সোমবার, ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাবা মারা গেলে যে কষ্ট পেয়েছি, ঠিক একই কষ্ট পেয়েছি কিশোরদার চলে যাওয়ায়

news-image

কিশোরদার মৃত্যুবার্ষিকী নিয়ে কথা বলতে হবে এটা আসলে কখনই ভাবিনি। তিনি ছিলেন প্রাণশক্তিময় একটা মানুষ। ওনার মনের জোর এত বেশি ছিল, প্রত্যেকটা গান রেকর্ডিংয়ে ওনার যে উপস্থিতি, আমি যত গান গেয়েছি, কখনো এক সেকেন্ডের জন্য ওনার মুড অফ হতে দেখিনি। খুবই প্রাণচঞ্চল ও ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ ছিলেন। ওনার গানের জন্য যে উপস্থিতি, তার চেয়েও ওনার ব্যক্তিত্বসম্পন্ন উপস্থিতি ছিল খুবই দেখার মতো। যত বার গান গাওয়ার সময় দেখা হয়েছে, প্রতিবারই মনে হয়েছে কিছু না কিছু শিখেছি। বারবার একটা কথা বলি, আমরা আসলেই ওনার কাছ থেকে সাহস নিতাম। যে কোনো সমস্যায় পড়লে ওনাকে বলার সঙ্গে সঙ্গে খুব বড় মন নিয়ে সেটাকে সমাধান করে দিতেন। একজন মানুষ এন্ড্রু কিশোর, সেই জিনিসটা কখনই ভাবতে পারি না যে উনি আমাদের মাঝে নেই। আর ওনার মৃত্যুবার্ষিকী নিয়ে স্মৃতিচারণ করতে হবে! এর একটা কারণ হলো, ওনাকে কখনো আমি অসুস্থ হতে দেখিনি। যখন অসুস্থ হওয়া শুরু করলেন তখনই সিঙ্গাপুর চলে গেলেন। যখন ফিরে এলেন তখন একদম শেষ অবস্থায়। সেজন্য আমরা ওনাকে বিছানায় পড়ে থাকতে দেখিনি। উনি যখন সিঙ্গাপুরে ছিলেন তখন আমার সঙ্গে ফোনে খুব বেশি কথা হয়েছে এটা বলব না। আমি খুবই দ্বিধায় থাকতাম। অন্যশিল্পীরা কথা বলত, কিন্তু আমার কেমন জানি ভয় হতো ওনার সঙ্গে কথা বলতে। মন এতটাই ভেঙে গিয়েছিল যে, আমি মাত্র দু-একবার কথা বলেছি। আমার যেটা আসল কাজ দোয়া করা, সেটা যতবার নামাজ পড়তাম ততবারই আল্লাহর কাছে রোগমুক্তি কামনা করেছি। ব্যক্তি এন্ড্রু কিশোরের বাইরে, শিল্পী হিসেবে যদি বলি তা হলে প্রথমে যে গানটার কথা বলব, সেটা হলো- ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে…’। এই গান দিয়েই একদম এক ঝটকায় সমস্ত বাংলাদেশি শ্রোতার মোর ঘুরিয়ে দিলেন। এর আগে সবাই আরও অনেকের গান শুনত, কিন্তু তখন থেকে যেন সবাই বলতে থাকলেন এন্ড্রু কিশোর, এন্ড্রু কিশোর, এন্ড্রু কিশোর! এ রকম একটা ব্যাপার ছিল।

ফিল্মের গানে শিল্পীর প্রধান কাজটা যেটা থাকে সেটা হলো সারা স্ক্রিন ভরিয়ে রাখা। আপনারা খেয়াল করলে দেখবেন যে, দেশে তো অনেক ক্যাটাগরির কণ্ঠশিল্পী আছেন, কিন্তু প্লেব্যাক শিল্পীর সংখ্যা খুবই কম। এর কারন হলো- প্লেব্যাক যিনি করবেন তার কণ্ঠ হতে হয় শক্তিশালী। হলরুমের বড় স্ক্রিনটা ভরে থাকতে হয়। যখন একটা গান বাজবে সেটার শব্দ করবে গমগম। এখনকার ডলবি সাউন্ড সিস্টেমে নয়, যখন অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাউন্ড সিস্টেম ছিল না তখনো আমাদের আবদুল আলীম, সৈয়দ আবদুল হাদীর কণ্ঠ হলের সেই পুরনো সাউন্ড সিস্টেমেই গমগম করত। ওই জিনিসটা কিশোর দারও ছিল। ওনার কণ্ঠ সম্পর্কে আমি যদি একটু কাব্যিকভাবে বলি, আর তা হলো, এন্ড্রু কিশোরের কণ্ঠ হলো গলিত সোনার প্রবাহ। সোনা যখন গলানো হয়, তখন যদি একটা প্রবাহ হয়, ঠিক সেটার যে সৌর্ন্দয, যে শক্তি, উজ্জ্বলতা- সেটাই ছিল কিশোর দার কণ্ঠে। কিশোর দার সব গানই আলাদা করে বোঝা যায়, প্রত্যেকটা গান। উনি অনেক গান গেয়েছেন, অনেকের সঙোগ গান গেয়েছেন। কিন্তু ওনার গানের যে রসায়ন, সেই রসায়নটা ছবির গানের সঙ্গেই ছিল বেশি। এর পর অনেকেই প্লেব্যাক করেছেন কিন্তু ছবির গান মানেই যেন ছিল এন্ড্রু কিশোর। আমি একদমই আমার কথা বলছি না। ওনার সঙ্গে অনেক গান গেয়েছি, অনেক গান জনপ্রিয় হয়েছে। আমার কিছু অর্জন জমা হয়েছে, সেটা অন্যকথা। কিন্তু আজ আমি শুধু এন্ড্রু কিশোর নিয়ে কথা বলছি। এতটা ক্ষণজন্মা তিনি হবেন সেটা বিশ্বাস করা যায় না আসলে।

গানের জুটি হিসেবে যদি বলি, তার মৃত্যুসংবাদ শোনা আমার জন্য কতটা ভয়াবহ সেটা কাউকে বলে বোঝাতে পারব না। কারণ মানুষ মানুষের জন্য কাঁদবে এটাই স্বাভাবিক। আমার বাবা মারা গেলে যে কষ্টটা পেয়েছি, ঠিক একই কষ্ট পেয়েছি কিশোর দা চলে যাওয়ায়। অনেক মানুষ প্রশ্ন তুলেছে যে, এতই যদি কষ্ট হয় তাতে লাশ দেখতে কনকচাঁপা কেন গেল না? কারণ ওই লাশটা আমি আসলে দেখতে চাইনি। আমার মানসপটে কিশোরদাকে আমি যেভাবে সারাজীবন দেখে এসেছি ওটাই আমি ধরে রাখতে চাই। এবং আমি স্রষ্টার কাছে সব সময় দোয়া করি, যেখানেই থাকুন কিশোর দা শান্তিতে থাকুন।

 

এ জাতীয় আরও খবর