বুধবার, ১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘আতঙ্কে’ মহাসড়কে কমেছে গাড়ি, যাত্রীও কম

news-image

গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের ঢাকা-টাঙ্গাইল ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অন্য দিনের চেয়ে দূরপাল্লার বাস কম চলতে দেখা গেছে। আর যেসব বাস চলছে, সেই গাড়িগুলোতে যাত্রীর সংখ্যা ছিল তুলনামূলকভাবে কম। তবে লোকাল বাস চলাচল অনেকটাই স্বাভাবিক রয়েছে।

শুক্রবার ছুটির দিন হলেও ঢাকায় বিএনপি’র সমাবেশ ও সম্ভাব্য বিশৃঙ্খলাকে কেন্দ্র করে চালক এবং যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানিয়েছেন তারা। তবে যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে দুটি মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বাড়িয়েছে পুলিশ।

আজ সকালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের শ্রীপুরের মাওনা, জৈনা বাজার এবং চান্দনা-চৌরাস্তা মোড় ও ভোগড়া বাইপাস এলাকায় দেখা যায়, লোকাল বাস চলাচল অনেকটাই স্বাভাবিক। তবে দূরপাল্লার বাস সংখ্যা ছিল খুবই কম। এসব বাসে যাত্রীও ছিল কম।

শুক্রবার সকালে গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন থাকলেও চোকপোস্ট ছিল মাঝে মধ্যে। তবে এ মহাসড়কে মহানগর পুলিশের টহল গাড়ি ও সাঁজোয়া গাড়ি নিয়ে সাইরেন বাজিয়ে ডিউটি করতে দেখা গেছে পুলিশ সদস্যদের।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের ট্রাফিক (উত্তর) বিভাগের সার্জেন্ট মো. মসিউর রহমান জানান, মহাসড়কে শৃঙ্খলা রক্ষায় বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ ডিউটি করছে। তবে এদিন সকালে অন্য সময়ের চেয়ে দূরপাল্লার বাস ও যাত্রী অনেক কম দেখা গেছে। অন্য সময় সরকারি ছুটির দিন মহাসড়কে গাড়ি ও যাত্রী বেশি থাকায় আমাদের ডিউটি করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয়।

আজ সকালে ময়মনসিংহ মহাসড়কের চান্দনা-চৌরাস্তা এলাকায় কথা হয় কয়েকজন পরিবহন চালক-শ্রমিকের সঙ্গে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে চলাচলকারী ড্রিমল্যান্ড পরিবহনের বাস চালক নুর মোহাম্মদ বলেন, ‘আমাদের মধ্যে একটা আতঙ্ক কাজ করছে। কখন না যেন গাড়ি হামলার শিকার হয়। তবে আজ চলাচলের পথে আমরা কোথাও পুলিশি হয়রানির শিকার হইনি।’

একই কথা বলেন ওই সড়কে চলাচলকারী সৌখিন পরিবহনের শ্রমিক (হেলপার) মো. রাশেদুল ইসলাম, শ্যামলী বাংলা পরিবহনের বাসচালক উত্তম কুমার, মায়িশা পরিবহনের হেলপার মো. রেজওয়ান, ইমাম পরিবহনের বাবলু মিয়া। তারা জানান, শুক্রবার বাস মালিকের গাড়ি চলাচলে কোনও বাধা ছিল না।

ড্রিমল্যান্ড পরিবহনের যাত্রী মো. আক্কাছ আলী বলেন, ‘ঢাকায় বিএনপির গণ্ডগোলের কথা ভেবে যাত্রা করবো না ভেবেছিলাম। কিন্তু পারিবারিক জরুরি প্রয়োজনে আমাকে ঢাকা যেতেই হচ্ছে। যদিও অন্য সময়ের চেয়ে রাস্তায় দূরপাল্লার গাড়ি ও যাত্রীর সংখ্যা খুব কম দেখা যাচ্ছে। আমাদের এ বাসে অর্ধেকেরও কম সংখ্যক যাত্রী নিয়ে চালক ময়মনসিংহ থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।’

গাজীপুর মহানগর পুলিশের কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘রেলস্টেশনগুলোতে আমাদের চেকপোস্ট রয়েছে। মহাসড়কে পুলিশি টহল বাড়ানো হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ ও সাঁজোয়া গাড়ি নিয়েও সেখানে তারা টহল দিচ্ছে। সর্বত্র আমরা সতর্ক অবস্থায় আছি। আমরা মনে করি আমাদের শহরটা নিরাপদ থাকবে। এখানে কেউ কিছু করতে পারবে না। আমরা এখানকার শৃঙ্খলা বজায় রাখবো।’

