মঙ্গলবার, ১৭ই মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যে ধরনের চ্যালেঞ্জ চেয়েছি, এতে তা রয়েছে: ফারিণ

news-image

এমদাদুল হক মিলটন
ছোট পর্দায় সরব উপস্থিতি থাকলেও গল্প ও চরিত্র পছন্দ না হওয়ায় এত দিন বড় পর্দায় অভিনয় করা হয়ে ওঠেনি। তাই তো সিনেমায় অভিনয়ের জন্য খুঁজছিলাম চ্যালেঞ্জিং কাজ। সিনেমায় যে ধরনের চ্যালেঞ্জ নিতে চেয়েছিলাম, তা পুরোপুরি পেয়েছি। আমার কাছে মনে হয়েছে, এটাই আমার অভিষেক সিনেমা হতে পারে।

আমি ভীষণ আনন্দিত যে, অতনুদার মতো একজন গুণী নির্মাতার হাত ধরে চলচ্চিত্রে আমার যাত্রা হবে।’ পশ্চিমবঙ্গের নন্দিত নির্মাতা অতনু ঘোষের পরিচালনায় অভিনয় প্রসঙ্গে এভাবেই বলেন মডেল অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। সিনেমার নাম ‘আরও এক পৃথিবী’। যার দৃশ্যধারণ হবে লন্ডনে।এই কাজে অংশ নেওয়ার জন্য ১৭ মে লন্ডন যাচ্ছেন ফারিণ। সেখানে ১৮ দিনের শিডিউল, ২০ মে থেকে জুনের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত কাজ হবে বলে জানান এই মডেল অভিনেত্রী।

কলকাতার চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত হলেন কীভাবে? “আমার অভিনীত ‘লেডিস অ্যান্ড জেন্টলম্যান’ সিরিজটি অতনুদার টিমের সবাই দেখেছেন। মূলত এর পরই আমাকে নিয়ে তারা কাজের আগ্রহ প্রকাশ করেন। গত মার্চে সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব দেন নির্বাহী প্রযোজক মিতা পাল। প্রথমে আমাকে চিত্রনাট্য পাঠানো হয়েছিল। বলা হয় যে এটি পড়ে জানাতে আমি সিনেমায় আগ্রহী কিনা। চিত্রনাট্য পড়ে খুব ভালো লাগে। তাদের সম্মতি জানাই। এর পরই অভিনয়ের বিষয়ে পাকা কথাবার্তা হয়। লন্ডনের ৩০-৩৫ জন মানুষের জীবনের গল্প নিয়ে এই সিনেমা। যাদের মাথার ওপরে কোনো ছাদ নেই। এই সিনেমার গল্পে মানুষের অনুভূতিকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে”- বলেন ফারিণ। এই সিনেমায় ফারিণের সহশিল্পী কৌশিক গাঙ্গুলী, অনিন্দিতা বসু, সাহেব ভট্টাচার্যের মতো গুণী অভিনয়শিল্পীরা।

এস কে মুভিজের প্রযোজনায় নির্মিতব্য সিনেমাটি বছরের শেষ দিকে কলকাতার প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে। এতে তাকে দেখা যাবে ‘প্রতীক্ষা’ চরিত্রে। চরিত্রের জন্য প্রস্তুতি কেমন- জানতে চাইলে ফারিণ বলেন, ‘যখন এই সিনেমায় অভিনয়ের জন্য রাজি হয়েছি, তখন থেকেই আমার প্রস্তুতি শুরু করি। প্রথমত, এটি কলকাতার সিনেমা, ফলে ভিন্ন এক পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে হবে। আর এর শুটিং হবে লন্ডনে। কথাবার্তা, সাজসজ্জা, সংস্কৃতি ও সেখানকার মানুষের জীবনধারা সম্পর্কে বিশদ জানার চেষ্টা করছি। লুকেও পরিবর্তন আনতে হচ্ছে। চরিত্রটা ভালোভাবে আত্মস্থ করার জন্য গত মাসে ১২ দিন ছিলাম কলকাতায়। ওখানে স্ট্ক্রিপ্ট রিডিংয়ের পাশাপাশি লুক সেটও করেছি। সেগুলো করতে গিয়ে টিমের বাকি লোকদের সঙ্গে বেশ ভালো একটা সম্পর্ক তৈরি হয়েছে। আশা করছি, সবার সহযোগিতায় কাজটি ভালোভাবে শেষ করতে পারব।’ এই সিনেমার কাজ নিয়ে কলকাতায় থাকার কারণে গেল ঈদে খুব বেশি নাটকে কাজ করেননি ফারিণ। নতুন-পুরোনো মিলে তার অভিনীত ২০টি নাটক-টেলিছবি প্রচার হয়েছে।

এর মধ্যে শিহাব শাহিনের ‘কমলা রঙের রোদ-২’, মিজানুর রহমান আরিয়ানের ‘শুরুটাই সুন্দর’, সৈয়দ শাকিলের ‘লাভ অ্যান্ড ওয়ার’, মাহমুদ মাহিনের ‘লাস্ট লাভ’, মুহম্মদ মিফতা আনানের ‘রূপকথা নয়’, মেহেদী হাসান জনির ‘আমি কেন?’ শ্রাবণী ফেরদৌসের ‘আমার কেরানী বাবা’সহ আরও কয়েকটি কাজ ছিল উল্লেখযোগ্য। ভিন্নধর্মী চরিত্রে হাজির হওয়ার কারণে প্রতিটি কাজে দর্শক সাড়া পেয়েছেন তিনি। টিভিতে কাজের পাশাপাশি দেশে বর্তমানে একটি ওয়েব সিরিজে অভিনয় করছেন ফারিণ। সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তুতি ও লন্ডনের এর দৃশ্যধারণে অংশ নেওয়ার কারণে কোরবানির ঈদেও তাকে খুব বেশি নাটকে পাওয়া যাবে না। এমনই আভাস দিলেন তিনি। টিভির প্রিয় মুখ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তাসনিয়া ফারিণ, ওয়েবেও দেখিয়েছেন মুনশিয়ানা। এবারের চলচ্চিত্রে তার সেই জাদু দেখার অপেক্ষায় দর্শক। ফারিণ দর্শকের প্রত্যাশা পূরণের জন্য যথাযথ চেষ্টা করবেনও বলে জানান।