বুধবার, ১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেয়াদ নেই দায়িত্ব আছে

news-image

ফারুক হোসাইন, জাবি : প্রায় পাঁচ বছর সিনেট, সিন্ডিকেট, ডিন ও অর্থ কমিটির নির্বাচন হচ্ছে না জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে। ফলে সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পর্ষদ সিন্ডিকেটের ১৯টি পদের মধ্যে ৮টিই শূন্য, আরও ৮টি মেয়াদোত্তীর্ণ। পদাধিকার বলে বাকি তিনটি পদে রয়েছেন নিয়মিত সদস্য। নিয়মিত তিনজনের সঙ্গে মেয়াদোত্তীর্ণ ৮ জনএই ১১ জনকে নিয়ে চলছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট। এদিকে নির্বাচিত কোনো ডিনেরই মেয়াদ নেই। অর্থ কমিটি এবং সিনেটের নির্বাচিত ও মনোনীত সদস্যদেরও সবার মেয়াদ শেষ হয়েছে। তাই এসব পর্ষদে নির্বাচন দেওয়ার জন্য শিক্ষকদের মধ্য থেকে বিভিন্ন সময়ে দাবি উঠেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১১ সালের পর থেকেই সিন্ডিকেটের কোনো না কোনো পদ ফাঁকা থেকেছে। তবে এটি প্রকট আকার ধারণ করে করোনাকালে। তখন কোরাম পূর্ণ (৬ জন) না হওয়ায় সভা বিলম্বের মতো ঘটনাও ঘটেছে। বর্তমানে সিন্ডিকেটের সভাগুলো অনুষ্ঠিত হচ্ছে আট থেকে ৯জনকে নিয়ে। যেখানেই নেওয়া হচ্ছে নিয়োগ চূড়ান্ত করাসহ বিশ^বিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ সব সিদ্ধান্ত। রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের তথ্যমতে, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) পদে কেউ না থাকায় সিন্ডিকেটের এই পদটি খালি রয়েছে। ’৭৩-এর অধ্যাদেশের ২২ (১)(ডি) ধারা অনুযায়ী, সিন্ডিকেটে একাডেমিক কাউন্সিল মনোনীত সরকারি কলেজের দুজন অধ্যক্ষের মধ্যে একটি পদ খালি, আরেকটি মেয়াদোত্তীর্ণ। ডিন, প্রাধ্যক্ষ, অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক ও প্রভাষক পদে একজন নির্বাচিত হয়ে সিন্ডিকেটের সদস্য হন। কিন্তু দীর্ঘদিন নির্বাচন না হওয়ায় শিক্ষকদের পদোন্নতি ও সংশ্লিষ্ট পদ হারানোর কারণে অধ্যাপক ক্যাটাগরি ছাড়া অন্য পাঁচটি পদ শূন্য হয়েছে। ২০১৬ সালের ৫ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ে সবশেষ সিন্ডিকেট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সে হিসেবে ২০১৮ সালের জুনে নির্বাচিত সব সদস্যের মেয়াদ শেষ হয়। তবে উপাচার্য, উপ-উপাচার্য এবং কোষাধ্যক্ষের সঙ্গে বাকি আটজন মেয়াদোত্তীর্ণ সদস্য নিয়েই সিন্ডিকেট পরিচালিত হচ্ছে।

রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের তথ্য বলছে, বিশ্ববিদ্যালয়ে সবশেষ ডিন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালের ১০ মে। অধ্যাদেশের ২৫(৫) ধারা অনুযায়ী ডিনের মেয়াদ দুই বছর। সেই হিসেবে সকল ডিন মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছেন সাড়ে চার বছর আগে। তবে নির্বাচিত ওই ডিনদের মধ্যে এখন মাত্র একজন দায়িত্ব পালন করছেন। বাকি পাঁচটিতেই ভারপ্রাপ্ত ডিনরা দায়িত্বে রয়েছেন।

