বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রকৌশলীকে জুতোপেটার অভিযোগ ঠিকাদারের বিরুদ্ধে: আটক ৪

news-image

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলীকে জুতোপেটা করার অভিযোগ উঠেছে এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। ওই ঠিকাদার ও তার লোকজন অফিস কক্ষও ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় ঠিকাদারসহ চারজনকে আটক করে পুলিশে দেন ইউএনও।

জানা যায়, রোববার (০২ অক্টোবর) বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী শমেশ আলীকে মারধর করে ঠিকাদার এস.এম আলমগীর হোসেন ও তার লোকজন। পরে আহত অবস্থায় শমেশকে ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

আহত প্রকৌশলী শমেশ আলী বলেন, তাসলিমা এন্টারপ্রাইজের মালিক ঠিকাদার আলমগীর হোসেন তার কাজের যাবতীয় টাকা ও কাগজপত্র তুলে নিয়ে গেছেন। কিন্তু অবৈধভাবে মেজারমেন্ট বুক (এমবি) চেয়েছিল। আমি দিতে দেরি করায় আলমগীর হোসেন আমাকে জুতোপেটা করে এবং তার লোকজন আমাকে এলোপাথাড়ি ঘুষি, লাথি, থাপ্পড় মেরে আহত করে। পরে কোনো রকমে বেঁচে দৌড়ে কোয়ার্টারে আশ্রয় নিই। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসে আমাকে উদ্ধার করেন। আমি এই হামলার বিচার চাই।

অভিযুক্ত আলমগীর হোসেন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমার প্রতিষ্ঠানের এমবি আটকে রেখেছে প্রকৌশলী শমেশ। ৬০ হাজার টাকা ঘুষ না দিলে তিনি দেবে না। এ বিষয় নিয়ে তার সঙ্গে আমার তর্কবিতর্ক হয়। আমরা তাকে মারধর করিনি। আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছেন তিনি।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, প্রকৌশলী শমেশ আলীকে মারধরের ঘটনায় আলমগীর হোসেনসহ চারজনকে আটক করি। পরে তাদের পুলিশে সপর্দ করেছি। এ ঘটনায় মামলা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

ভেদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহালুল খান বাহার বলেন, প্রকৌশলী শমেশ আলীকে মারধরের ঘটনায় এসএম আলমগীর হোসেন, আলমগীর মাতব্বর, শফিকুর রহমান ও চুন্নু নামের চারজনকে থানায় হেফাজতে রাখা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা প্রক্রিয়াধীন। মামলা শেষে তাদের আদালতে সপর্দ করা হবে।