বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আগস্টের মধ্যে ধান চাল সংগ্রহের তাগিদ

news-image

নিজস্ব প্রতিবেদক : অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে আগস্টের মধ্যেই চলতি মৌসুমে ধান ও চাল সংগ্রহ শেষ করার তাগিদ দিয়ে ১৩ দফা নির্দেশনা দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। গতকাল বৃহস্পতিবার এসব নির্দেশনা দিয়ে পরিপত্র জারি করা হয়।

নির্দেশনাগুলো হলো- এক. ধান সংগ্রহের ক্ষেত্রে অবিলম্বে জেলা ও উপজেলা সংগ্রহ ও মনিটরিং কমিটির সভা সম্পন্ন করতে হবে। কৃষকের অ্যাপের বাইরের উপজেলাগুলোয় লটারি করে দ্রুত শুরু ও শেষ করতে হবে ধান সংগ্রহ। কৃষকের অ্যাপভুক্ত উপজেলাগুলোয় রেজিস্ট্রেশন দ্রুত সম্পন্ন করে সিস্টেম লটারি করে কৃষক নির্বাচনপূর্বক দ্রুত ধান সংগ্রহ করতে হবে। দুই. ধান সংগ্রহের বার্তাটি মাইকিং, লিফলেট বিতরণ, স্থানীয় কেবল টিভি স্ক্রলে প্রদর্শনের মাধ্যমে ব্যবস্থা করতে হবে বহুল প্রচারের। তিন. যেহেতু চলমান চাল সংগ্রহ মৌসুমে মিলের পাক্ষিক ছাঁটাই ক্ষমতা অপেক্ষা বরাদ্দ কম। তাই ৩০ জুনের মধ্যে ৭০ শতাংশ, জুলাইয়ের মধ্যে ৯০ শতাংশ এবং আগস্টের মধ্যে ১০০ শতাংশ সংগ্রহ করতেই হবে। চার. সংগৃহীত চালের প্রতিটি বস্তায় সর্বশেষ নির্দেশনা অনুযায়ী স্টেনসিল প্রদান নিশ্চিত করতে হবে। পাঁচ. আগামী ১৬ মের মধ্যে চাল সংগ্রহের জন্য মিলারদের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন করতে হবে। চুক্তি সম্পাদনের মেয়াদ কোনোভাবেই বাড়ানো হবে না। ছয়. ধান ও চাল সংগ্রহ কার্যক্রম যুগপৎভাবে বাস্তবায়ন ও তরান্বিত করতে হবে। সাত. অভ্যন্তরীণ খাদ্যশস্য সংগ্রহ নীতিমালা ২০১৭ অনুযায়ী চলতি বছর ধান ও চাল সংগ্রহ করতে হবে। আট. খাদ্য গুদামগুলোয় কৃষকবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। কৃষক যেন

কোনোভাবেই হয়রানির শিকার না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে। নয়. গুদামে স্থান সংকুলান না হলে চলাচল সূচি প্রণয়ন নীতিমালা, ২০০৮ অনুসারে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক, খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক চলাচল সূচি জারি করবেন। ১০. ধান সংগ্রহ কার্যক্রমে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকদের নিবিড় মনিটরিং অব্যাহতভাবে রাখতে হবে। ১১. প্রতিদিন বিকাল ৫টার মধ্যে সব আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক দপ্তর থেকে ধান ও চাল সংগ্রহের তথ্য ই-মেইলে খাদ্য অধিদপ্তরের সংগ্রহ বিভাগে পাঠাতে হবে। ১২. ধান চাল সংগ্রহে স্থানীয়ভাবে কোনো আনুষ্ঠানিকতার অজুহাতে কোনোভাবেই সংগ্রহ কার্যক্রম বিলম্বিত করা যাবে না। ১৩. মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী জিংকসমৃদ্ধ ধান ও চাল সংগ্রহ করতে হবে।