মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ধানের সরবরাহ বাড়ায় জমজমাট আশুগঞ্জ মোকাম

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া: দেশের পূর্বাঞ্চলের বৃহত্তম পাইকারী ধানের বাজার হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ মোকাম। প্রতি বছরের মত এবারও মৌসুমের নবান্নের ধানে জমজমাট হয়ে উঠেছে এই মোকাম। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বিক্রেতা, বেপারি ও ক্রেতাদের হাঁকডাকে মুখরিত হয়ে উঠছে বৃহৎ এ ধানের মোকাম। সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিস্তীর্ণ হাওর অঞ্চল থেকে কৃষকরা তাদের উৎপাদিত নতুন ধান নিয়ে আসে আশুগঞ্জ মোকামে। প্রতিদিন কেনাবেচা হচ্ছে কয়েক কোটি টাকার ধান। যা আরও বাড়বে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। আর ধানের সরবরাহ বাড়ায় ধানের বস্তা উঠা-নামানোর কাজে জড়িত শ্রমিকদের বেড়েছে দৈনন্দিন আয়।
সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শতাব্দীর প্রাচীন এই মোকামে বিআর-২৮, ২৯, ৩৯ ও ৪৯ জাতের ধান কেনাবেচা হয়। এর মধ্যে বিআর ২৮ ও ২৯ জাতের ধানের চাহিদা থাকে সবচেয়ে বেশি। মৌসুমে প্রতিদিন কেনাবেচা হয় কয়েক কোটি টাকার ধান। প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ক্রেতা-বিক্রেতার কৌলাহলে মূখর থাকে এই মোকাম। তবে গেলো ফেব্রুয়ারির শেষ ভাগ থেকে এপ্রিলের মাঝামাঝি পর্যন্ত ধানের কিছুটা সংকট দেখা দেখা দিয়েছিল। সময়ের ব্যবধানে নতুন ধানের সরবরাহ বাড়ায় সেই সংকট কেটে আবারও জমজমাট হয়ে উঠেছে ধানের বেচাকেনা।
মোকামের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, এই মোকাম থেকে ধান কিনে নেন চালকল মালিকরা। মূলত জেলার আড়াইশ চালকলে ধানের যোগান হয়ে থাকে পূর্বাঞ্চলের সবচেয়ে বড় এই মোকাম থেকে।তবে এবার বোরো মৌসুমে ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ আশেপাশের হাওরাঞ্চলে ব্লাস্ট রোগে বিআর-২৮ ধানের ক্ষতি হয়েছে। ফলে চালকল মালিকদের চাহিদার থাকা এই ধানের কিছুটা সংকট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে মোকামে বিআর-২৯ ও মোটা ধান বেশি মিলছে। আর স্বল্প পরিমাণে মিলছে বিআর-২৮ ধান। প্রতিমণ বিআর-২৮ ধান কেনাবেচা হচ্ছে ১০৮০ থেকে ১১০০ টাকায়। বিআর-২৯ ধান প্রতি মণ ৮৭০ টাকা এবং মোটা ধান কেনাবেচা হচ্ছে ৭৬০ টাকা দরে। মোকামে বিআর-২৮ জাতের ধানের আমদানি আশানুরুপ না আসায় চালের দাম কিছুটা বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
আশুগঞ্জ চালকল মালিক সমিতির সদস্য হাসান ইমরান বলেন,বৈশাখ মাস এখন নতুন ধান আসতে শুরু করেছে। প্রচুর ধান আসছে,  ফলে ধানের সংকট নেই বললেই চলে। আমাদের বিআর ২৮ ধানটা বেশ প্রসিদ্ধ ছিল। কিন্তু এই ধানের ফলন এবার কম হওয়া চাহিদা আরোও বেড়ে গেছে। আমরা চেষ্টা করছি বিআর ২৮ ধানে চাহিদাটা কিভাবে বিআর ২৯ ধান দিয়ে পূরণ করা যায়।