সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘অনিয়মের অভিযোগে পরাজিতরা মামলা করতে পারেন’

axzস্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, প্রথম দুইধাপে অনুষ্ঠিত উপজেলা  নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে। তৃতীয় ধাপ থেকে সহিংসতা শুরু। তবে যেহেতু সব জায়গায় কারচুপি বা সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি তাই সামগ্রিকভাবে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা যায় না। এজন্য নির্বাচন কমিশনের উচিত জেলা বা উপজেলা ভিত্তিক তদন্ত করা। সেই তদন্ত রিপোর্ট অতিদ্রুত প্রকাশ করে মাঠে কর্মরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া। আর যারা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছে তাদের শপথের  ব্যবস্থা  করতে হবে। আর কারচুপির ও ভোট জালিয়াতির কারণে যেসব প্রার্থী পরাজিত হয়েছেন তাদের উচিত ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করা। অভিযোগ প্রমাণে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার সংবাদ ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে নির্বাচন কমিশনকে সেসব সংবাদের সত্যতা যাচাই করতে হবে। নির্বাচন প্রসঙ্গে মানবজমিনকে দেয়া প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোতে যে ভূমিকা রেখেছে তাতে করে কমিশনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনে যে ধরণের অনিয়ম ও সহিংসতা হয়েছে এতে করে ভবিষ্যত নির্বাচনগুলোতে কোন প্রকার প্রভাব পড়বে কি না এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনী ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে তার সমাধান করতে হলে অনেক গভীরে যেতে হবে। পঞ্চদশ সংশোধনীর কারনে বর্তমানে যে সরকার ব্যবস্থা ও বিধানগুলো রয়েছে তার যথার্থতা পুনমূল্যায়ন করতে হবে। নির্বাচন কমিশন প্রশাসনে যে দলীয়করণ হচ্ছে তা দূর করতে হবে। নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য রাজনৈতিক দলের উপরের পর্যায়ের নেতাদের মানসিকতার পরিবর্তন আনতে হবে।