবর্তনের আভাস আর্জেন্টিনার

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে গণসমাবেশের অনুমতি ডিএমপির