মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্যাংকেও ডলারের দামে সেঞ্চুরি, খোলাবাজারে অপরিবর্তিত

news-image

জিয়াদুল ইসলাম
নানা পদক্ষেপেও ডলারের বাজারে অস্থিরতা থামানো যাচ্ছে না। খোলাবাজারের পর ব্যাংকেও ডলারের দামে সেঞ্চুরি হয়েছে। বুধবার স্যোশাল ইসলামী ব্যাংকে নগদ ডলার বিক্রি হয় ১০২ টাকায়। মিডল্যান্ড ও মধুমতি ব্যাংকে বিক্রি হয় ১০০ টাকায়। আর আইএফআইসি, ট্রাস্ট, এনআরবি কমার্শিয়াল, এনআরবি ও ব্র্যাক ব্যাংকে নগদ ডলারের দাম উঠে প্রায় ১০০ টাকার কাছাকাছি। দ্য সিটি ও মেঘনা ব্যাংকে বিক্রি হয় ৯৯ টাকায়। গতকালও বেশিরভাগ ব্যাংকে নগদ ডলার বিক্রি হয়েছে ৯৭ থেকে ৯৯ টাকার মধ্যে। তবে সরবরাহ কিছুটা বাড়ায় খোলাবাজারে ডলারের দাম নতুন করে বাড়েনি। আগের মতোই সাড়ে ৯৬ টাকা থেকে ৯৭ টাকার মধ্যে ডলার কেনাবেচা হয়েছে।

এদিকে ঘোষিত বিনিময় হারের চেয়ে বেশি দামে ডলার কেনাবেচার অভিযোগ খতিয়ে দেখতে সরকারি-বেসরকারি ব্যাংকের অথরাইজড ডিলার শাখা পরিদর্শন শুরু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তারা কয়েকটি ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। দুপুর থেকে শুরু করেন ট্রেজারি, ফরেন এক্সচেঞ্জ বিভাগের নথি ও ডলার সংগ্রহের অনলাইন এবং নগদে কেনাবেচার তথ্য যাচাইয়ের কাজ।

প্রবাসী আয়ের নিম্নমুখী প্রবণতা ও আমদানি ব্যয়ের অস্বাভাবিক বৃদ্ধিতে গত বছরের আগস্ট থেকে ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে ডলারের দাম। ফলে প্রতিনিয়ত ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংক সর্বশেষ গত সোমবার ডলারের দর বেঁধে দিয়েছে ৮৭ টাকা ৫০ পয়সা। কিন্তু তাদের বেঁধে দেওয়া এ রেট বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে ডলার মিলছে না। বর্তমানে আমদানি পেমেন্টের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের প্রতি ডলারের জন্য গুনতে হচ্ছে ৯৬-৯৭ টাকা। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, নিত্যপণ্যের মতোই সিন্ডিকেট ও কারসাজির মাধ্যমে ডলারের দাম অস্বাভাবিকভাবে বাড়ানো হয়েছে। এই সিন্ডিকেট শিগগিরই ভাঙা না গেলে ডলারের বাজার স্বাভাবিক হবে না।

সংশ্লিষ্টরা জানান, দাম বাড়তে থাকায় সবাই ডলার ধরে রাখছেন। এ কারণে ডলারের দামে এই উল্লম্ফন। তবে ব্যাংবগুলোর দাবি, সংকটের কারণে রেমিটার ও রপ্তানিকারকদের কাছ থেকে তাদের বেশি দামেই ডলার নিতে হচ্ছে। এ কারণে তাদেরও বেশি দামেই ডলার বিক্রি করতে হচ্ছে।

