বৃহস্পতিবার, ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দেশি মাছের নানা প্রজাতির শুটকি তৈরি হচ্ছে আশুগঞ্জের লালপুর, রপ্তানি হচ্ছে বিদেশে

news-image
তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রফতানি হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার লালপুর গ্রামের মেঘনা ও তিতাস নদীর মিঠা পানির চ্যাপাসহ বিভিন্ন মাছের শুটকি। বছরের আশ্বিন থেকে ফাল্গুন এই ছয় মাস শুটকি উৎপাদনের মৌসুম। এই পল্লী থেকে বছরে দেড়শ’ত কোটি টাকার উপরে শুটকি উৎপন্ন করা হয়ে থাকে বলে জানিয়েছেন এখানকার ব্যবসায়ীরা।
এই পল্লীর শুটকি  ব্যবসায়ীরা প্রায় ৩ শতধিক মাচার (ডাঙ্গি) ওপর মাছ শুকিয়ে এখন শুটকি তৈরি করছে। শুরুতে চ্যাপা শুটকি তৈরি হলেও এখন প্রায় ১৬/১৮ প্রজাতির মাছের শুটকি উৎপাদিত হচ্ছে লালপুরের এসব মাচায়।বর্তমানে এই পেশার সাথে জড়িত রয়েছে কয়েক হাজার নারী-পুরুষ।
সরেজমিনে ঘুরে ও খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জেলার আশুগঞ্জ, নবীনগর, বাঞ্ছারামপুর, নাছিরনগর ও কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা, মিটামইন, তাড়াইল হাওর অঞ্চলের বিভিন্ন নদী-নালা, বিল, পুকুর, ডোবা ও খালে উৎপাদিত মাছ সংগ্রহ করে মাচায় শুকিয়ে প্রক্রিয়াজাতের মাধ্যমে শুটকি তৈরি হয়। প্রথমে নারী শ্রমিকরা মাছ কেটে নদীতে ময়লা পরিষ্কার করেন। এরপর এসব কাটা মাছ রোদে শুকানোর জন্য মাচায় রাখা হয়। প্রায় ৪/৫ দিন রোদে শুকানোর পর প্রক্রিয়াজাত করে শুটকি তৈরি করা হয়।
 কেচকি, আলুনি, পুঁটি, ভেদি, গজার, গইন্না, বোয়াল, টেংরা, চাপিলা, চিকরা, স্টারবাইম, চাঁন্দা, বেটা গুলাইয়া, বাইল্লা, কাইখ্যা ও লংবাইম এইসব দেশি প্রজাতির মাছের শুটকি করা হয়। এর মধ্যে দেশে-বিদেশে পুঁটি ও ভেদি মাছ দিয়ে বিশেষভাবে তৈরি চ্যাপা শুটকির চাহিদাই অনেক বেশি। স্থানীয় ভাষায় চ্যাপা শুটকি বলা হলেও অনেকে একে শীদল শুটকিও বলে।
এই পল্লীতে কাজ করে বেশ কয়েকজন শ্রমিক জানান, গত দুই বছর করোনার কারনে আমাদের কাজের বেশ মন্দা কেটেছে। মহাজনদের কাছে মজুদ করা শুটকি গোদামে জমে রয়েছিল। অনেক শুটকি দীর্ঘসময় রাখার কারণে নষ্ট হয়েছিল। এবছর কাজের গতি ভাল, আশা করি বিগত সময়ের ক্ষতি পুষিয়ে এখন আয়-রোজী ভাল হবে। সকাল ৭ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত কাজ করে আমরা পুরুষ শ্রমিকরা জনপ্রতি ৫০০ টাকার মত মজুরি পায়। আর নারী শ্রমিকরা কাজের ধরন বুঝে ২৫০ থেকে ৩০০ টাকার মত  মজুরি পেয়ে থাকেন। মোটামুটি এখন খেয়ে-পড়ে ভালই চলতে পারছি।
শুটকি ব্যবসায়ী সুহাস দাস ও অবিনাশ দাস বলেন, করোনার ধাবায় বিগত দুই বছর আমাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। যেহেতু এটা আমাদের এক মাএ পেশা লাভে-লসে টিকে থাকবে হবে। এখন আমরা প্রতি কেজি পুঁটি শুটকি ৪০০ টাকা, চাঁন্দা ৫০০ , টেংরা ৬০০, গজার ৫০০, গইন্না ৪০০, চাপিলা ৬৫০, কাইখ্যা ৭০০, চিকরা বাইম ৬৫০, বোয়াল ৭০০ ও বজুরী ৪০০ টাকায় পাইকারী দরে বিক্রি করছি।  উৎপাদনকারীরা। আর প্রতি কেজি চ্যাপা শুটকি ৪০০ থেকে ৫৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
আরেক শুটকি ব্যবসায়ী মনহোন দাস জানান, বর্তমানে চাহিদা অনুযায়ী  শুটকির ব্যবসা করতে পুঁজি লাগে। দেশে বিভিন্ন স্হান থেকে পাইকাররা এসে এখানকার উৎপাদিত শুটকি কিনে নিয়ে যান। আমাদের শুটকি ভারত, নেপাল  ইংল্যান্ড, ইতালি, সৌদি আরব, দুবাইসহ বেশ কয়েকটি দেশে এখন চ্যাপা ও অন্যান্য শুটকি দেশের বড় বড় ব্যবসায়ীরা এলসি মার্ধ্যমে বিদেশে রপ্তানি করে থাকেন। আমাদের শুটকির মান ভাল হওয়ার বিদেশে এর চাহিদাও ভাল। তবে অনেকে পুঁজির অভাবে ব্যবসা করতে গিয়ে  বিভিন্ন এনজিও এবং দাদন ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে কিস্তির টাকা শোধ করে ব্যবসা চালাতে হিমসিম খেতে হচ্ছে। সময়মত সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে অনেকে সর্বহারাও হয়েছেন।
তিনি  আরও বলেন, সরকার যদি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে ব্যাংক থেকে শুটকি উৎপাদনের জন্য সহজ শর্তে ঋণের ব্যবস্থা করে তাহলে ব্যবসায়ীরা শুটকি রফতানি করে দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবেন বলে আমরা আশা করছি।

এ জাতীয় আরও খবর

বোমা আতঙ্কে জরুরি অবতরণ, উড়োজাহাজে তল্লাশি

এইচএসসি পরীক্ষা : কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশ নয়

এইচএসসি পরীক্ষা, রংপুর বিভাগে অংশগ্রহণ নিবে ১লাখ ১৬ হাজার পরীক্ষার্থী

মুজিব শতবর্ষ ও বিজয় দিবসের সুবর্ণ জয়ন্তীতে রংপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বস্তাভর্তি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

৭৯ শতাংশ করদাতা এখনও রিটার্ন দেননি

বয়স্ক নারীদের যেসব খাবার খাওয়া জরুরি

শীতের মৌসুমে ভ্রমণের জন্য ৫ জায়গা

সব বয়সের জন্য ভিন্ন স্বাদের গাজরের সন্দেশ

প্রতিশ্রুতি রক্ষায় নাইট গার্ডের দায়িত্বে ইউপি চেয়ারম্যান

বন্ধ হচ্ছে অবৈধ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের মৃত্যুতে জবির শোক