বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঈদে ডায়াবেটিস রোগীর খাবার

news-image

ঈদ মানেই বিশেষ কিছু; হরেক রকম রান্না, দাওয়াত ও উৎসবের আমেজ। এক মাস রোজা রেখে যখন ঈদ আসে, তখন খাবার নিয়ন্ত্রণ করা একটু কঠিনই হয়ে পড়ে। এ সময় ডায়াবেটিসের রোগীরা তাঁদের খাবার কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করবেন, সেটা বেশ ভাবনার বিষয়।

খাবারদাবার
রমজানের আগে ডায়াবেটিসের রোগীরা যে ডায়েট চার্ট ফলো করছিলেন বা যত কিলোক্যালরি খাবার গ্রহণ করছিলেন, রমজানের পরে অর্থাৎ ঈদেও তত কিলোক্যালরি খাবার গ্রহণ করার চেষ্টা করবেন। ভাত বা শর্করাজাতীয় খাবার একটু কম করে খেতে হবে। ভাতে প্রচুর পরিমাণে পরিশোধিত স্টার্চ বা শর্করা থাকে এবং এতে ফাইবার বা আঁশের পরিমাণ একেবারেই কম থাকে। তাই ভাত রক্তে শর্করার পরিমাণ খুব দ্রুত বাড়ায় বলে ভাত কম খেয়ে যেসব খাবারে ফাইবার তথা আঁশ বেশি থাকে, সেগুলো খাওয়ার চেষ্টা করতে হবে। যেমন লাল আটার রুটি, চিড়া, ভুট্টা—এগুলো ভাতের বিকল্প হিসেবে খাওয়া যায়।

ঈদে ডায়াবেটিস রোগীর খাবারমিষ্টি খেতে চাইলে কী করবেন
ঈদে মিষ্টিজাতীয় খাবার খেতে মন চাইতেই পারে। সে ক্ষেত্রে কম মিষ্টি দিয়ে তৈরি খাবারগুলো খাওয়া যেতে পারে। প্রয়োজনে বিকল্প চিনি বা আর্টিফিশিয়াল সুইটনার দিয়ে সেমাই, পায়েস রান্না করে খাওয়া যেতে পারে। এগুলোতে মিষ্টির স্বাদ পাবেন, কিন্তু ব্লাড সুগার বাড়বে না।

ঈদে ডায়াবেটিস রোগীর খাবারখাবার খাওয়া শেষ তো উঠে পড়ুন
ডায়াবেটিসের রোগীদের উচিত খাবার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই টেবিল থেকে উঠে যাওয়া। অন্যদের সঙ্গে বসে গল্প করতে থাকলে অন্যদের অনুরোধে কিংবা নিজের ইচ্ছায় বেশি খাওয়া হয়ে যাবে। তাই খাওয়া শেষ তো টেবিল থেকে উঠে পড়ুন।

ঈদে ডায়াবেটিস রোগীর খাবারখাওয়া শেষ করেই শুয়ে পড়বেন না 
রাতের খাবার যথাসম্ভব আগে খাওয়ার চেষ্টা করুন। খাবার খেয়েই শুয়ে পড়া ঠিক নয়। প্রয়োজনে খাবার খেয়ে ঘরের মধ্যে ১০ মিনিট পায়চারি  করা উচিত। এতে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা
ডায়াবেটিসের রোগীদের উচিত তিন দিন পর পর গ্লুকোমিটার মেশিন দিয়ে চার বেলা ব্লাড সুগার পরীক্ষা করে খাতায় লিখে রাখা। সকালেখালি পেটে, সকালের খাবারের দুই ঘণ্টা পর, দুপুরের খাবারের দুই ঘণ্টা পর, রাতে খাবার খাওয়ার দুই ঘণ্টা পর ব্লাড সুগার মেপে নিতে পারেন।

যেহেতু রমজানে অনিচ্ছা সত্ত্বেও চিনি দিয়ে শরবত, মিষ্টি ফল, যেমন খেজুর, মাল্টা, কলা খাওয়া হয়ে যায়, তাই রমজানের পর ডায়াবেটিসের রোগীদের রুটিন পরীক্ষাগুলো করে ডায়াবেটিস ও হরমোন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া উচিত।শাকসবজি ও সবুজ ফল বেশি করে খানঈদের মধ্যে খাবার শুরু করুন শাকসবজি দিয়ে। এ-জাতীয় খাবার ক্ষুধা কমাবে এবং ব্লাড সুগার বাড়াবে না। শাক ও সবজিতে যেমন আঁশ বেশি থাকে, তেমনি ক্যালরি বা শর্করা কম থাকে। বিকেলের নাশতায় সবুজ ফল, যেমন সবুজ আপেল, পেয়ারা, নাশপাতি খেতে পারেন।

ডায়াবেটিস বেড়ে যাওয়ার লক্ষণ

  • মুখ শুকিয়ে যাওয়া
  • বেশি বেশি পিপাসা পাওয়া
  • বেশি বেশি প্রস্রাব হওয়া
  • চোখে ঝাপসা দেখা
  • অজ্ঞান হয়ে যাওয়াএমন লক্ষণ দেখা দিলে ডায়াবেটিস পরীক্ষা করুন এবং প্রয়োজনে হাসপাতালে নিয়ে যান।

টিপস
ডায়াবেটিসের রোগীরা সব খাবারই খেতে পারবেন। তবে খেতে হবে পরিমাণমতো।

  • কোনো বেলা খাবার বেশি খাওয়া হলে ইনসুলিন বা মুখে খাওয়ার ওষুধের ডোজ বাড়িয়ে নিতে হবে।
  • নিয়মিত ব্লাড সুগার পরীক্ষা করতে হবে।
  • খাদ্যতালিকার জন্য প্রয়োজনে পুষ্টিবিদ বা ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ নিতে হবে।