মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রবৃদ্ধির চেয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখার পরামর্শ

news-image

আবু আলী
করোনা মহামারীর ধাক্কা সামলে উঠতে না উঠতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বিশ্ব অর্থনীতিকে বড় ধরনের সংকটের মুখে ফেলেছে। যুদ্ধের কারণে জ্বালানি তেল, খাদ্যপণ্যসহ সব ধরনের জিনিসের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় সব হিসাব-নিকাশ পাল্টে গেছে; ব্যাহত হচ্ছে কোভিড-১৯ পুনরুদ্ধার কার্যক্রম। দেশের আমদানি খরচ বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। অস্থির হয়ে পড়েছে ডলারের দাম। বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের অতিমূল্যের প্রভাব ইতোমধ্যেই আমদানি ব্যয় বাড়িয়ে দিয়েছে। ভোজ্যতেলের ক্ষেত্রেও দেশের বাজার অস্থির। রাসায়নিক সার ও গম বেশি দামেও আমদানি করা যাবে কি না- তা নিয়েও অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে দেশের ফরেন কারেন্সি সংকট মোকাবিলা ও মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা ধরে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন দেশের খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদরা। একই সঙ্গে ব্যক্তি পর্যায়ে বিদেশ ভ্রমণে ডলার ব্যয়সীমা কমানোর পাশাপাশি টাকার মান ড্রাস্টিকালি কমানো এবং জিডিপির প্রবৃদ্ধি বাড়ানোর পরিকল্পনা না করে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণকে কেন্দ্রে রেখে আগামী অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নের পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নের নীতিগত বিষয়গুলো নিয়ে সম্প্রতি প্রাক-বাজেট আলোচনায় দেশের খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদরা অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে এমন পরামর্শ দিয়েছেন। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

ঋার্চুয়াল আলোচনাসভার শেষে গভর্নর ড. ফজলে কবির বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক সাধারণভাবে কখনো ইনফ্লেশনের সঙ্গে কোনো কিছু ট্রেড অফ করতে চায় না। বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে এখন ট্রেড অফ না হলেও একই সঙ্গে মূল্যস্ফীতি ও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ঠিক রাখতে হচ্ছে। তাই মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আমরা রিজার্ভ থেকে ডলার ছেড়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য, জ¦ালানি ও সার আমদানির এলসি খুলছি। ব্যাংক রেটে এসব এলসি খোলা হচ্ছে, যা মঙ্গলবার ছিল প্রতি ডলার ৮৭.৫০ টাকা। এসব পণ্যমূল্য মূল্যস্ফীতি বাড়াতে ভূমিকা রাখায় রিজার্ভ থেকে পরিশোধ করতে হচ্ছে। এর মধ্য দিয়েই আমরা রিজার্ভ ও মূল্যস্ফীতির মধ্যে ভারসাম্য রাখার চেষ্টা করছি। এতে রিজার্ভের ওপর কিছুটা চাপ বাড়ছে।

ব্যাংকগুলো করপোরেট এক্সচেঞ্জ রেট তৈরি করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, গত জুলাই থেকে ১০ মাসে টাকা ৩.২০ শতাংশ ডিপ্রেসিয়েট হয়েছে। এটি জাপান, ভারত, ইউএসও, ইউকেসহ বিপুলসংখ্যক দেশের চেয়ে অনেক কম। বাংলাদেশের বিদ্যমান মূল্যস্ফীতির হার ভিয়েতনাম ও ইন্দোনেশিয়ার চেয়ে বেশি হলেও অন্য অনেক দেশের চেয়ে কম। ব্যাংকগুলোয় ডলারের রেট আরও বেশি হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ব্যাংকগুলো এখন করপোরেট রেট নির্ধারণ করেছে, যা বেশ বেশি।

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ সন্তোষজনক পর্যায়ে ধরে রাখতে সরকার আগামী এক-দুই মাসের মধ্যে নানা ধরনের উদ্যোগ নেবে জানিয়ে অর্থসচিব আবদুর রউফ তালুকদার বলেন, এ বিষয়ে আমরা ধারাবাহিক পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করেছি। ইতোমধ্যে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক ছোট ছোট আকারে কিছু পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে এবং এটি আস্তে আস্তে বাড়বে। আমরা প্রথমেই বড় আকারে পদক্ষেপ নিতে চাই না। সরকার দেখতে চায়, মার্কেট পরিস্থিতি দেখে আমরা পদক্ষেপ নেব। আগামী এক-দুই মাসের মধ্যেই আরও অনেক পদক্ষেপ আসবে। আমাদের ম্যাক্রো ইকোনমি স্ট্যাবিলিটি নষ্ট হবে, এমন কোনো বিষয়ে কখনো কম্প্রোমাইজ করব না।

