শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৫ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউপি নির্বাচন-২০১৬ : বাঞ্ছারামপুরে ৩৬ প্রার্থীর মধ্যে ১৬ জনই বিদ্রোহী

uP Election1নিজস্ব প্রতিবেদকব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার নয়টি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির একক প্রার্থী চূড়ান্ত করা হলেও উভয় দলের অন্তত ১৬ জন ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের ১৪ জন ও বিএনপির ২ জন বিদ্রোহী প্রার্থীসহ মোট ৩৬ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা বিএনপির মনোনীত প্রার্থীদের সাথে আতাত করে নির্বাচন করবেন বলে গুঞ্জন রয়েছে।
আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দলীয় সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ৯টি ইউনিয়নে তাদের একক প্রার্থী চূড়ান্ত করছেন। মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ৭টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ১৪ জন ‘বিদ্রোহী’ ও বিএনপির ২ জন বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র নিয়েছেন। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন-তেজখালী ইউপির চেয়ারম্যান গাজী ফাইজুর রহমান ফাজিল, আওয়ামী লীগের কর্মী মো. মহিউদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা জহর মিয়া, আওয়ামী লীগের সমর্থক মো. ইকবাল হোসেন, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি গাজী তুহিন জয়, সমর্থক মো. নুরুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ কর্মী সফিকুল ইসলাম মিয়াজী। ফরদাবাদ ইউপির চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আজিজ, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ময়নাল হোসেন, ছলিমাবাদ ইউনিয়নে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এরশাদ আলী, সদস্য মদন মিয়া চিশতী, পাহাড়িয়াকান্দিতে উপজেলা যুবলীগের সহসম্পাদক আনোয়ার হোসেন পিন্টু, মানিকপুরে আওয়ামী লীগের কর্মী জসিম উদ্দিন, সোনারামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. রোস্তম আলী। এদিকে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা হলেন ফরদাবাদ ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মাসুক।
এবিষয়ে ফরদাবাদ ইউপির চেয়ারম্যান আবদুল আজিজ বলেন, “আমার বিশাল সমর্থন থাকা সত্বেও দল মনোনয়ন দেয়নি, তাই আমি বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছি। আমি আনারস প্রতীক চেয়েছি, আশা করি আনারসের কাছে নৌকা প্রতীকের ভরাডুবি হবে।”
এবিষয়ে পাহাড়িয়াকান্দির আনোয়ার হোসেন বলেন, “পাহাড়িয়াকান্দিতে আওয়ামী লীগের রাজনীতি ধরে রাখতে আমাদের পরিবারের অনেক অবদান আছে দলের জন্য। আমার বাবা পাঁচবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে। তাকে এবার মনোনয়ন দেওয়া হয়নি। এ জন্য আমি স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দল আমাকে বাদ করলে করুক, তাতে আমার কিছু হবে না। আমি জেনে শুনেই বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছি।”
ছলিমাবাদ ইউনিয়নের এরশাদ আলী বলেন, “দল থেকে মূল্যায়ন পাইনি। তাই বিদ্রোহী হিসেবে মনোনয়ন নিয়েছি। আশা করি, আমার জয় হবেই।”
এব্যাপারে ছলিমাবাদের বিদ্রোহী প্রার্থী মদন মিয়া চিশতী বলেন, “দল আমাকে যোগ্যতার বিবেচনা না করায় আমিও দলের সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারিনি। তাই ভোটারের ভোটে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে আমি জয় লাভ করব। একজন অযোগ্য লোককে দল মনোনয়ন দিয়েছে।”
এবিষয়ে তেজখালী ইউপির চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের কর্মী গাজী ফাইজুর রহমান ফাজিল বলেন, “তাজ সাহেব আমাকে নমিনেশন দেয়নি। তাই আমি নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে এবং তাজ সাহেবের রায়ের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতেছি। আশা করি আমার কাছে আওয়ামী লীগের পরাজিত হবে।”
এবিষয়ে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম বলেন, “যারা দলের সিদ্ধান্তের বাইরে মনোনয়নপত্র জমা নিয়েছেন তাদের ব্যাপারে আমরা দলীয় ফোরামে আলোচনা করে কঠোর ব্যবস্থা নিব। দলীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে যেখানে প্রার্থী মনোনীত করা হয়েছে সেখানে আবার কিসের বিদ্রোহী।”
এদিকে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মান্নান বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে ৯টি ইউনিয়নে একক প্রার্থী দেওয়া হয়েছে। দলের বাইরে যদি কেউ প্রার্থী হয় তবে তার বিরুদ্ধে নেওয়া হবে।
সুষ্ঠু নির্বাচন হলে সবগুলো ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থীরা বিপুল ভোটে জয় লাভ করবে।