সোমবার, ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাসমালিকদের নজর বিলাসবহুল লঞ্চে

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঢাকার সদরঘাট থেকে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটে বিলাসবহুল লঞ্চ চলাচল করে। আরামদায়ক যাত্রার কারণে ওই অঞ্চলের মানুষের লঞ্চের প্রতি দারুণ আগ্রহ। পরিবহন মালিকরা চাইছেন লঞ্চের যাত্রী কেড়ে নিয়ে পদ্মা সেতু দিয়ে দক্ষিণের পথে বাস চালাতে। এতদিন ফেরি পারাপার হওয়া কোম্পানিগুলো ছাড়াও দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে চলা বিলাসবহুল পরিবহনগুলোও দক্ষিণাঞ্চলের পথে বাস নামাতে চাইছে।

এনা পরিবহনের মালিক ও ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ বলেন, পদ্মা সেতু হয়ে দূরপাল্লার রুটে উন্নত ও বিলাসবহুল বাস নামানোর পরিকল্পনা আছে তাদের। গতকাল রবিবার পদ্মা সেতু চালুর প্রথম দিনে দক্ষিণাঞ্চল থেকে রাজধানীমুখী দূরপাল্লার কোনো বাসে স্বল্পদূরত্বের যাত্রী না তোলায় দুর্ভোগে পড়েন ফরিদপুর, মাদারীপুরসহ ওই পাড়ের বাসিন্দারা। ফরিদপুরের ভাঙ্গার বাসিন্দা কামরুল হাসান গতকাল সকালে জাজিরা প্রান্তে পদ্মা সেতুর টোল প্লাজায় আসেন। কিন্তু ঢাকা যাওয়ার জন্য কোনো বাসে উঠতে পারেননি। ভাঙ্গা থেকে যেসব বাস এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে সেতু পার হচ্ছে, তার সবই দূরপাল্লার চেয়ার কোচ।

পরিবহন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মা সেতু পাড়ি দেওয়া ওই রুটে স্বল্প দূরত্বের বাস নামানো শুরু হবে। সরকারি পরিবহন সংস্থা বিআরটিসি দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বাসের সংখ্যা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা পদ্মা সেতু হয়ে এসি ও নন-এসি দুই ধরনের বাসই নামাবে। বিদ্যমান বাসের বাইরে নতুন ৬৫টি বিভিন্ন পথে চালুর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বরিশাল, পটুয়াখালীর মতো দূরত্বের বাস সার্ভিসের পাশাপাশি ঢাকা থেকে শরীয়তপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ রুটেও বাস চলবে। বেসরকারি পরিবহন কোম্পানিগুলোও পদ্মা সেতু চালুর পর নতুন বাস নামাতে চাইছে। এর মধ্যে শরীয়তপুরের একটি নতুন কোম্পানি পাঁচটি রুটে বাস নামাতে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে আবেদন করেছে। গত বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে বৈঠক হয় কমিশনারের কার্যালয়ে। শরীয়তপুরের স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বিআরটিএ সূত্র। বিআরটিএ বাসের রুট দেওয়ার ক্ষেত্রে সাচিবিক দায়িত্ব পালন করে এবং ভাড়ার হার ঠিক করে দেয়।

পদ্মা সেতু চালুর পর ঢাকা-বরিশাল-কুয়াকাটা রুটে পরীক্ষামূলকভাবে সাতটি বাস নামাতে চায় গ্রিন লাইন পরিবহন। এর মধ্যে ডাবল ডেকার, সিøপার, বিজনেস ও ইকোনমি ক্লাসের বাস থাকতে পারে। অন্যান্য পরিবহন কোম্পানি দেখেশুনে সিদ্ধান্ত নিতে চায়। বিআরটিএ সূত্র জানায়, গাবতলী থেকে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে চলাচলকারী বাসের অনেক কোম্পানি পদ্মা সেতু হয়ে বাস চালাতে আগ্রহ দেখিয়েছে।

 

এ জাতীয় আরও খবর