সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তৈরি সুস্বাদু স্পঞ্জ মিষ্টির সুনাম রয়েছে দেশ-বিদেশে

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার লালপুর ইউনিয়নের লালপুর বাজারের মিষ্টির দোকান মা মিষ্টান্ন ভান্ডার। প্রায় দেড়যুগ যাবৎত বিভিন্ন  রকম মিষ্টি তৈরি করছেন হরিধন পাল। তার দোকানের মিষ্টির মধ্যে ক্রেতাদের কাছে সবচেয়ে প্রিয় স্পঞ্জ মিষ্টি। স্বাদে অতুলনীয় এই মিষ্টি খেতে দূর-দূরান্ত থেকে মা মিষ্টান্ন ভান্ডারে আসেন মানুষজন। অনেকে স্বজনদের জন্য বিদেশেও পাঠান এই মিষ্টি। আর তাই লালপুর ছাড়িয়ে হরিধন পালের স্পঞ্জ মিষ্টির সুনাম ছড়িয়েছে দেশের গন্ডি পেরিয়ে  বিদেশেও।
সরেজমিনে ঘুরে ও খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মেঘনা নদীর পাশেই লালপুর বাজারের অবস্থান। প্রাচীনতম বাজারটিতে ৫০ বছরেরও বেশি সময় আগে সর্বপ্রথম মিষ্টান্নের দোকান দেন লালপুর গ্রামের বাসিন্দা শচীন্দ্র পাল। তখন তার তৈরি মিষ্টান্নই যেত লালপুরের বাসিন্দারের ঘরে ঘরে। শচীন্দ্র পালের মৃত্যুর পর এখন তার দুই ছেলে হরিধন পাল এবং সুধাংশু পাল মিষ্টান্নের ব্যবসা করছেন। এর মধ্যে মা মিষ্টান্ন ভান্ডার চালাচ্ছেন হরিধন পাল। আর সুধা মিষ্টান্ন ভান্ডার চলছে সুধাংশ পালের তত্ত্বাবধানে।
স্পঞ্জ মিষ্টির ক্রেতা শাহলম ভূইয়া বলেন, লোকমুখে মা মিষ্টান্ন ভান্ডারের স্পঞ্জ মিষ্টির কথা অনেক শুনেছি। দেখতে অন্যসব দোকানে তৈরি স্পঞ্জ মিষ্টির মতো হলেও মা মিষ্টান্ন ভান্ডারের স্পঞ্জ মিষ্টি খেতে সুস্বাদু। সেজন্য প্রায়ই এ দোকানে আসি মিষ্টি খেতে। পরিবারের জন্য এই দোকান থেকে প্রায়ই মিষ্টি কিনে নিয়ে যায়। মাঝে-মধ্যে প্রবাসে থাকা প্রিয়জনদের জন্যও মিষ্টি পাঠানো হয়।
আরেক ক্রেতা শিউলী বেগম , আমার নরসিংদী  জেলার রায়পুরা উপজেলায়। লালপুরে মামার বাড়িতে বেড়াতে আসলেই এই দোকানের মিষ্টি খেয়ে যায়। শুশুর বাড়ির অন্য সদস্যদের জন্য নিয়ে যায়। বিশেষ করে স্পঞ্জ মিষ্টির স্বাদ অন্য রকম।
মা মিষ্টান্ন ভান্ডারের স্বত্বাধিকারী হরিধন পাল বলেন, ‘আমার ভগ্নিপতি প্রাণধন দেবের কাছ থেকে স্পঞ্জ মিষ্টি তৈরির কাজ শিখেছিলাম। তিনিও মিষ্টির ব্যবসা করেন। অন্য দোকানের চেয়ে আমার দোকানের স্পঞ্জ মিষ্টির দাম কিছুটা বেশি। কারণ আমার মিষ্টিতে কোনো ভেজাল নেই, সম্পূর্ণ ছানায় তৈরি হয়। সেজন্য মানুষ এ মিষ্টি খুব পছন্দ করে।