এদিকে অধ্যাদেশ অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটের সদস্য হবেন ৯৩ জন। এর মধ্যে গত আড়াই যুগ ধরে জাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন না হওয়ায় সিনেটে ছাত্র প্রতিনিধির পাঁচটি পদ খালি রয়েছে। বাকি ৮৮ জনের মধ্যে পাঁচজন হলেন সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা। ২০১০ সালের পর সরকার থেকে এই ক্যাটাগরিতে নতুন করে কাউকে মনোনীত না করায় এই পদগুলো শূন্য রয়েছে। এ ছাড়া সিনেটে স্পিকার মনোনীত পাঁচজন সংসদ সদস্য, রাষ্ট্রপতি মনোনীত পাঁচজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, সিন্ডিকেট মনোনীত পাঁচজন গবেষক এবং একাডেমিক কাউন্সিল থেকে পাঁচজন কলেজ অধ্যক্ষ রয়েছেন। তবে এদের মধ্যে শিক্ষাবিদদের মেয়াদ শেষ হয় ২০১৮ সালে। আর বাকি ২০ জনের মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০১৯ সালের জুলাইয়ের আগে। সিনেটের বাকি ৬৩ সদস্যের মধ্যে ৫৮ জন নির্বাচিত হয়ে আসেন। এর মধ্যে ২৫ জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি এবং ৩৩ জন শিক্ষক প্রতিনিধি। ২০১৭ সালের ৩০ ডিসেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ে সর্বশেষ রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন হয়। তিন বছর মেয়াদি এই সিনেট সদস্যদের মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর। আর শিক্ষক প্রতিনিধিদের নির্বাচন হয়েছে সবশেষ ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর। সে হিসেবে চার বছর আগে মেয়াদ শেষ হয়েছে তাদের। সিনেটের বাকি পাঁচজন সদস্য (পদাধিকার বলে) হলেন উপাচার্য, উপ-উপাচার্যদ্বয়, ট্রেজারার এবং ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান।

তবে অধ্যাদেশের ১৯ (২) ধারা অনুযায়ী ‘সিনেটরদের দায়িত্ব ততক্ষণ পর্যন্ত বহাল থাকবে, যতক্ষণ না তাদের উত্তরাধিকার নির্বাচিত, মনোনীত ও নিয়োগপ্রাপ্ত হয়।’ এই ধারাবলে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন মেয়াদোত্তীর্ণ ৮৩ সিনেটর।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন উপ-উপাচার্য থাকায় বর্তমানে অর্থ কমিটির সদস্য হওয়ার কথা ৯ জন। তবে এর মধ্যে একাডেমিক কাউন্সিল মনোনীত একজন ডিন এবং সিনেটের একজন প্রতিনিধির পদ খালি। বাকিদের মধ্যে শিক্ষক সমিতির একজন প্রতিনিধি, সিন্ডিকেট মনোনীত একজন শিক্ষক এবং দুজন অর্থ বিশেষজ্ঞের মেয়াদ শেষ হয়েছে। অর্থ কমিটিতেও পদাধিকার বলে বৈধ মেয়াদে রয়েছেন শুধু উপাচার্য, উপ-উপাচার্য এবং কোষাধ্যক্ষ।

এসব বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক মঞ্চের আহ্বায়ক ও দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘ক্ষমতাকেন্দ্রিক কাঠামো টিকিয়ে রাখা বা স্বাচ্ছন্দ্যে থাকার জন্যই নির্বাচন দেওয়া হচ্ছে না। নির্বাচন না দেওয়ার পেছনে এখন তো কভিড-১৯ মহামারীর মতো কোনো অজুহাতও নেই। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখে বিভিন্ন পর্ষদের সদস্য নবায়ন না করার ফলে প্রশাসনের জবাবদিহিতার জায়গা প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে না।’

তবে এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. নূরুল আলমের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘নতুন উপাচার্য দায়িত্ব গ্রহণের পর এসব পর্ষদে নির্বাচন দেওয়ার ব্যাপারে আলোচনা হয়েছিল। একে একে নির্বাচন আয়োজনের পরিকল্পনা রয়েছে।’

 

এ জাতীয় আরও খবর

মাতৃভাষার মাস শুরু আজ

২১০ রান টপকে অবিশ্বাস্য এক জয় কুমিল্লার

বগুড়ায় উপ-নির্বাচন : নেতাকর্মীরা ভোটকেন্দ্রে গেলেই ব্যবস্থা নেবে বিএনপি

আগুন নিয়ন্ত্রণে মোংলা ইপিজেডের

নিজেদের ইচ্ছামতো বিশ্ববিদ্যালয় চালানো যাবে না : রাষ্ট্রপতি

বিএনপির ছেড়ে দেওয়া ৬ আসনে ভোটগ্রহণ আজ

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকুলের অফিস থেকে ঘরে ফেরা হলো না

আমি আহলে হাদিসের অনুসারী, পকেটে দুই কোটি ভোট : রহমতুল্লাহ

স্বাস্থ্যের ৪ পরিচালককে বদলি, নিপসমে সেব্রিনা ফ্লোরা

ভুল তথ্যে র‌্যাবের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল আমেরিকা : সংসদে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকা থেকে ছিটকে গেলেন আদানি

বাণিজ্য মেলায় ১০০ কোটি টাকার পণ্য বিক্রি