বিভিন্ন ব্যাংকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গতকাল চতুর্থ প্রজন্মের এনআরবি ব্যাংকে নগদ ডলার বিক্রি করা হয় ৯৯ টাকা ৫০ পয়সা। আগের দিনও ব্যাংকটিতে নগদ ডলার বিক্রি হয় ৯৯ টাকা ৫০ পয়সায়। ট্রাস্ট ব্যাংকে নগদ ডলার বিক্রি হয়েছে ৯৮ টাকা ৯০ পয়সায়। আগের দিন ব্যাংকটিতে নগদ ডলারের দাম উঠে ৯৯ টাকা ৯০ পয়সা। প্রাইম ব্যাংকে নগদ ডলার বিক্রি হয়েছে ৯৮ টাকায়। আগের দিনও বিক্রি হয়েছিল ৯৮ টাকায়। আইএফআইসি ব্যাংক বিক্রি করেছে ৯৭ টাকা ৮০ পয়সায়। আগের দিন বিক্রি করেছিল ৯৯ টাকা ৯০ পয়সা। ব্র্যাক ব্যাংক বুধবার ৯৯ টাকা ২৫ পয়সায় বিক্রি করলেও গতকাল করেছে ৯৭ টাকা ৯০ পয়সায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম আমাদের সময়কে বলেন, ডলারের যে সংকট চলছে, সেটাকে পুঁজি করে আসলেই কোনো ব্যাংক বেশি দাম নিচ্ছে কিনা সেটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকেও তদারকি করা হচ্ছে। বিষয়টি সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এজন্য চারটি টিম মাঠে নেমেছে। তিনি বলেন, আমরা এরই মধ্যে কিছু কিছু ব্যাংকের বিরুদ্ধে বেশি দাম নেওয়ার অভিযোগও পেয়েছি। তবে সেই অভিযোগ যদি আমাদের তদন্তে প্রমাণ হয়, তবে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম আমাদের সময়কে বলেন, ডলারের যে সংকট চলছে, সেটিকে পুঁজি করে আসলেই কোনো ব্যাংক বেশি দাম নিচ্ছে কিনা সেটি কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকেও তদারকি করা হচ্ছে। আমরা এরই মধ্যে কিছু কিছু ব্যাংকের বিরুদ্ধে বেশি দাম নেওয়ার অভিযোগও পেয়েছি। তবে সেই অভিযোগ যদি আমাদের তদন্তে প্রমাণিত হয়, তবে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে গতকাল খোলাবাজারে ডলারের দাম নতুন করে বাড়েনি। আগের দিনের মতোই ৯৭ টাকার মধ্যে ডলার কেনাবেচা হয়। এই বাজারে মঙ্গলবার ডলারের দাম ১০২ টাকায় উঠেছিল। দিলকুশার খোলাবাজারের ব্যবসায়ী মো. ইকবাল আমাদের সময়কে বলেন, ডলারের সরবরাহ আগের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে। আবার চাহিদাও কিছুটা কম। এ কারণে খোলাবাজারে ডলারের দাম আর বাড়েনি।

করোনা মহামারির কারণে গত ২০২০-২১ অর্থবছরজুড়ে আমদানি বেশ কমে গিয়েছিল। তখন প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয়ে উল্লম্ফন দেখা যায়। সে কারণে বাজারে ডলারের সরবরাহ বেড়ে যায়। সে পরিস্থিতিতে ডলারের দর ধরে রাখতে গত অর্থবছরে রেকর্ড প্রায় ৮০০ কোটি ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়েও ২০ কোটি ৫০ লাখ ডলার কেনা হয়। কিন্তু আগস্ট মাস থেকে দেখা যায় উল্টো চিত্র। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে শুরু করে আমদানি। রপ্তানি বাড়লেও কমতে থাকে রেমিট্যান্স। এতে বাজারে ডলারের চাহিদা বেড়ে বাড়তে থাকে দাম। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাজার স্থিতিশীল রাখতে আগস্ট থেকে ডলার বিক্রি শুরু করে বাংলাদেশ ব্যাংক, যা এখনো অব্যাহত রয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, চলতি অর্থবছরের ১৮ মে পর্যন্ত বিভিন্ন ব্যাংকের কাছে প্রায় ৫৪০ কোটি ডলার বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

 

এ জাতীয় আরও খবর