মঙ্গলবার, ৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশে বিদ্যা ত্রিশে ধন চল্লিশে কাশির বৃন্দাবন — শ্রমিক নেতা হাজী জমসেদ

Haji Jamshed Photo Newsমানুষের জীবনটা সত্যি সত্যিই এতো অল্প সময়ের, যে এখানে সময়ের কাজ সময় মত না করতে পারলে সেই দিন বার বা তারিখ এই জীবনে আর ফিরে আসে না, আসবে না। কথায় আছে নদী ও সময়ের স্রোত কারো জন্য অপেক্ষা করে না। প্রবাদ মোতাবেক বিশ বছর বয়সের মধ্যেই একজন মানুষকে বিদ্যা অর্জন করে ফেলতে হবে। এরপর আয় রোজগারের পালা। বাণিজ্য চাকুরী জোগার করে ত্রিশ বছর বয়সের মধ্যে ধন সম্পদ উর্পাজন বা জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা গ্রহণ করিতেই হইবে। যাতে করে বিয়েটা করে সংসার ধর্মও পালন করা যায়। এই সংসার ধর্ম পালন করার পর মাঝ পথেই পূণ্য কর্ম করার জন্য কাশি যাবার কথা বলা হয়েছে। আর আমাদের ইসলাম ধর্মে হজের কথা রয়েছে। তবে আমার জীবনে একবার পবিত্র হজ পালন করে এসে যেটুকু বুজেছি হজ্ব করার জন্য মানুষ বৃদ্ধ বয়সটাকে উত্তম মনে করে। এটা ঠিক নয়। কারণ এ সময় শরীরের ভাটির সময়। জোর শক্তি কমে যায়। এ জন্যই আমার মনে হয়েছে যৌবন বয়সে যদি হজ্বে যেতে পারতাম তাহলে শারিরিক কষ্ঠ একদিকে কম হত, অন্য দিকে সকল আহকাম সহিযুদ্ধ ভাবে পালন করা আরো বেশি সহজ হতো।
যদি কোন যুবক মনে করে বিশের ভেতর বিদ্যা অর্জন করবে, তাহলে তার জন্য কঠিন তপস্যা অর্জন করা প্রয়োজন হবে। কারণ বইকেই তখন একমাত্র বন্ধু ও আপনজন মনে করতে হবে। আজকের যুবকরা পারছে না। কেন? অবশ্যই সবাই নয় কেউ কেউ মাত্র। এর পেছনের কারণ তারা বইকে শোকেজে সাজিয়ে ছাত্রত্ব জাহির করে মাত্র। অপরদিকে বন্ধু- বান্ধবের পাল্লায় পড়ে বিশ পাড় করে ত্রিশে চলে যায়, অর্থাৎ তার বন্ধুরা তাকে টেনে সেখানে নিয়ে যায়, কারণ ঐসব বখাটে বন্ধুরা চায় না যে পড়াশুনা করে তার উপরে চলে যাক। হিংসার কারণে মাদকসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে তাকে বিশের বিদ্যা অর্জনে বাধা দেয়। ত্রিশের ধন অর্জনের সময় নেশায় ডুবিয়ে রাখে। এইসব কারণে ঐসব কথিত যুবকদের জীবন উল্টা পথে হাটে। তারা কাশির বৃন্দাবনের উপলদ্ধি কি তাও বুঝতে পারে না। কারণ জীবন খুবই ছোট। সময় বুঝে কাজ না করলে এই ছোট সময়ে অনেক কাজ বাকি থাকে।

এ জাতীয় আরও খবর