মহাসড়কে চেকপোস্টের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রয়োজন মনে করলে চেকপোস্ট বসাচ্ছি, প্রয়োজন না হলে বসাচ্ছি না। তবে মহাসড়কগুলোতে দূরপাল্লার গাড়ি কম রয়েছে। লোকাল গাড়ি চলাচল অনেকটাই স্বাভাবিক।’

মাওনা হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কংকন কুমার বিশ্বাস জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গাজীপুরের জৈনাবাজার, নয়নপুর, মাওনাসহ কয়েক স্থানে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।

জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহতাব উদ্দিন বলেন, ‘বিশেষ অভিযানের অংশ হিসেবে বাঘের বাজার ও মির্জাপুর বাজার এলাকায় চেকপোস্ট বসানো হয়েছে।’

মাওনা চৌরাস্তার চেকপোস্টে কর্তব্যরত শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সাদিকুর রহমান জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের স্থানে স্থানে প্রয়োজন অনুযায়ী চেকপোস্ট বসানো হচ্ছে। এ সময় মহাসড়কের চলাচলকারী ছোট বড় যানবাহনগুলোর রেজিস্ট্রেশন, ফিটনেসসহ যাবতীয় কাগজপত্র যাচাই করা হচ্ছে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান জানান, নিরাপত্তার স্বার্থে অবৈধ অস্ত্র, মাদক উদ্ধার ও অবৈধ যানবাহনের বিরুদ্ধে চেকপোস্টের মাধ্যমে পুলিশি টহল চলছে।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের কালিয়াকৈরের চন্দ্রা এলাকায় শুক্রবার দুপুরে দেখা গেছে, উত্তরবঙ্গের প্রবেশদ্বার গাজীপুরের চন্দ্রা ত্রি-মোড়ে গাড়ি ও যাত্রীদের তল্লাশি অব্যাহত আছে। এই পথ দিয়েই উত্তরবঙ্গের সব গাড়ি ঢাকায় প্রবেশ করে থাকে। চন্দ্রায় দুটি চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। সেখানে সন্দেহভাজন মোটরসাইকেল, পিকআপভ্যান, দূরপাল্লার বাস, ট্রাকের গতিরোধ করে জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশি করছে তারা।

এদিকে যাত্রী কম থাকার কথা বলছে উত্তরবঙ্গের পরিবহন চালকেরা। সিরাজগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী এসআই পরিবহনের এক বাস চালক জনি বলেন,‘অদৃশ্য ভয়ে লোকজন বাসা থেকে বের হয়নি। যেখানে গাড়িভর্তি যাত্রী থাকে সেখানে আজ ১০-১২ জন যাত্রী নিয়ে চলতে হচ্ছে।’ প্রায় একই কথা জানান ঢাকা-উত্তরবঙ্গগামী চলাচলকারী আলম পরিবহনের চালক আবু তাহের।

গাজীপুরের পুলিশ সুপার কাজী শফিকুল আলম বলেন, ‘যেকোনও ধরনের নাশকতা ঠেকাতে দেশের সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ তৎপর রয়েছে। ১২টির বেশি চেকপোস্ট বসিয়ে মহাসড়কসহ বিভিন্ন সড়কে চলাচলকারী যাত্রী, যানবাহন ও চালকদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ, সাদা পোশাকের পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’

 

এ জাতীয় আরও খবর

আমি আহলে হাদিসের অনুসারী, পকেটে দুই কোটি ভোট : রহমতুল্লাহ

স্বাস্থ্যের ৪ পরিচালককে বদলি, নিপসমে সেব্রিনা ফ্লোরা

ভুল তথ্যে র‌্যাবের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল আমেরিকা : সংসদে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকা থেকে ছিটকে গেলেন আদানি

বাণিজ্য মেলায় ১০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি

আইএমএফের শর্ত মেনে গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়াচ্ছে সরকার : আনু মুহাম্মদ

৪ ঘণ্টায়ও নিয়ন্ত্রণে আসেনি মোংলা ইপিজেডের আগুন

সাহস থাকলে দেশে মামলা ফেস করুন, তারেককে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নির্বাচন কমিশনারের স্বাক্ষর জাল, তিন এনআইডি লকড

ইউক্রেনের ‘পাশে নেই’ হাঙ্গেরি-অস্ট্রিয়া

কপাল পুড়ল শ্রীরামের

হাথুরুসিংহেই টাইগারদের কোচ