বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রনিলে কি রণে ভঙ্গ দেবে বিক্ষুব্ধরা

news-image

জাহাঙ্গীর সুর
মঞ্চে ফিরলেন মলিনপ্রায় মানুষটি। বিস্মৃত হতে বসা জননেতাকে প্রধানমন্ত্রীর পদে বসালেন শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট। আগের নির্বাচনে যার দল সোয়া দুশ আসনের একটিতেও জয় পায়নি, হ্যাঁ- যিনি নিজের আসনেও হেরে গিয়েছিলেন, সেই শক্তিহীন বিরোধী দলনেতা রনিল বিক্রমাসিংহকে দায়িত্ব দিলেন গোতাবায়া রাজাপাকসে। এবার যার প্রধানমন্ত্রীর পদে ষষ্ঠ আরোহণ। কিন্তু রনিলে কি রণে ভঙ্গ দেবে শ্রীলংকার সাধারণ জনতা? মিশ্র প্রতিক্রয়া পাওয়া যাচ্ছে সামাজিক মাধ্যমে : বিস্মিত অনেকে বিষোদগার উগরে বলছেন, ‘সব সেরেছে!’ কেউ কেউ দরদ উথলে বলছেন, ‘এবার হয়েছে।’ তবে সার্বিক বিবেচনায় বলা চলে, এ হলো হালের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক প্রত্যাবর্তন।

১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা লাভের পর শ্রীলংকা সবচেয়ে বিপর্যয়কর অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে পড়েছে। সরকার চলমান করোনা ভাইরাস মহামারীতে পর্যটন খাতের ‘অপ্রত্যাশিত মৃত্যু’কে

দায়ী করছে। কিন্তু বিরোধী দলগুলো এবং সাধারণ জনতা সরকারের অর্থনৈতিক অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করে আসছে।

দেশকে গভীর খাদ থেকে তুলে আনতে রাজাপাকসে পরিবারের হাত থেকে ক্ষমতার চাবিকাঠি কেড়ে নিতে কয়েক সপ্তাহ ধরে টানা বিক্ষোভ করে আসছে ক্ষুব্ধ জনতা। বিক্ষোভ রক্তক্ষয়ী সহিংসতায় রূপ নিলে সোমবার প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়ান মাহিন্দা রাজাপাকসে, যার ছোট ভাই এখনো প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্বে আছেন। সেদিনের সহিংসতায় অন্তত আটজন নিহত হয়েছেন।

কলম্বোর স্থানীয় গণমাধ্যম ডেইলি মিরর জানিয়েছে, গতকাল রাজধানীতে প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ে গোতাবায়ার সামনে শপথবাক্য পাঠ করেন নতুন প্রধানমন্ত্রী। শপথ নেওয়ার পর সাংবাদিকদের সামনে দেওয়া বক্তব্যে রনিল বিক্রমাসিংহে বলেছেন, ‘গোতাবায়া গদি ছাড়ো- এই বিক্ষোভ চলতেই পারে। পুলিশ কাউকে ছুঁয়ে দেখবে না। আমি সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করব।’

প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া গতকাল শপথানুষ্ঠানের পর পরই টুইটারে রনিলের নিয়োগ নিশ্চিত করে বলেছেন, ‘কঠিন সময়ে হাল ধরার জন্য আমি আপনাকে সাধুবাদ দিই। কল্যাণ হোক।’

শ্রীলংকার সংকটকালে চীন-ভারতের ভূরাজনৈতিক অঙ্গনে কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার শীতল লড়াইয়ের প্রসঙ্গ সামনে এসেছে। অনেকেই বলছে, চীনের ঋণের ফাঁদে পড়ে যে হাল হয়েছে, এতেই শ্রীলংকার শিক্ষা হওয়ার কথা। কেউ কেউ বলছে, ভারত একে একে পরদেশে প্রভাব প্রতিষ্ঠায় সফল হচ্ছে।

রনিল বিক্রমাসিংহে দায়িত্ব পাওয়ার পর পরই ভারতের বার্তা সংস্থা প্রেস ট্রাস্ট অব ইন্ডিয়া টুইট করে জানিয়েছে, ভারতীয় হাইকমিশন শ্রীলংকার জনগণের পাশে দাঁড়ানোর যে প্রতিশ্রুতি ভারত দিয়ে রেখেছে, তা অব্যাহত থাকবে। হিন্দুস্তান টাইমস এক টুইটে জানিয়েছে, নতুন সরকারের সঙ্গেও ‘কাজ করার প্রত্যয়’ ব্যক্ত করেছে নরেন্দ্র মোদি প্রশাসন।

শ্রীলংকার রাজধানীর সাংবাদিক আজম আমিন টুইটারে লিখেছেন, ‘গত নির্বাচনে কলম্বোয় নিজ আসনেও হেরে গিয়েছিলেন রনিল বিক্রমাসিংহে, নিজে ভোট পেয়েছিলেন ৩০ হাজারেরও কম। ন্যাশনাল লিস্ট কাঠামোয় মোট ভোটপ্রাপ্তির ভিত্তিতে যে একটিমাত্র আসন তার দল দয়াদাক্ষিণ্য হিসেবে পেয়েছিল, সেই সুবাদে সংসদের সদস্য হওয়া মানুষটিই এখন ষষ্ঠবারের মতো শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রী হলেন।

এদিকে শ্রীলংকার একটি আদালত মাহিন্দা রাজাপাকসে ও তার ছেলে নামাল রাজাপাকসেসহ ১৫ জনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। বিক্ষোভের মুখে পড়ে পগত্যাগের পর মাহিন্দা পরিবার রয়েছেন দেশটির একটি নৌঘাঁটিতে। তাকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে সুইডেনের উপসালা বিশ^বিদ্যালয়ের শান্তি ও সংঘর্ষ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক অশোক সোয়াইন এই প্রতিবেদককে সম্প্রতি বলেছেন, ‘মাহিন্দার ভাই যতক্ষণ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় আসীন, ততক্ষণ পর্যন্ত তাকে গ্রেপ্তার করা সম্ভবপর হবে বলে মনে হয় না। বিচার তো পুরো রাজাপাকসে পরিবারের হতে হবে। রাজাপাকসে পরিবারকে বিচারের মুখোমুখি করতে জলে শ্রীলংকায় রাজনৈতিক ক্ষমতা ও ব্যবস্থায় আমূল পালাবদল দরকার।’

রনিল বিক্রমাসিংহে কি সেই পালাবাদলের, কাক্সিক্ষত বাঁকবদলের আভাস? মনে হয় না, এতেও বিক্ষোভ ও জনরোষ কমবে। প্রেসিডেন্ট গোতাবায়ার পদত্যাগ ছাড়া জাতীয় ঐক্যের সরকারে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে বিরোধী দলগুলো গতকাল পর্যন্ত একমত হতে পারেনি। রনিল এখন কীভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করবেন, বলা ভালো, কীভাবে নিজের মান বাঁচাবেন- সেটিই দেখার বিষয়।