অর্থ সচিব জানান, বৈদেশিক ঋণ নিয়ে বাংলাদেশের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই। গত অর্থবছর বাংলাদেশ ১.৪১৯ বিলিয়ন ডলার মূল ঋণ ও ৪৯৬ মিলিয়ন ডলার সুদ পরিশোধ করেছে, যা ওই অর্থবছরের মোট রপ্তানি আয়ের ৪.৭ শতাংশ। চলতি অর্থবছর ১.৭০ বিলিয়ন ডলার মূল ঋণ ও ৭২৬ মিলিয়ন ডলার সুদ পরিশোধ করতে হবে, যা মোট রপ্তানি আয়ের ৫ শতাংশ হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন বলেন, মাল্টিপল এক্সচেঞ্জ রেট পৃথিবীর কোনো দেশে কোনো উপকার বয়ে আনেনি। কিন্তু আমাদের দেশে দু’বছর ধরে তিনটি এক্সচেঞ্জ রেট কার্যকর রয়েছে। এর একটি ইম্পোর্টারদের জন্য, সেটা খুবই সস্তায় পাওয়া যায়। অন্য দুটির একটি রেমিট্যান্স প্রেরণকারী ও রপ্তানিকারকদের জন্য। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে রপ্তানি ও রেমিট্যান্সের তুনায় ৬-৭ বিলিয়ন ডলারের বেশি আমদানি ব্যয় হচ্ছে, যা গত ১২-১৪ বছরে হয়নি। টাকার অবমূল্যায়ন করে কার্ব মার্কেটের সঙ্গে ব্যাংক রেটের ব্যবধান ৩-৪ টাকায় নামিয়ে আনার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, এটি হলে রপ্তানিকারক ও প্রবাসীরা রেমিট্যান্সে সুবিধা পাবেন।

বৈদেশিক মুদ্রার সংকট মোকাবিলায় বিলাসবহুল পণ্য আমদানি নিয়ন্ত্রণ করার পাশাপাশি নির্মাণসামগ্রী, ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রীসহ দেশেই তৈরি করা সম্ভব এমন পণ্যের আমদানি নিয়ন্ত্রণ করার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, শুধু এলসি মার্জিন বাড়িয়ে আমদানি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে না। দেশে ৫০ বিলিয়ন ডলারের অব্যবহৃত বৈদেশিক ঋণের পাইপলাইন থাকা সত্ত্বেও নতুন করে ঋণ নেওয়ার সমালোচনা করেন। অনেক দেশ ও সংস্থা ঋণকে অনুদানে রূপান্তর করতে রাজি আছে, যদিও তার মধ্যে জাপান নেই। দারিদ্র্য নির্মূল ও উন্নত পরিবেশের জন্য উদ্ভাবনী কিছু প্রকল্প প্রণয়ন করে যেসব দেশ ও সংস্থা থেকে আমাদের বৈদেশিক ঋণ বেশি, তাদের ঋণকে অনুদানে রূপান্তর করার জন্য ধর্ণা দিতে পারি।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান ড. জাইদি সাত্তার বলেন, এক্সচেঞ্জ রেটে আরও ফেক্সিবিলিটি আনতে হবে। এটা ব্যালান্স অব পেমেন্ট মেইনটেইন করতে সহায়ক হবে। বর্তমানে যে রিজার্ভ আছে, সেটা ধরে রাখা দরকার। এজন্য এক্সচেঞ্জ রেটে আরেকটু ফ্যাক্সিবিলিটি দরকার। আমাদের অন্তত ৬ মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর মতো রিজার্ভ থাকা প্রয়োজন।

অর্থ বিভাগের সাবেক সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ বলেন, তিন বছর আগে যখন আমরা বাজেট প্রণয়ন করতাম, তখন আমাদের ফোকাস ছিল প্রবৃদ্ধি ও বিনিয়োগ বাড়ানো এবং দারিদ্র্য কমানো। গত ২ বছরের বাজেটে জীবন ও জীবিকার ভারসাম্য কীভাবে রক্ষা করা যায়, সেটি গুরুত্ব পেয়েছে। প্রবৃদ্ধি ৫ না ৮ শতাংশ তা নিয়ে মানুষের মনে ভাবনা নেই। তাদের উদ্বেগের বিষয় চাল, ডাল, তেল, লবণের দাম বাড়ল কিনা। তাই মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে বাজেট করতে হবে। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে যুক্তরাষ্ট্র, ভারতসহ বিভিন্ন দেশ ইতোমধ্যে ইন্টারেস্ট রেট রি-অ্যাডজাস্ট করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদেরও চিন্তাভাবনা করার প্রয়োজন রয়েছে। ‘বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার এত বছর যেভাবে কমফোর্ট জোনে ছিল, সে সুযোগ এখন কমে গেছে। এখনকার মতো প্রেসার গত এক দশকে দেখিনি। তাই টাকার ডিপ্রেসিয়েশন অবশ্যই করতে হবে। তবে সেটা কতটা দ্রুত করব, তা ভিন্ন বিষয়।

ট্যাক্স কমিশন গঠনের প্রস্তাব : প্রতিবছর বাজেটে ট্যাক্স-জিডিপি রেশিও বাড়াতে নানা পদক্ষেপের কথা বলা হলেও তার কোনোটিই কাজে না লাগায় হতাশা প্রকাশ করেছেন অর্থনীতিবিদরা। এ ক্ষেত্রে বিদ্যমান সমস্যা চিহ্নিত করাসহ করণীয় নির্ধারণে ট্যাক্স কমিশন গঠনের সুপারিশ করেন সাবেক অর্থসচিব মাহবুব আহমেদ। তিনি বলেন, ট্যাক্স-জিডিপি রেশিও বাড়ানো নিয়ে প্রতিবছরই কথা হয়, কিন্তু কোনো কাজ হয় না।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন বলেন, ভূমিকম্পপ্রবণ নেপালেও ট্যাক্স-জিডিপি রেশিও ১৯.১ শতাংশ, অথচ বাংলাদেশে এটি ৮.৯ শতাংশ এবং নিম্নগামী। ট্যাক্স-জিডিপি রেশিও বাড়াতে এ পর্যন্ত যত পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তার কোনোটিই কাজে লাগেনি।

 

এ জাতীয় আরও খবর