বৃহস্পতিবার, ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সবজি চাষ করে স্বপ্নপূরণ প্রবাস ফেরত দুই বন্ধুর

news-image

তৌহিদুর রহমান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: [২] কৃষি খামার গড়ে এলাকায় তাক লাগিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় প্রবাস ফেরত দুই বন্ধু। উপজেলার বিছনা নদীর পাড়ে নিজেদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে সফল হয়ে কর্মসংস্থানের পাশাপাশি নিজেদের স্বপ্নপূরণ করে চলছেন। সে সাথে উন্নত জাতের শাক-সবজি চাষ করে বছরে আয় করছেন প্রায় কোটি টাকার মতো। কৃষিতে তাদের এই সফলতা দেখে এলাকার প্রান্তিক পর্যায়ে অনেক সবজি চাষী অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন। তাদের বাগানের কৃষিপণ্য এলাকার চাহিদা মিটিয়ে জেলার বিভিন্ন উপজেলায়ও সরবরাহ হচ্ছে।

[৩] জানা যায়, প্রবাস ফেরত দুই বন্ধু এমদাদুল হক ও কবির আহাম্মদ এক যুগেরও বেশি সময় প্রবাস জীবন শেষে ২০১২ সালে দেশে ফিরে এসে নিজ এলাকায় একটি কৃষি খামার গড়ার পরিকল্পনা করেন। পরে উপজেলা কৃষি অফিসের পরামর্শে তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৫ বিঘা কৃষি জমি পত্তন নিয়ে খামারের যাত্রা শুরু করেন। শুরুতে দুই বন্ধু ১৩ লাখ টাকা পুঁজি খাটিয়ে চাষ করেন বিভিন্ন জাতের কৃষি পণ্য। প্রথমে দুই বছর লাভের মুখ না দেখলেও পরের বছর থেকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাদের। বর্তমানে প্রায় ৫০ বিঘা জমিতে পরিণত হয়েছে এই কৃষি খামারটি। এখানে প্রায় ৪০/৫০ জন নারী-পুরুষ নিয়মিত কাজ করছে। বর্তমানে খামার থেকে বছরে আয় হয় প্রায় কোটি টাকার মতো।

[৪] দেশি- বিদেশি ও উন্নত জাতের আগাম জাতের টমেটো, শসাসহ ঋতুভিত্তিক শাক সবজি এবং আগাম জাতের তরমুজ ও চাষ হচ্ছে। এবছর খামারের ৩৫ বিঘা জমিতে চাষ করেছেন শীতকালীন আগাম জাতের টমেটো। খামার থেকেই প্রতি কেজি টমেটো পাইকারী ৬০ থেকে ৭০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। প্রতি মাসে কর্মীদের বেতন দিচ্ছেন ৬ লাখ টাকার উপরে। পাশাপাশি আগ্রহী বেকার যুবকদেরও কৃষিকাজে উৎসাহ দিচ্ছেন।

[৫] খামার মালিক এমদাদুল হক ও কবির আহাম্মদ বলেন,  টানা দুই বছর অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। তারপর থেকেই আমাদের সফলতা শুরু। সরকারের সহযোগিতা পেলে গ্রীন হাউজ করার কথা জানান তারা। সব সময় আগাম জাতের শাক সবজি চাষ করি। এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।  আগাম জাতের কৃষিপন্যগুলো বাজারজাত করার চেষ্টায় ব্যস্ত থাকি।

[৬] তারা আরো বলেন, আমরাও লাভবান হচ্ছি সাথে বেকার নারী-পুরুষদের কর্মসংস্থান করতে পেরে আমরা আনন্দিত।

[৭] উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজেরা বেগম বলেন, দেশের কৃষি বর্তমানে দিন দিন বাণিজ্যিক কৃষিতে পরিণত হচ্ছে। কৃষিজাত ফসল চাষাবাদ করে সফল হওয়া যায় এমন দৃষ্টান্ত এখন প্রবাস ফেরত দুই বন্ধু। তারা গ্রীষ্মকালীন, শীতকালীন ফসল চাষ করে প্রচুর পরিমানে লাভবান হচ্ছেন।