মঙ্গলবার, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আমরা পশু কোরবানি কেন করব?

imagesকোরবানি মুসলিম উম্মাহর জন্য একটি ওয়াজিব বিধান। ‘কোরবানি’ শব্দটি আরবি ‘কুরবান’ শব্দ থেকে উৎপত্তি। আর কুরবান এমন বস্তুকে বলেÑ যা আল্লাহর নৈকট্য লাভের মাধ্যম হয়। শরিয়তের পরিভাষায় কোরবানি হলো আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের জন্য নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট জন্তু যবেহ করা।
কোরবানি বিশ্বইতিহাসে এক নজিরবিহীন আত্মত্যাগের স্মৃতিচারণ। এটি মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম আ.এর সুন্নত এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে গুরত্বপূর্ণ এক ইবাদত।
কোরবানির গুরুত্ব : আল্লাহ্ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘আপনি আপনার প্রতিপালকের জন্য নামাজ পড়–ন এবং কোরবানি করন।’ [সুরা কাওসার, আয়াত : ২] উক্ত আয়াতে ঈদের নামাজ আদায়ান্তে কোরবানি করতে আদেশ করা হয়েছে। তাই রাসুলুল্লাহ সা. সারাজীবন কোরবানির ব্যাপারে অত্যন্ত যতœবান ছিলেন। হাদিসে এসেছেÑ ইবনে উমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী কারিম সা. দশবছর মদিনাতে ছিলেন, প্রতি বছর কোরবানি করেছেন। [মুসনাদে আহমদ, হা: ৪৯৫৫; তিরমিজি, হা: ১৫০৭]
কোরবানির ফজিলত : হজরত আয়েশা রা. থেকে বর্ণিতÑ রাসুলুল্লাহ সা. বলেছেন, নহর তথা ঈদুল আজহার দিন আল্লাহর নিকট বণী আদমের কোনো আমল কোরবানি করা থেকে অধিক প্রিয় নেই। কোরবানিকৃত পশুকে তার শিং, খুর, পশমসহ কিয়ামতের ময়দানে হাজির করা হবে [এবং নেকির পাল্লায় তা ওজন করা হবে।] আর কোরবানির পশু জবেহ করার সাথে সাথে তার রক্ত মাটিতে পড়ার আগেই আল্লাহ পাকের দরবারে তা কবুল হয়ে যায়। [তিরমিজি শরিফ : ১৪৯৭, ইবনে মাজাহ্ : ৩১২৬]
হজরত যায়েদ বিন আরকাম রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ্ সা. এর সাহাবারা আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! এ কোরবানি [প্রথাটা] কী? রসুলুল্লাহ্ সা. বললেন, এটা তোমাদের পিতা হজরত ইবরাহিম আ. এর সুন্নাত। সাহাবায়ে কেরাম পুনরায় জিজ্ঞেস করলেন, ইয়া রাসুলাল্লাহ! এতে আমাদের লাভ কী? রাসুলুল্লাহ্ সা. জবাবে বললেন, পশুর প্রত্যেকটা চুলের বিনিময় একটি করে নেকি পাওয়া যাবে। তাঁরা আবার জিজ্ঞেস করলেন, যে সমস্ত পশুরু মধ্যে পশম রয়েছে ওগুলোর মধ্যে কী সওয়াব হবে? নবী করিম সা. বলেন, ওগুলোতেও প্রতিটি পশমের বদলে একটি করে নেকি পাওয়া যাবে। [ইবনে মাজাহ : হাদিস ৩১২৭; মুসনাদে আহমাদ : হাদিস ১৮৭৯৭] হজরত আবু হুরাইরা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সা. বলেছেন, যে ব্যক্তি সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও কোরবানি করলো না, সে যেন আমাদের ঈদগাহের নিকটেও না আসে। [ইবনে মাজাহ : ৩১২৩, মুসনাদে আহমদ : ৮০৭২, মুসতাদরাক : ৩৪৬৮]
কোরবানির হুকুম : জিলহাজ মাসের দশ তারিখ সূর্যোদয় হতে ১২ তারিখ সূর্যাস্তের পূর্বপর্যন্ত যদি কোনো সুস্থ মস্তিষ্ক, প্রাপ্ত বয়স্ক মুকিম ব্যক্তি নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়, অর্থাৎ দেনামুক্ত থাকা অবস্থায় সাড়ে সাত তোলা স্বর্ণ বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপা অথবা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপার মূল্য সমপরিমাণ নগদ টাকা বা ব্যবসায়ের মাল কিংবা সমমূল্যের নিত্যপ্রয়োজনের অতিরিক্ত যে কোনো সম্পদ থাকে তাহলে তার ওপর নিজের পক্ষ থেকে কোরবানি করা ওয়াজিব। [মুসনাদে আহমদ, হা: ৮০৭২, সুনানে দারাকুত্বনি, হা: ৪১৯৪, আল্ মুগনি : ৯/৩৪৫; রদ্দুল মুহতার : ৬/৩১২]
কোরবানির শিক্ষা : নিজের কামনা-বাসনা ও ইচ্ছাকে আল্লাহর জন্য কোরবানি দিয়ে তাঁর সন্তুষ্টি অর্জন করা কোরবানির মূল শিক্ষা। যেমন ইরশাদ হচ্ছেÑ ‘আল্লাহর নিকট এগুলোর গোশত ও রক্ত পৌঁছে না। পৌঁছে শুধু তোমাদের মনের তাক্বওয়া।’ [সুরা হজ্জ: ৩৭] অর্থাৎ আল্লাহর নিকট কেবল আমাদের আনুগত্যের জযবা-ই পৌঁছে। তিনি সবকিছুর মালিক, তাঁর ইচ্ছাই সবকিছু। আমরা তাঁর হুকুমের দাস মাত্র। সুতরাং তিনি যা আদেশ করেন তা অবনত মস্তকে পালন করাই হলো আমাদের দায়িত্ব। একই সাথে নিজের প্রশুত্ব দমন, হজরত ইবরাহিম আ. এর সুন্নত অনুসরণ এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে আমরা পশু কোরবানি করবো। আল্লাহ আমাদের কোরবানিকে কবুল করুন। আমিন।

এ জাতীয় আরও খবর