মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ছাত্রদল সন্ত্রাসের মেগা সিরিয়াল দেখানো শুরু করেছে : সাদ্দাম

news-image

আব্দুল্লাহ আল মামুন : ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা আজ বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সামনে সংঘর্ষে জড়ান। গত মঙ্গলবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) দোয়েল চত্বর এলাকায় তাদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

এসব বিষয় নিয়ে দৈনিক আমাদের সময় অনলাইনের সঙ্গে কথা বলেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন।

সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল সন্ত্রাসের যে মেগা সিরিয়াল দেখানো শুরু করেছে…। সাধারণ ছাত্র ও জনগণের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি করে দেশীয় অস্ত্রসহ গুলি, বন্দুক ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়মুখী অবস্থান নেয়। শুধু তাই নয় ছাত্রদলের অপরাজনীতি ও সন্ত্রাসীকর্মকাণ্ড থেকে শিক্ষাঙ্গণ নিরাপদ নয়।’

সাদ্দাম বলেন, ‘এ ছাড়া হাইকোর্টের অভ্যন্তরে যেখানে প্রাধানতম আদালত অবস্থিত, সেখানেও তারা অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে সুসজ্জিত হয়ে মার্চ তৈরি করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অভিমুখে রওনা দিয়েছে। আজ সকাল থেকে ছাত্রদল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের প্রতিরোধের মুখে পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে।’

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ছাত্রদল যদি মনে করে তাদের অস্ত্রের ভাষা অনেক শক্তিশালী, তাদের দেশীয় অস্ত্রের সামনে, বন্দুক ও গুলির সামনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা পিছু হটবে, তাহলে তারা বোকার স্বর্গে বসবাস করছেন। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বিশ্বাস করে সন্ত্রাসের জবাব শিক্ষার্থীরা দিলেই হবে।’

সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল যেদিনই ক্যাম্পাসে প্রবেশ করার চেষ্টা করেছে, সেদিনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা অনিরাপত্তার চাদরে মোড়ানো থাকেন। এ ছাড়া ছাত্রদলের যেদিন সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড ঘোষণা করে, এরপর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা শঙ্কায় থাকেন যে ক্লাস-পরীক্ষা দিতে পারবে কি না।’

নতুন করে ছাত্রদলের হামলার কারণ হিসেবে ছাত্রসংগঠনের নেতা হিসেবে মনে করছি, ছাত্রদলের সন্ত্রাসের গডফাদার তারেক জিয়াকে খুশি করার জন্য এবং ছাত্রদল যে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের পারদর্শী—সেটার প্রমাণ দিতেই তারা বিশ্ববিদ্যালকে ব্যবহার করছে বলে মনে হয়।’

ছাত্রদল বলছে গোলাগুলির ঘটনা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে হচ্ছে—এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘আজকে আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার কীভাবে করতে হয়? ককটেল কীভাবে বানাতে হয়? কিলিং মিশন কীভাবে বাস্তবায়ন করতে হয়—এসব ব্যাপারে ছাত্রদল নেতারা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তাদের দিয়ে এসব হামলা, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানো হচ্ছে।’

আজকের ছাত্রলীগ-ছাত্রদল সংঘর্ষের বিষয়ে সাদ্দাম বলেন, ‘এটি আমাদের ছাত্র রাজনীতিতে বিরল যে একটি দলের সাধারণ সম্পাদক তিনি দায়িত্বশীল আচরণ না করে দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে অন্যদের ওপর আক্রমণ করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস, যেগুলো দিয়ে অনাবাসিক শিক্ষার্থীরা চলাফেরা করেন সেগুলোতে হামলা চালাচ্ছে, শিক্ষার্থীদের ওপর আগ্নেয়াস্ত্র তাক করছে।’

তিনি বলেন, ‘গত কয়েক দিন থেকে যে অস্থিরতা বিরাজ করছে, তা ছাত্রদলের পক্ষ থেকে একতরফা হামলা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এই হামলার শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ করেছে। আমাদের যে ঐক্যবদ্ধ সহঅবস্থান, সেটি প্রমাণ করে শিক্ষাঙ্গণের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ সমুন্নোত রাখতে আমরা বদ্ধপরিকর।’

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণে দেশরত্ন শেখ হাসিনা সরকারের যে ধারাবাহিক সফলতা, বিশেষ করে আমাদের তরুণ প্রজন্মকে উন্নত জীবন উপহার দিয়েছেন। সরকারের অধিকাংশ মেগা প্রকল্প সমাপ্তির পথে। যেমন- পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু টার্নেল কিংবা রূপপুর পারমানবিক বিদুৎকেন্দ্র ও ডিজিটাল বিপ্লবসহ হাইটেক পার্ক নির্মাণ। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের কারণে জনগণের যে ক্ষমতায়ন হচ্ছে এবং বঙ্গবন্ধুকন্যা ও আওয়ামী লীগের ওপর যে জনগণের আস্থা বাড়ছে এতে বিএনপি ও ছাত্রদল এক রকমের দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এই মেগা প্রকল্পগুলো সরকারের বিজয় নিশ্চিত করবে। এর জন্য নির্বাচনের আগে মেগা পরাজয়ের আশঙ্কা থেকে ছাত্রদল মেগা সন্ত্রাস শুরু করেছে।’

সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘এই সংঘর্ষটি ছাত্রদল সর্ম্পূণ পরিকল্পিতভাবে করছে। তারা তো দেশের সুনাম, মর্যাদা, উন্নয়নের অগ্রযাত্রার ভাবমূর্তিকে ম্লান করে দিতে চায়। দেশকে অস্থিশীল করে তাদের বিদেশি প্রভুদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পরিকল্পিত সন্ত্রাস করেছে।’

তিনি বলেন, ‘এই ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ বাংলাদেশ ছাত্র সমাজের মাঝে উম্মোচিত হয়েছে। ছাত্র সমাজ শান্তিপূর্ণভাবে ছাত্রদলের সন্ত্রাস প্রতিহত করতে বদ্ধপরিকর।’

 

এ জাতীয় আরও খবর