বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সরাইলে ভোট জাল জালিয়াতি ও কারচুপির অভিযোগ

Ele-3ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও সাবেক উপমন্ত্রী এডভোকেট হুমায়ুন কবীরের পতœী বিশিষ্ট নারী নেত্রী নায়ার কবির ব্যাপক ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে ১৩টি কেন্দ্রে পুনরায় নির্বাচনের দাবী জানিয়েছেন। সোমবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি এ দাবী জানান। তিনি অভিযোগ করেন, সরাইল উপজেলার এম. এ. বাশার আইডিয়াল ইনস্টিটিউট, উচালিয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরাইল অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, গলানিয়া, পরমান্দপুর, ফতেহপুর ও আশুগঞ্জ উপজেলার বড়তলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চরচারতলা কেন্দ্রসহ ১৩টি কেন্দ্রে ব্যাপক কারচুপি করা হয়। বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে তার এজেন্টদের বের করে দিয়ে ভোট ছাপানো ও জাল ভোট দেয়া হয়েছে। এডভোকেট জিয়াউল হক মৃধার সমর্থক ও আওয়ামীলীগ নেত্রী শিউলী আজাদ, উপজেলা যুবলীগ নেতা শের আলম, এডভোকেট আশরাফ উদ্দিন মন্তু, কামাল মৃধা বিভিন্ন কেন্দ্রে ভয় ভীতি দেখিয়ে ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাধা দেয়। এমনকি আমার পোলিং এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়। তিনি দাবী করেন আশুগঞ্জ ও সরাইলের বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে ককটেল ফাটানো হয়। এতে ভোটারদের মধ্যে তীব্র আতংক সৃষ্টি হয়। সে কারনে ভোটাররা ভোট দিতে পারেন নি। সরাইলের নির্বাহী কর্মকর্তা জাল ভোট সহ কয়েকটি ব্যালট পেপার জব্দ করেন। নায়ার কবির সাংবাদিক সম্মেলনে ১৩টি ভোট কেন্দ্রে  নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় স্বচ্ছ ভোট গ্রহনের জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি দাবী জানিয়েছেন। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ৫জন কে ভ্রাম্যমান আদালত যে সাজা দিয়েছে তা থেকেই বুঝতে পারেন কি ভাবে ভোট ছাপানো হয়েছে। সরাইলের সাধারন ভোটার ও তার সমর্থকরা ভোট ছাপানোর ঘটনায় দারুন ভাবে ক্ষুব্দ বলে তিনি সাংবাদিকদের অবহিত করেন। সাংবাদিক সম্মেলনে নায়ার কবিরের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট মোঃ জাকির হোসেন, আওয়ামীলীগ নেত্রী শাহানা খায়ের ও হাসনা বেগম উপস্থিত ছিলেন। এসময় ব্রাহ্মনবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি সৈয়দ মিজানুর রেজা, সাধারন সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন জামি সহ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এবং সিনিয়র সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন।