শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আটক ৩ বিএনপি নেতার একজনকে ছেড়ে দিলো বিজয়নগর পুলিশ,চাঞ্চল্য

B Baria map mainআমিরজাদা চৌধুরী,ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক শরীফুল ইসলাম লিটনসহ ৩ বিএনপি নেতাকে রোববার রাতে আটক করে পুলিশ। এরমধ্যে সাধারন সম্পাদককে রাতে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া হয়। থানার কর্মকর্তারা বলেছেন এই অভিযানে লিটন পুলিশের সোর্সের কাজ করেছে। তাই আটকের পর তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে এলাকার বিএনপি নেতাকর্মীরা বলছেন, লিটন মোটা অংকের টাকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন। পাশাপাশি আখাউড়া আওয়ামীলীগের এক নেতা তার জন্যে তদবির করেন। পুলিশের গ্রেফতার ও ছাড়ের ঘটনা বিজয়নগর উপজেলায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। পুলিশ ও বিএনপি নেতাকর্মী সুত্রে জানা যায়, রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে সাতগাও এলাকায় মহসীন চৌধুরীর বাড়িতে বৈঠকে বসেছিলেন উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি হারুন মুন্সি,সহ-সভাপতি ডাক্তার রফিকুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক শরীফুল ইসলাম লিটন,যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আম্বর আলী ও সাংগঠনিক সম্পাদক রাষ্ট্রু সরকার। তাদের বৈঠকের শেষ পর্যায়ে সেখানে অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় সভাপতি হারুন মুন্সি ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আম্বর আলী সটকে পড়তে সক্ষম হন। পুলিশ বিএনপি’র সাধারন সম্পাদকসহ অন্য ৩ নেতাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। রাতে বিএনপি’র সাধারন সম্পাদককে ছেড়ে দেয়া হয়। অন্য দুই নেতা ডাক্তার রফিকুল ইসলাম ও রাষ্ট্রু সরকারকে পুলিশ গতকাল বিশেষ ক্ষমতা আইনের একটি মামলায় আদালতে প্রেরন করে। সাতগাও গ্রামের মহসীন চৌধুরী বলেন- তার বাড়িতে বিএনপি’র ৫ নেতা বৈঠকে বসেছিলেন। তখন তিনি বাড়িতে ছিলেন না। ঐবৈঠকে উপস্থিত উপজেলা বিএনপি’র যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আম্বর আলী তাদের বৈঠকের কথা স্বীকার করে বলেন- আমাদের মধ্যে ৩ জন পুলিশের হাতে আটক হন। পরে বিএনপি’র সেক্রেটারীকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপি’র একাধিক নেতা বলেছেন, আমরা শুনেছি থানায় একলাখ টাকা দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন লিটন। তাছাড়া আখাউড়া আওয়ামীলীগের এক প্রভাবশালী নেতা তাকে ছেড়ে দেয়ার জন্যে তদবির করেন। এ বিষয়ে কথা বলার জন্যে শরীফুল ইসলাম লিটনের নাম্বারে ফোন দিলে তিনি বলেন আমি আদালতে আছি। পরে কথা বলবো। বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তফা কামাল বলেন- আমরা গোপন খবরের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালিয়ে ২ বিএনপি নেতাকে আটক করেছি। লিটনকে সেখান থেকে আটক করে নিয়ে আসার কথাও তিনি স্বীকার করেন।